প্রকাশ : 2018-06-21

রাজধানীতে যোগ প্রেমীদের মিলনমেলা

সামঞ্জস্য ও শান্তির জন্য যোগ’ এই স্লোগানকে সামনে রেখে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে বসেছিলো যোগ প্রেমীদের মিলনমেলা। ‘আন্তর্জাতিক যোগ দিবস-২০১৮’ উপলক্ষে ভারতীয় দূতাবাসের উদ্যোগে এ আয়োজন। রাজধানীর ইন্দিরা গান্ধী সাংস্কৃতিক কেন্দ্রের যোগ প্রশিক্ষক মাম্পী দে’র পরিচালনায় যোগ সেশন শুরু হয় সকাল সাতটায়। এতে অংশ নেন পাঁচ হাজারেরও বেশি মানুষ। ২১ জুন বছরের সবচেয়ে বড় দিন। আর এদিনেই পালিত হয় যোগ দিবস। ২০১৫ সাল থেকে প্রতিবছর ভারতীয় হাইকমিশন বাংলাদেশে যোগ দিবস পালন করে আসছে। অনুষ্ঠানে আন্তর্জাতিক যোগ দিবস উপলক্ষে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর একটি ভিডিও বার্তাও প্রচার করা হয়। চতুর্থবারের মতো আয়োজিত এ অনুষ্ঠানটি ছিল সবার জন্য উন্মুক্ত। এতে শিশু, বৃদ্ধ, নারী, পুরুষসহ প্রায় সব শ্রেণির মানুষ এই যোগ দিবসে যোগ দেন। স্টেডিয়ামে প্রবেশের প্রতিটি গেটেই ছিল দীর্ঘ লাইন। ভেতরে জায়গা না পেয়ে অনেককে ফিরে যেতেও দেখা যায়। তাছাড়া গ্যালারিতে বসেও অনেকে যোগব্যায়ামের কলাকৌশল উপভোগ করেন। এই অনুষ্ঠানে অনেকেই অটিজমে আক্রান্ত অথবা শারীরিক প্রতিবন্ধী শিশুদের নিয়ে আসেন। একজন অটেস্টিক শিশুর বাবা আহমেদ হুমায়ূন বলেন, ‘জন্মের কয়েক মাসের মধ্যেই আমার মেয়ের অটিজম ধরা পরে। ওর শরীরের উপর নিজের নিয়ন্ত্রণ পেতে এবং ওকে মানসিক শান্তিতে রাখতে যোগব্যায়াম খুব ভালো কাজ করছে। এখন সে নিজেই অনেকটা করতে পারে।’ উত্তরা থেকে এসেছিল শিশু তন্ময় ও তার মা। তারা যোগব্যায়ামে অংশ নেন। তন্ময়ের মা জানান, তার আগে ঘুমের সমস্যা ছিল। পায়ে ব্যথাও ছিল। যোগব্যায়ামের ফলে তিনি এখন সুস্থ আছেন। যোগ সেশনে অংশগ্রহণকারী সকলকে বিনামূল্যে যোগ ম্যাট, টি-শার্ট, উপহার সামগ্রী দেয়া হয়। এছাড়া অনুষ্ঠানে লাকি ড্রয়ের মাধ্যমে পুরস্কার দেয়া হয়। এসব পুরস্কারের মধ্যে ছিল একটি টাটা টিয়াগো গাড়ি, একটি বাজাজ মোটরসাইকেল,ভারতে ভ্রমণ প্যাকেজ, দু’জনের দিল্লি ট্রিপ, ঢাকায় পাঁচ তারকা হোটেলে দু’জনের থাকার সুযোগ। উল্লেখ্য, ২০১৪ সালের ১১ ডিসেম্বর জাতিসংঘ আন্তর্জাতিক যোগ দিবস ঘোষণা দেয়। ভারতের দেওয়া এই প্রস্তাবটি ১৭৫টি রাষ্ট্রের সমর্থনের মধ্য দিয়ে এ দিবসটি আন্তর্জাতিকভাবে এখন পালিত হয়ে আসছে। জাতিসংঘের কোনো প্রস্তাবের প্রতি এটিই ছিল সর্বোচ্চ সংখ্যক রাষ্ট্রের সমর্থনদানের রেকর্ড।

জাতীয় পাতার আরো খবর