প্রকাশ : 2017-12-09

মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষের সংগঠন বিজয়৭১-এর ৪র্থ প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে বক্তারা, মুক্তিযুদ্ধে

বিজয়৭১-এর ৪র্থ প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী ও বীর চট্টলা বিজয় উৎসব উদ্যাপন উপলক্ষে গত ৮ ডিসেম্বর শুক্রবার বিকাল ৩ ঘটিকায় রেলওয়ে সিআরবি শিরীষতলায় এক বর্ণাঢ্য সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, আলোচনা, সম্মাননা প্রদানসহ ব্যাপক কর্মসূচী পালিত হয়। উক্ত অনুষ্ঠানে উদ্বোধক ছিলেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. ইফতেখার উদ্দিন চৌধুরী। প্রধান অতিথি ছিলেন চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের মাননীয় মেয়র আ.জ.ম নাছির উদ্দীন। মুখ্য আলোচক ছিলেন চট্টগ্রামের রেঞ্জের ডিআইজি বীর মুক্তিযোদ্ধা ড. মনির-উজ-জামান। বিজয়৭১-এর সভাপতি এড. নিলু কান্তি দাশ নীলমনির সভাপতিত্বে সংগঠনের প্রতিষ্ঠাতা সাধারণ সম্পাদক ডা: আর.কে রুবেলর সঞ্চালনায় বিশেষ অতিথি ছিলেন শ্রমিক লীগ কেন্দ্রীয় যুগ্ম সম্পাদক সফর আলী, মহানগর আওয়ামীলীগ উপদেষ্টা শেখ মো: ইসহাক, মেরিট বাংলাদেশ ফাউন্ডেশন চেয়ারম্যান ড. মো: সানাউল্লাহ, বীর চট্টলার বিজয় উৎসবের আহ্বায়ক মো: জসীম উদ্দিন চৌধুরী, জাসদ উত্তর জেলা সভাপতি ভানু রঞ্জন চক্রবর্ত্তী, জেলা পরিষদ সদস্য শাহেদা আক্তার জাহান, নজরুল গবেষক, ফুলকলি ফুড্ প্রোডাক্ট লি: এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক এম.এ. সবুর, চট্টগ্রাম রিপোটার্স ইউনিটির সভাপতি সাংবাদিক কিরণ শর্মা, বিজয়৭১-এর প্রধান সমন্বয়ক সজল চৌধুরী, মহানগর যুবলীগ সদস্য সুমন দেবনাথ, বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোট মহানগর সভাপতি আমিনুল হক বাবু, বিজয়৭১-এর পৃষ্ঠপোষক এড. মোস্তফা আনোয়ার ইসলাম প্রমুখ। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে আ.জ.ম নাছির উদ্দীন বলেন, মহান মুক্তিযুদ্ধেল ফসল স্বাধীনতা দীর্ঘ ৯ মাস সংগ্রামের মধ্য দিয়ে বিজয় সূচিত হয়েছে। আমরা স্বাধীনতার লাল সূর্যকে ছিনিয়ে এনেছি। আজ সেই গৌরব উজ্জ্বল মুহুর্তকে স্মরণীয় করার লক্ষ্যে মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে সকলের মাঝে ছড়িয়ে দিতে হবে। উদ্বোধকের বক্তব্যে চবি উপাচার্য প্রফেসর ড. ইফতেখার উদ্দিন চৌধুরী বলেন, আমাদের এ অর্জন শুধু আনুষ্ঠানিকতার মাঝে সীমাবদ্ধ রাখলে চলবে না মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস চর্চার মাধ্যমে এ প্রজন্মকে চেতনায় শাণিত করতে হবে। এই বিজয়ের ধারাবাহিকতা রক্ষায় সকলকে আগামী নির্বাচনে একযোগে কাজ করে শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করার আহ্বান জানান। মুখ্য আলোচকের বক্তব্যে চট্টগ্রাম রেঞ্জের ডিআইডি বীর মুক্তিযোদ্ধা ড. মনির-উজ-জামান বলেন, বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণ স্বীকৃতি বাংলা ভাষাকে আন্তর্জাতিক ভাষায় স্বীকৃতিসহ সকল ক্ষেত্রেই সফলতার দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে। তারই ধারাবাহিকতায় বঙ্গবন্ধু যে স্বপ্ন নিয়ে একটি সোনার বাংলা গড়ার প্রত্যয়ে আমাদেরকে একটি স্বাধীন-সার্বভৌমত্ব দেশ উপহার দিয়েছেন তা নতুন প্রজন্মদেরকে রক্ষা করে জননেত্রী শেখ হাসিনা যে ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার শপথ নিয়েছেন তা বাস্তবায়নের জন্য ঐক্যবদ্ধভাবে সকলকে এগিয়ে আসার আহ্বান জানান। অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন অধ্যক্ষ দুলাল কান্তি চৌধুরী, পরিমল কান্তি দত্ত, রেবা বড়য়া, খোকন মহাজন রাজীব, এস.এম. নুরনবী জনি, অমর কান্তি দত্ত, ডা: সুভাষ চন্দ্র সেন, অধ্যক্ষ রতন দাশগুপ্ত, ডা: এস.এম. কামরুজ্জামান, ডা: শেখ মো: জাহেদ, সজল দাশ, শিক্ষিকা নীলা বোস, রিংকু ভট্টাচার্য, সৈয়দা শাহান আরা বেগম, শান্তা পাল, সংগীতশিল্পী রিতু দাশ, হাসিনা নাজিম বকুল, মহানগর সাধারণ সম্পাদক লিয়াকত আলী মাসুদ, প্রকৌশলী সৌমেন বড়য়া, মিলন কান্তি দেবনাথ, ডা: মো: আয়েস, ডা: এস.কে পাল সুজন, মো: আনিছ খোকন, মো: জকিউদ্দিন, বিজয়৭১-এর প্রচার সম্পাদক সমীরণ পাল প্রমুখ। আলোচনা শেষে বিশিষ্ট সংগীতশিল্পীদের পরিবেশনায় মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠিত হয়।প্রেস বিজ্ঞপ্তি

সারা দেশ পাতার আরো খবর