প্রকাশ : 2018-11-08

জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরামের আলোচনা সভায় বক্তারা, ৭ নভেম্বর ছিল আধিপত্যবাদ ও প্রভাব বিরোধী সিপা

৭ নভেম্বর ঐতিহাসিক জাতীয় বিপ্লব ও সংহতি দিবস উপলক্ষে অদ্য ৭ নভেম্বর ২০১৮ইং তারিখ বেলা ৩ ঘটিকার সময় জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরাম চট্টগ্রামের উদ্যোগে চট্টগ্রাম জেলা আইনজীবী সমিতির অডিটরিয়ামে এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরাম চট্টগ্রামের সভাপতি এড. মো: দেলোয়ার হোসেন চৌধুরী’র সভাপতিত্বে এবং সাধারণ সম্পাদক এড. মো: জহুরুল আলমের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ বার কাউন্সিলের সাবেক সদস্য ও চট্টগ্রাম জেলা আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি এড. মো: কবির চৌধুরী। প্রধান আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সাবেক সভাপতি অধ্যাপক ড. আবুল কালাম আজাদ। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন চট্টগ্রাম জেলা আইনজীবী সমিতির সাধারণ সম্পাদক এড. নাজিম উদ্দিন চৌধুরী। অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন আইনজীবী ফোরামের সিনিয়র সহ-সভাপতি এড. এস.ইউ. এম নুরুল ইসলাম, সিনিয়র আইনজীবী এড. এ.এস.এম. বদরুল আনোয়ার, মহানগর বিএনপি’র সহ-সভাপতি এড. মফিজুল হক ভূঁইয়া, এড. আবদুস সাত্তার সরওয়ার, এড. রফিক আহমেদ, এড. আজমল হক, এড. হাদী মোহাম্মদ খোরশেদ, এড. সেকান্দর বাদশা, এড. আহমেদুর রহমান খান, এড. হায়দার মো: সোলায়মান, কর আইনজীবী সমিতির সাধারণ সম্পাদক এড. ওমর ফারুক, এড. সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী, এড. শামসুল আলম, এড. আবদুল খালেক শাহজাহান, আইনজীবী ফোরামের সহ-সভাপতি এড. আজিজুল হক চৌধুরী, এড. রওশান আরা বেগম, এড. আকবর আলী, এড. কাজী মো: সিরাজ, এড. সেলিমা খানম, এড. মো: কাশেম চৌধুরী, এড. এইচ.এস. আবুল হাসান, এড. আবুল হাসান শাহাবুদ্দিন, এড. আশফাক আহমেদ, এড. শাহদাত হোসেন, এড. আফাজুর রহমান, এড. আবু তাহের, এড. মাঈনুদ্দিন, এড. নাসিম আক্তার চৌধুরী, এড. মাহফুজুর রহমান মিল্লাত, এড. হাসান মাহমুদ চৌধুরী, এড. আবদুস সবুর, এড. এরশাদুর রহমান রিটু, এড. মুরশিদ আলম, এড. শওকত আউয়াল, এড. তাজুল ইসলাম, এড. শফিউল হক চৌধুরী সেলিম, এড. সেলিম উদ্দিন শাহীন, এড. নেজাম উদ্দিন, এড. নিলুফার ইয়াসমিন লাভলী, এড. হাসনাহেনা, এড. নুরুল করিম এরফান, এড. আবছার উদ্দিন হেলাল, এড. ইসকান্দর সোহেল, এড. আশরাফী বিনতে মোতালেব, এড. মশকুরা বেগম মেরী, এড. মোকাররম হোসেন, এড. সানজিদ আকবর, এড. জেড এম মিনার, এড. দেলোয়ার হোসেন, এড. রেজাউল করিম রনি, এড. অলি আহমদ, এড. নাসির উদ্দিন, এড. হাবিবুল্লাহ রুমী, এড. তৌহিদুল ইসলাম, এড. তৌহিদ হোসাইন সিকদার, এড. রবিউল হোসেন, এড. লোকমান, এড. সোহ্রাওয়ার্দ্দী প্রমুখ আইনজীবী নেতৃবৃন্দ। প্রধান অতিথি এড. কবির চৌধুরী বলেন, ৭ নভেম্বর ছিল সিপাহী জনতার স্বতঃস্ফূর্ত বিপ্লব। জাতীয় চেতনা বোধে উদ্বুদ্ধ হয়ে সেদিন রাজপথে এক হয়েছিল সিপাহী জনতা। রচিত হয়েছিল ঐক্য ও সংহতির অপূর্ব উদাহরণ। প্রধান আলোচক ড. আবুল কালাম আজাদ বলেন, ঐতিহাসিক ৭ নভেম্বর ছিল আধিপত্যবাদ ও প্রভাব বিরোধী গণতন্ত্রপ্রিয় জাতীয়তাবাদে অনুপ্রাণিত সিপাহী জনতার ঐক্যবদ্ধ বিপ্লব। এর মাধ্যমে বাংলাদেশ একনায়কত্ব, নিয়ন্ত্রণবাদী ও কর্তৃত্ববাদী শাসনের বিরুদ্ধে জনগণের শাসনের দ্বার উন্মোচিত হয়েছে। ৩ নভেম্বর সেনাবাহিনীর উপ-প্রধান খালেদ মোশাররফের নেতৃত্বে প্রতিক্রিয়াশীল চক্রের অভূত্থানে তৎকালীন সেনা প্রধান মেজর জেনারেল জিয়াউর রহমানকে বন্দী করা হয়। সেই চক্রের বিরুদ্ধে দেশপ্রেমী সেনা নৌ-বিমান বাহিনীর যওয়ানরা অভূতপূর্ব ঐক্য গঠন করে ষড়যন্ত্রের জাল ছিন্ন করে বন্দীদশা থেকে সেনা প্রধান জেনারেল জিয়াউর রহমানকে মুক্ত করেছিলেন। সাধারণ সৈনিকদের সাথে ঢাকার রাজপথের সর্বস্তরের জনতা ঐক্যবদ্ধ হয়ে নতুন বাংলাদেশের অভ্যূদয় ঘটিয়েছিল। ৭ নভেম্বর সিপাহী জনতার বিপ্লবকে সাম্প্রতিক অতীতে ভিন্ন ব্যাখ্যার মাধ্যমে বিতর্কিত করার চেষ্টা করা হলেও এদেশের গণতন্ত্রপ্রিয় মানুষের কাছে ৭ নভেম্বর সিপাহী জনতার বিপ্লবের দিনটির মর্যাদা ও মহিমা আজও উজ্জ্বল, অম্লান। বক্তারা ৭ নভেম্বরের এই দিনে গণতান্ত্রিক সংগ্রামের আপোষহীন কারাবন্দী দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি দাবী করেন। প্রেস বিজ্ঞপ্তি

সারা দেশ পাতার আরো খবর