মঙ্গলবার, নভেম্বর ২০, ২০১৮
প্রকাশ : 2017-12-18

ন্যাশনাল ডিফেন্স কোর্স ও আর্মড ফোর্সেস ওয়ার কোর্স-২০১৭ সনদ বিতরণে প্রধানমন্ত্রী

নানা সীমাবদ্ধতা মধ্যেও সশস্ত্র বাহিনীর উন্নয়নে সরকার সবধরনের কার্যক্রম অব্যাহত রেখেছে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন- আগামীতে সামরিক সক্ষমতা বাড়াতে আরো আধুনিক ও প্রযুক্তিসম্পন্ন করে গড়ে তোলা হবে সশস্ত্র বাহিনীকে। সোমবার সকালে রাজধানীর মিরপুর সেনানিবাসে ন্যাশনাল ডিফেন্স কোর্স ও আর্মড ফোর্সেস ওয়ার কোর্স-২০১৭ এর সনদ বিতরণ অনুষ্ঠানে এই কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী। এ সময়, রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দিয়ে আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলে মানবিকতার মানদণ্ডে বাংলাদেশ প্রশংসিত হচ্ছে বলেও উল্লেখ করেন শেখ হাসিনা। জাতীয় নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে বিভিন্ন বিষয়ে অধ্যয়ন, গভীর পর্যবেক্ষণ এবং উচ্চতর গবেষণার জন্য ১৯৯৬ সালে মিরপুর সেনানিবাসে স্থাপিত হয় ন্যাশনাল ডিফেন্স কলেজ। যেখানে প্রতিবছর সামরিক ও বেসামরিক প্রশাসনের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা দেশ পরিচালনায় কৌশলগত প্রশিক্ষণ নিয়ে থাকে। সোমবার সকালে মিরপুর সেনানিবাসে এ বছর সফলভাবে কোর্স সম্পন্ন করায় কর্মকর্তাদের হাতে সনদ তুলে দেন প্রতিরক্ষামন্ত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এ সময়, দেশের সামরিক-বেসামরিক মিলে ৫৩ জন কর্মকর্তা এবং বিদেশের ২৭ জনের হাতে তুলে দেয়া হয় ন্যাশনাল ডিফেন্স কোর্সের সনদ। এছাড়া, আর্মড ফোর্সেস ওয়ার কোর্সে তিন বাহিনী থেকে ৩৫ জন কর্মকর্তা অর্জন করেন এএফডব্লিউসি সনদ। এ সময়, কর্মকর্তাদের উদ্দেশ্যে বক্তব্য রাখেন প্রধানমন্ত্রী। বলেন, জাতীয় বিভিন্ন সীমাবদ্ধতা সত্বেও সশস্ত্র বাহিনীর উন্নয়নে সব প্রচেষ্টা অব্যাহত রেখেছে সরকার। প্রধানমন্ত্রী বলেন, 'আমাদের সশস্ত্রবাহীনিকে আধুনিক জ্ঞানসম্পন্ন এবং প্রযুক্তি জ্ঞান সম্পন্ন প্রশিক্ষণ দেওয়া হচ্ছে। 'প্রধানমন্ত্রী বলেন, মিয়ানমার থেকে আসা রোহিঙ্গাদের আশ্রয় নিরাপদ করাসহ দেশের বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কর্মকাণ্ডে সশস্ত্র বাহিনীর অবদান উজ্জ্বল। আগামীতেও দেশের জন্য একাত্ম হয়ে কাজ করার আহ্বান সরকারপ্রধানের। এ বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, 'আমাদের সশস্ত্রবাহীনি শুধু মাত্র ক্যাম্পে বসে থাকার জন্য না। আমাদের দেশটাকে গড়ে তুলতে হবে। এজন্য সব উন্নয়নমূলক কর্মকাণ্ডে সশস্ত্রবাহীনি নিযুক্ত থাকছে। 'পরে, কর্মকর্তাদের সাথে কুশল বিনিময় করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

জাতীয় পাতার আরো খবর