বুধবার, নভেম্বর ২১, ২০১৮
প্রকাশ : 2018-07-05

দাওরায়ে হাদিসের ফলাফল প্রকাশ

অনলাইন ডেস্ক :আল-হাইআতুল উলয়া লিল-জামি‘আতিল কওমিয়া বাংলাদেশ-এর কেন্দ্রীয় পরীক্ষার ফলাফল বৃহস্পতিবার প্রকাশিত হয়েছে। পরীক্ষার গড় পাসের হার ৭৩.৩৪ শতাংশ। ছাত্রদের পাসের হার ৭৬ শতাংশ আর ছাত্রীদের পাশের হার ৬৬.৮৩ শতাংশ। আল-হাইআতুল উলয়া লিল-জামি‘আতিল কওমিয়ার কো-চেয়ারম্যান আল্লামা আশরাফ আলী। ফলাফল ঘোষণার আগে পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক আল্লামা হাফেয মাওলানা ইসমাঈল ফলাফলের ফাইল কো-চেয়ারম্যানের কাছে হস্তান্তর করেন।বৃহস্পতিবার সকালে মতিঝিলস্থ কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এ ফলাফল ঘোষণা করার সময় ছয়টি বোর্ডের প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন। প্রতিনিধিগণ আগামী পরীক্ষার ফলাফল রমযান মাসে প্রকাশ করার অনুরোধ জানান।আনুষ্ঠানিকভাবে ফল প্রকাশ করে আল্লামা আশরাফ আলী বলেন, দাওরায়ে হাদীসের মাস্টার্সের সমমান দেয়ার পর কেন্দ্রীয় পরীক্ষা শুরু হওয়ায় ছাত্রছাত্রীদের মধ্যে মেধার প্রতিযোগিতা শুরু হয়েছে। এ প্রতিযোগিতার কারণে শিক্ষার্থীদের বেশি লেখাপড়া করতে হচ্ছে।। অভিন্ন প্রশ্নপত্রে দ্বিতীয়বারের মতো কেন্দ্রীয় পরীক্ষা সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন হওয়ার পর অনেক সীমাবদ্ধতা সত্ত্বেও নির্ধারিত তারিখে ফলাফল ঘোষণা করা সম্ভব হয়েছে। উল্লেখ্য ২০১৭ সালের ১১ এপ্রিল গণভবনে প্রধানমন্ত্রী কওমী মাদরাসার দাওরায়ে হাদীসের সনদকে মাস্টার্স (ইসলামিক স্টাডিজ এবং আরবি) এর সমমান প্রদানের ঘোষণা দেন।)দিবিতীয়বারের পরীক্ষায় মোট পরীক্ষার্থী ছিল ২০ হাজার ৭৪৯ জন। এদের মধ্যে উত্তীর্ণ হয়েছে ১৪ হাজার ৫৩৪ জন। এর মধ্যে ছাত্র ১০ হাজার ৬৮৮ জন এবং ছাত্রী ৩ হাজার ৮৪৬ জন। পাসের হার ছাত্র ৭৬ শতাংশ, ছাত্রী ৬৬.৮৩ শতাংশ। মুমতায (স্টার মার্ক) পেয়েছে ছাত্র ৬৫৬ জন এবং ছাত্রী ৫৯ জন। জায়্যিদ জিদ্দান (১ম) বিভাগে উত্তীর্ণ হয়েছে ছাত্র ২ হাজার ৮৩৫ জন, ছাত্রী ৬৭২ জন। জায়্যিদ (২য়) বিভাগে উত্তীর্ণ হয়েছে ছাত্র ৪ হাজার ৩৪ জন, ছাত্রী ১ হাজার ৫৫২ জন এবং মাকবূল (৩য়) বিভাগে উত্তীর্ণ হয়েছে ছাত্র ৩ হাজার ১৬৩ জন, ছাত্রী ১ হাজার ৫৬৩ জন।ছাত্রদের মেধা তালিকায় শীর্ষে স্থান অর্জন করেছেন যৌথভাবে ২ জন। তারা হলেন, বগুড়া জেলার জামেয়া ইসলামিয়া কাছেমুল উলূম (জামিল মাদরাসা)-এর মুহাঃ শামসুল হক এবং ঢাকা জেলার জামিয়া আরাবিয়া ইমদাদুল উলূম ফরিদাবাদ মাদরাসার খলিল আহমদ নাদিম। মেধা তালিকায় ২য় স্থান অর্জন করেছেন যৌথভাবে ২ জন। তারা হল কিশোরগঞ্জ জেলার জামিয়া নূরানিয়া তারাপাশা মাদরাসার মুহাঃ নাসীরুদ্দীন এবং চট্টগ্রাম জেলার আল-জামিয়া আল-ইসলামিয়া পটিয়া মাদরাসার মোহাম্মদ খুবাইব রাজী। মেধা তালিকায় ৩য় স্থানও অর্জন করেছেন যৌথভাবে ২ জন পরীক্ষার্থী। তারা হলেন ঢাকা জেলার জামিয়াতুল উলুমিল ইসলামিয়া মাদরাসার জিহাদুল ইসলাম এবং চট্টগ্রাম জেলার আল-জামিয়া আল-ইসলামিয়া পটিয়া মাদরাসার আয়াতুল্লাহ।ছাত্রীদের মেধা তালিকায় শীষ স্থান অর্জন করেছেন, ঢাকা জেলার মাহমুদিয়া মহিলা মাদরাসার মুনজিয়া ইসলাম। মেধা তালিকায় ২য় স্থান অর্জন করেছেন নরসিংদী জেলার আয়েশা সিদ্দীকা মহিলা মাদরাসার মোসা: শামিমা এবং ৩য় স্থান লাভ করেছেন যৌথভাবে ৩ জন ছাত্রী। তারা হলেন চট্টগ্রাম জেলার আল হুদা মহিলা মাদরাসার রাহমা, ও ঢাকা জেলার আয়েশা সিদ্দীকা (রা.) ঢালকানগর মহিলা মাদরাসার হাফসা সুলতানা এবং ফাহিমা মুসাররাত।

শিক্ষা পাতার আরো খবর