প্রকাশ : 2018-09-16

মরু শহর দুবাইয়ে উড়লো মাশরাফিদের বিজয় কেতন

অনলাইন ডেস্ক: দুবাই ইন্টারন্যাশনাল ক্রিকেট স্টেডিয়ামের গ্যালারি প্রথমবার বাংলাদেশি সমর্থকদের উচ্ছ্বাসে ভাসলো। ২৫ হাজার সিটের গ্যালারির ৯০ শতাংশই ছিল লাল সবুজের জার্সির দখলে।পরবাসে কঠোর পরিশ্রম করা বাংলাদেশিরা প্রাণভরে উপভোগ করলেন মুশফিক- মাশরাফিদের বীরত্ব। অস্ট্রেলিয়া, শ্রীলঙ্কা, ওয়েস্ট ইন্ডিজের পর এবার মরু শহর দুবাইয়ে উড়লো মাশরাফিদের বিজয় কেতন। ব্যাট বলের অসাধারণ নৈপুণ্যে এশিয়া কাপে নিজেদের প্রথম ম্যাচে শ্রীলঙ্কাকে ১৩৭ রানের বিরাট ব্যবধানে হারিয়ে শুভসূচনা করেছে বাংলাদেশ। এই জয়ে টুর্নামেন্টের দ্বিতীয় রাউন্ডে এক পা দিয়ে রাখলো মাশরাফির দল। ২০ তারিখ আবুধাবিতে পরের ম্যাচে বাংলাদেশের প্রতিপক্ষ আফগানিস্তান। প্রথমে ব্যাট করতে নেমে মুশফিকের তুখোড় সেঞ্চুরিতে(১৫০ বলে ১৪৪ রান) ৪৯.৩ ওভারে ২৬১ রানে অলআউট হয় বাংলাদেশ। জবাবে ৩৫.২ ওভারে ১২৪ রানে শেষ হয়ে যায় শ্রীলঙ্কা। ম্যাচের আগের দিন মাশরাফি বলেছিলেন, যে কোনো টুর্নামেন্টের প্রথম ম্যাচটা গুরুত্বপূর্ণ। প্রচণ্ড গরমে এমনিতেই হাসফাস আবস্থা ক্রিকেটারদের। দুবাইয়ে শ্রীলঙ্কা অনেকটাই অভ্যস্ত পাকিস্তানের সঙ্গে নিয়মিত এখানে সিরিজ খেলার কারণে। বাংলাদেশ কতটা গরমের সঙ্গে মানিয়ে নিয়ে পারফর্ম করতে পারবে, তা নিয়ে সংশয় ছিলই। সন্দিহান ছিল খোদ টিম ম্যানেজমেন্টর।তবে দুবাইয়ের কঠিন কন্ডিশনের সঙ্গে মানিয়ে নিয়ে দারুণ জয় তুলে নিল বাংলাদেশ। ব্যাটিংয়ের শুরুটা খুবই জঘন্য ছিল বাংলাদেশের। ২ রানে ২ উইকেট পড়ে গেল। ২ রান করে আহত হয়ে মাঠ ছাড়লেন তামিম। এই পরিস্থিতিতে ঘুরে দাঁড়ানো সহজ ছিল না। তবে মুশফিক- মিথুন মিলে অসাধ্য সাধন করলেন। ২ থেকে তারা রান নিয়ে গেলেন ১৩৪ এ। ১৩২ রানের রেকর্ড জুটি (তৃতীয় উইকেটে)। মিথুন করলেন ৬৮ বলে ৬৩। যদিও দুটো ক্যাচ দিয়েছিলেন তিনি। অসাধারণ বীরত্ব দেখিয়ে ১৫০ বলে ক্যারিয়ার সেরা ১৪৪ রান করে দলকে ২৬১ রানে নিয়ে যান মুশফিক। ব্যস, ভালো একটা ভিত পেয়ে যায় বাংলাদেশ। পুরোপুরি ব্যাটিং উইকেট। ২৬২ রান করা লঙ্কানদের জন্য খুব কঠিন হবে-এটা অবশ্য ভাবা যায়নি। তবে শুরু থেকে দুর্দান্ত বোলিং করে লঙ্কান ব্যাটসম্যানদের একের পর এক বিপদে ফেললেন মাশরাফি-মুস্তাফিজ-মিরাজ। নিয়মিত উইকেট পড়তে থাকলো শ্রীলঙ্কার। ৬৯ রানে নেই ৭ উইকেট। কতদূর যাবে শ্রীলঙ্কা? বাংলাদেশের বিপক্ষে শ্রীলঙ্কার সর্বনিম্ম স্কোর ১৪৭ রান, মিরপুরে ২০০৯ সালে। আজ তবে কী নতুন রেকর্ড হবে? শেষ পর্যন্ত হলোও তাই। মাত্র ১২৪ রানে গুটিয়ে গেল শ্রীলঙ্কা। বাংলাদেশের বিপক্ষে শ্রীলঙ্কার সর্বনিম্ম স্কোর এখন এটাই। সবাই ভালো বোলিং করলেন। মাশরাফি, মুস্তাফিজ, মিরাজ নেন দুটি করে উইকেট। একটি করে পান সাকিব, মোসাদ্দেক ও রুবেল। সংক্ষিপ্ত স্কোর ফল: ১৩৭ রানে জয়ী বাংলাদেশ। বাংলাদেশ ইনিংস: ২৬১ (৪৯.৩ ওভার) (তামিম ইকবাল ২*, লিটন দাস ০, সাকিব আল হাসান ০, মুশফিকুর রহিম ১৪৪, মোহাম্মদ মিথুন ৬৩, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ ১, মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত ১, মেহেদী হাসান মিরাজ ১৫, মাশরাফি বিন মুর্তজা ১১, রুবেল হোসেন ২, মোস্তাফিজুর রহমান ১০; লাসিথ মালিঙ্গা ৪/২৩, সুরঙ্গা লাকমল ১/৪৬, আমিলা আপোনসো ১/৫৫, থিসারা পেরেরা ১/৫১, দিলরুয়ান পেরেরা ০/২৫, ধনঞ্জয়া ডি সিলভা ২/৩৮, দাসুন শানাকা ০/১৯)। শ্রীলঙ্কা ইনিংস: ১২৪ (৩৫.২ ওভার) (উপুল থারাঙ্গা ২৭, কুসল মেন্ডিস ০, কুসল পেরেরা ১১, ধনঞ্জয়া ডি সিলভা ০, অ্যাঞ্জেলো ম্যাথুজ ১৬, দাসুন শানাকা ৭, থিসারা পেরেরা ৬, দিলরুয়ান পেরেরা ২৯, সুরঙ্গা লাকমল ২০, আমিলা আপোনসো ৪, লাসিথ মালিঙ্গা ৩*; মাশরাফি বিন মুর্তজা ২/২৫, মোস্তাফিজুর রহমান ২/২০, মেহেদী হাসান মিরাজ ২/২১, সাকিব আল হাসান ১/৩১, রুবেল হোসেন ১/১৮, মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত ১/৮)।