প্রকাশ : 2018-05-05

বোয়ালখালীতে বোদ্ধ ভিক্ষুকে লাঞ্চিত ও হামলার ঘটনায় আদলতে মামলা দায়ের

নিজেস্ব সংবাদদাতা,চট্টগ্রামঃ চট্টগ্রামের বোয়ালখালী থানাধীন হাজারীরচর এলাকায় গত ২৯ শে এপ্রিল বৌদ্ধ ধর্মের প্রধান ধর্মীয় অনুষ্ঠান বৌদ্ধ পূর্নিমা পালনের দিনে হাজারীরচর বৌদ্ধ মন্দিরের কতৃত্ব নিয়ে দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ হয়। বিজ্ঞ আদালতে দায়ের কৃত মামলার সূত্রে জানাযায় বৌদ্ধ ধর্মের প্রধান ধর্মীয় উৎসব বৌদ্দ পুর্নিমা পালনের উদ্দেশ্যে পল্টু বড়য়া উক্ত বৌদ্ধ বিহারে ধর্মীয় আয়োজন করা কালীন সময়ে উক্ত বৌদ্ধ বিহারে শান্তি শৃঙ্খলা রক্ষার্থে ঝুন্টু বড়য়া ও যীশু বড়য়া কতৃক স্বাক্ষরিত একটি আবেদন গত ২৮ শে এপ্রিল অফিসার ইনচার্জ বোয়ালখালী থানাকে প্রদান করেছিলেন কিন্তু দুর্ভাগ্যবশত বোয়ালখালী থানার পুলিশ কতৃক উক্ত আবেদনের প্রেক্ষিতে কোন রুপ আইনগত সহযোগীতা প্রদান না করার কারনে গত ২৯ শে এপ্রিল বৌদ্ধদের ধর্মীয় অনুষ্ঠানের ষড়যন্ত্র কারী ব্যক্তিগন কতৃক অতর্কিত ধারালো অস্ত্র-সস্ত্র সজ্জিত হয়ে বাংলাদেশ বৌদ্ধ ভিক্ষু মহাসভা ও বাংলাদেশ বৌদ্ধ কৃষ্টি প্রচার সংঘের অনুমোদিত শ্রীমৎ সংঘপাল ভিক্ষু মন্দিরে সন্নিকটে পূর্ব কালুরঘাট বাদামতলে তাহাকে লাঞ্চিত ও নির্যাতন করা কালীন সময়ে মাইকেল বড়য়া,বিপ্লব বড়য়া ও এলফেট বড়য়া (আশুতোষ) তাহারা বাধা প্রদান করিলে সত্যেন্দ্র বড়য়া সহ আরো ১৫/১৬ জন ব্যক্তিগনে হামলা করিলে তাহাতে এলফেট বড়য়া (আশুতোষ) আহত হয়ে চট্টগ্রাম মেডিকেলে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। উক্ত ঘটনায় বোয়ালখালী থানা কতৃক কোন প্রকার আইনগত সহযোগীতা প্রদান না করায় মাইকেল বড়য়া গত ৩ মে বিজ্ঞ সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত চট্টগ্রামে উল্লেখিত ব্যক্তিগনকে আসামী করিয়া একটি সি আর মামলা দায়ের করেন সি আর মামলা নং৭৭/১৮,উক্ত মামলা বিজ্ঞ আদালতে গ্রহন করিয়া বোয়ালখালী থানার ওসিকে ২০ দিনের মধ্যে সত্যতা তদন্ত পূর্বক প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ প্রদান করেন। মাইকেল বড়য়া কতৃক দায়ের কৃত মামলার আইনজিবী এডভোকেট জিয়া উদ্দিন বলেন,আমার মক্কেল সহ আরো অপরাপর ব্যক্তিগনে প্রতিপক্ষের সন্ত্রাসী হামলার শিকার হলেও বোয়ালখালী থানায় গিয়ে তারা কোন প্রকার আইনি সহযোগিতা না পেয়ে বিজ্ঞ আদালতের দারস্থ হয়েছেন, আশা করি আমরা বিজ্ঞ আদালতের মাধ্যমে ন্যায় বিচার পাব।