প্রকাশ : 2018-08-25

কলঙ্কের তিলক মুছে ফেলতে হবে: নওফেল

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ব্যারিস্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল বলেছেন, জাতি যুদ্ধাপরাধী ও বঙ্গবন্ধুর আত্মস্বীকৃত খুনীদের ফাঁসির দড়িতে ঝুলতে দেখেছে। এবার ২১ আগস্টের গ্রেনেড হামলার মূল পরিকল্পনাকারী ও ঘাতকদের ফাঁসির দড়িতে ঝুলতে দেখতে চায়। তিনি আরো বলেন, আজ দিবালোকের মত সত্য দুর্নীতির মামলায় দন্ডিত ও পলাতক আসামী তারেক রহমানই ষড়যন্ত্র ও লুণ্ঠনের আস্তানা হাওয়া ভবনে বসেই বঙ্গবন্ধু তনয়া শেখ হাসিনাকে হত্যার উদ্দেশ্যে গ্রেনেড হামলার পরিকল্পনা করেছিলেন। এই গণহত্যাকান্ডের অপরাধের শাস্তি মৃত্যুদণ্ড ছাড়া আর কিছুই হতে পারে না। আগামী সেপ্টেম্বর মাসেই আদালতের রায়ে জাতি আরেকবার পাপ মোচনের সুযোগ পাবে। মনে রাখতে হবে– তারেক রহমান জাতির কলঙ্কের সবচেয়ে বড় তিলক, তা মুছে ফেলতে হবে। গতকাল ২৪ আগস্ট জননেত্রী শেখ হাসিনার প্রাণনাশের উদ্দেশ্যে গ্রেনেড হামলার ১৩তম বার্ষিকী উপলক্ষে চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের উদ্যোগে সংগঠনের দারুল ফজল মার্কেটস্থ কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় তিনি একথা বলেন। তিনি বাংলাদেশের অগ্রযাত্রা পেছনের দিকে ঠেলে দিতে যারা ষড়যন্ত্র করছে তারা বার বার আগস্ট মাসকেই বেছে নেয়। এবারও একই ষড়যন্ত্র হয়েছে। কোমলমতি শিক্ষার্থীদের যৌক্তিক আন্দোলনকে পূঁজি করে তথাকথিত সুজন সম্পাদক বদিউল আলমের বাসায় একজন বিদেশি রাষ্ট্রদূতকে দাওয়াত দিয়ে সরকার উৎখাতের জন্য বৈঠক করা হয়। এ ষড়যন্ত্র ফাঁস হয়েছে। ষড়যন্ত্রকারীদের মুখোশ উন্মোচিত হয়েছে। তাদের পরিকল্পনা ছিলো– সরকার উৎখাত করে ১৫ আগস্ট তারেক জিয়াকে বীরের বেশে দেশে ফিরিয়ে এনে উৎসব করার। তিনি আরো বলেন, এধরনের ষড়যন্ত্রের একমাত্র জবাব হলো আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে শেখ হাসিনার নৌকার বিজয় নিশ্চিত করা। বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা নির্মাণের স্বপ্ন পূরণে আরেক ধাপ এগিয়ে যাওয়া। সভাপতির বক্তব্যে চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মাহতাব উদ্দিন চৌধুরী বলেন, বঙ্গবন্ধুর পরিবার বাঙালি জাতিসত্তার পবিত্র আমানত। আমাদের জীবন বাজি রেখে এ আমানত রক্ষা করতে হবে। তিনি আরো বলেন, চক্রান্তকারীরা বসে নেই। তারা নির্বাচনকে বানচাল করার জন্য ধ্বংসের খেলায় মেতে উঠতে পারে। তাই সময় থাকতে পাল্টা আঘাতের প্রস্তুতি নিতে হবে। ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক এম. রেজাউল করিম বলেন– উপমহাদেশে আওয়ামী লীগই একমাত্র গণসংগঠন, যা একটি বিশাল মহীরুহ। ভয়ংকর ঝড়–ঝাপটায় কখনো শিকড়চ্যুত হয়নি। যারা শিকড় উপড়ে ফেলতে চেয়েছে তারাই ধরাশারী হয়ে ইতিহাসের আঁস্তাকুড়ে নিক্ষিপ্ত হয়েছে। চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক শফিকুল ইসলাম ফারুকের সঞ্চালনায় সভায় বক্তব্য রাখেন মোহরা ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের যুগ্ম আহ্বায়ক নাজিম উদ্দিন চৌধুরী, মো: জসিম উদ্দিন। উপস্থিত ছিলেন মহানগর আওয়ামীলীগের সহ–সভাপতি আলহাজ্ব নঈম উদ্দিন চৌধুরী, এড. সুনীল কুমার সরকার, আলতাফ হোসেন চৌধুরী, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব বদিউল আলম, সাংগঠনিক সম্পাদক নোমান আল মাহমুদ, শফিক আদনান, চৌধুরী হাসান মাহমুদ হাসনী, সম্পাদকমন্ডলীর সদস্য হাসান মাহমুদ চৌধুরী শমসের, এড. ইফতেখার সাইমুল চৌধুরী, চন্দন ধর, মশিউর রহমান চৌধুরী, শহীদুল আলম, জহরলাল হাজারী, নির্বাহী সদস্য এম.এ. জাফর, গোলাম মোহাম্মদ চৌধুরী, আলহাজ্ব পেয়ার মোহাম্মদ, নজরুল ইসলাম বাহাদুর, গৌরাঙ্গ চন্দ্র ঘোষ, এড. কামাল উদ্দিন আহমদ, সাইফুদ্দিন খালেদ বাহার, অমল মিত্র, থানা আওয়ামীলীগের হাজী সিদ্দিক আলম, হারুনুর রশিদ, আলহাজ্ব ফিরোজ আহমদ, আলহাজ্ব জাহাঙ্গীর চৌধুরী, মো: আবু তাহের, হাজী শফিকুল ইসলাম, মো: ইলিয়াছ মিয়া, ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের মোসলেম উদ্দিন, হাজী মোহাম্মদ ইউনুস, আবু মোহাম্মদ আবছার উদ্দিন চৌধুরী, ইসকান্দর মিয়া, সৈয়দ মো: জাকারিয়া, শামসুল আলম, আশফাক আহমেদ, এস.এম. আলমগীর, সলিম উল্লাহ বাচ্চু, কায়সার মালিক, আলী নেওয়াজ, নুর মোহাম্মদ, আবুল কাশেম, হাবিবুর রহমান চৌধুরী, আকবর আলী আকাশ প্রমুখ। এতে ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলায় নিহতদের স্মরণে দোয়া ও মিলাদ মাহফিল পরিচালনা করেন কর্ণফুলী জামে মসজিদের খতিব মাওলানা আবদুর রহমান। প্রেস বিঞ্জপ্তি।

সারা দেশ পাতার আরো খবর