প্রকাশ : 2018-07-19

টাইম ম্যাগাজিনের রিপোর্ট, রোহিঙ্গাদের ওপর নৃশংসতা চালাতে আগেই প্রস্তুতি নিয়েছিল মিয়ানমার

অনলাইন ডেস্ক :রোহিঙ্গাদের ওপর নৃশংসতা চালানোর জন্য আগে থেকেই ব্যাপকভিত্তিক এবং পদ্ধতিগত প্রস্তুতি ছিল মিয়ানমার কর্তৃপক্ষের। এমন প্রস্তুতি নেয়া হয়েছিল সর্বশেষ রোহিঙ্গাদের ওপর নৃশংসতা চালানোর বেশ কয়েক মাস আগে থেকে। ব্যাংকক ভিত্তিক মানবাধিকার বিষয়ক গ্রুপ ফোরটিফাই রাইটসকে উদ্ধৃত করে এ খবর দিয়েছে আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন টাইম ম্যাগাজিনের অনলাইন। এতে ক্যাসি কুয়াকেনবুশ লিখেছেন, বিশেষ এই রিপোর্টটি প্রকাশ করা হয়েছে বৃহস্পতিবার। এতে বলা হয়েছে, সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের বিরুদ্ধে মানবতার বিরুদ্ধে অপরাধ ও গণহত্যা চালানো হয়েছে এমনটা বিশ্বাস করার যৌক্তিক কারণ রয়েছে। এই রিপোর্টে এসব অপকর্মে জড়িত থাকার জন্য মিয়ানমারের ২২ জন সেনা ও পুলিশ কর্মকর্তা কমান্ডারের দায়িত্বে ছিলেন বলে উল্লেখ করা হয়। এমন অভিযোগের ফৌজদারী তদন্তের জন্য বিষয়টি আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালতে পাঠানোর জন্য জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে ফোরটিফাই রাইটস। এর প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ম্যাথিউ স্মিত বলেছেন, গণহত্যা স্বত্বঃস্ফূর্তভাবে ঘটে নি। এসব অপরাধে দায়মুক্তি দেয়ায় ভবিষ্যতে আরো ভয়াবহ আইন লঙ্ঘনের ঘটনা ঘটবে এবং হামলা হবে। এ অবস্থায় বিশ্ব অলস হয়ে বসে থাকতে পারে না এবং প্রত্যক্ষ করতে পারে না যে, আরেকটা গণহত্যা ঘটুক। কিন্তু এই মুহূর্তে আসলেই তা ঘটছে। রোহিঙ্গারা হলেন মিয়ানমারের পশ্চিমাঞ্চলে রাখাইন রাজ্যে বসবাসকারী মুসলিম সংখ্যালঘু। তারা নির্যাতিত ও তাদের কোনো রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতি নেই। আরাকান রোহিঙ্গা সালভেশন আর্মি (আরসা) গত ২৫ মে আগস্ট নিরাপত্তা রক্ষাকারীদের ওপর হামলা চালায়। এতে বেশ কয়েকজন নিরাপত্তা রক্ষী নিহত হন। এরপরই রোহিঙ্গাদের ওপর নৃশংস প্রতিশোধ নেয়া শুরু করে মিয়ানমারের সেনাবাহিনী। গণহত্যা, গণধর্ষণ, অগ্নিসংযোগের মতো বর্বরতা বেছে নেয় তারা। এতে বাধ্য হয়ে সাত লাখের বেশি রোহিঙ্গা বাধ্য হয়ে সীমান্ত অতিক্রম করে বাংলাদেশে এসে আশ্রয় নেন। ফোরটিফাই রাইটস বলছে, এসব রোহিঙ্গাদের ওপর এমন নৃশংসতা শুধু আরসার হামলার জবাব নয়। এটা হলো তাদেরকে দেশ থেকে বের করে দেয়ার একটি কৌশল। এমন কৌশল তারা আগেই নির্ধারণ করে রেখেছিল। আগস্টে আরসা যে হামলা চালিয়েছিল সেটা ছিল এমন দ্বিতীয় হামলা। এ গ্রুপটি প্রথম হামলা চালিয়েছিল ২০১৬ সালের অক্টোবরে। তার জবাবে মিয়ানমারের সেনাবাহিনী নৃশংসতা চালায়। তারা ধর্ষণ করে। বিচার বহির্ভূত হত্যাকান্ড চালায়। এতে হাজার হাজার রোহিঙ্গা পালাতে বাধ্য হয়। ফোরটিফাই রাইটস বলছে, ২০১৬ সালের অক্টোবরে যে নৃশংসতা চালানো হয়েছে সে বিষয়ে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় কার্যকর পদক্ষেপ নিতে ব্যর্থ হয়েছে। এতে মিয়ানমারের নিরাপত্তা রক্ষাকারীরা আরো শক্তিশালী হয়েছে। তাই তারা আরসার দ্বিতীয় আরেকটি হামলার জন্য অপেক্ষা করছিল। এ জন্য তারা আগে থেকে অনেক প্রস্তুতি নিয়েছিল। যার মধ্যে রয়েছে রোহিঙ্গা নন এমন স্থানীয় সম্প্রদায়কে প্রশিক্ষণ ও অস্ত্র দেয়া, রোহিঙ্গাদের বাড়িঘরে যাওয়ার ক্ষেত্রে যেসব প্রতিবন্ধকতা ছিল তা ভেঙে ফেলা, ইচ্ছাকৃতভাবে রোহিঙ্গাদের খাদ ও জীবন রক্ষাকারী জিনিসপত্র থেকে বঞ্চিত রাখা। যাতে তাদেরকে দুর্বল করে দেয়া যায়। তাদের ওপর হামলা জোরালো করা যায়। তাছাড়া অপ্রয়োজনীয়ভাবে উচ্চ হারে নিরাপত্তা রক্ষাকারী মোতায়েন করা হয় রাখাইনের উত্তরাঞ্চলে। ফোরটিফাই রাইটস বলছে, এসব প্রস্তুতি দেখে বোঝা যায় এগুলো করা হয়েছিল গণহত্যা ও মানবতার বিরুদ্ধে অপরাধ সংঘটিত করার জন্য। এতে আরো বলা হয়, ২০১৭ সালের আগস্টে রাখাইনের উত্তরাঞ্চলে যখন হামলা শুরু হয় তাতে জড়িত ছিল মিয়ানমারের কমপক্ষে ২৭ আর্মি ব্যাটালিয়ান। এতে সেনা সদস্য ছিল ১১০০০। তার সঙ্গে ছিল কমপক্ষে তিনটি কমব্যাট পুলিশ ব্যাটালিয়ন। ওই রিপোর্টে ২২ জন সেনা ও পুলিশ কর্মকর্তাকে এসব নৃশংসতার জন্য দায়ী করা হয়। বলা হয়, তাদের বিরুদ্ধে ফৌজদারী তদন্ত করে বিচার করা উচিত। এই তালিকায় রয়েছেন কমান্ডার ইন চিফ সিনিয়র জেনারেল মিন অং হ্লাইয়, ডেপুটি কমান্ডার ইন চিফ ভাইস সিনিয়র জেনারেল সোয়ে উউন, সেনাবাহিনী, নৌবাহিনী ও বিমান বাহিনীর জয়েন্ট চিফ অব স্টাফ জেনারেল মাইয়া তুন ও। উল্লেখ্য, গত মাসে অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল একই রকম অপরাধে জড়িত থাকার অভিযোগে মিয়ানমারের ১৩ জন সেনা ও পুলিশ কর্মকর্তাকে সনাক্ত করে। মানবজমিন