প্রকাশ : 2018-11-15

ব্যর্থ মিশন শেষে দেশে ফিরেছে বাংলাদেশ নারী ফুটবল দল

অনলাইন ডেস্ক: ২০২০টোকিও অলিম্পিক বাছাইয়ের ব্যর্থ মিশন শেষে দেশে ফিরেছে বাংলাদেশ নারী ফুটবল দল। বড় হারের জন্য অভিজ্ঞতার অভাবকে দায়ী করছেন দলের কোচ। তবে খেলোয়াড়রা জানালেন, ম্যাচের পরিকল্পনা ঠিকভাবে মাঠে কাজে লাগাতে না পারায়, এই ফলাফল। সঙ্গে এ হারের ভুলগুলো কাজে লাগাতে চান আসন্ন টুর্নামেন্টে। অভিজ্ঞতা অর্জনই ছিলো অলিম্পিক বাছাইয়ে যাওয়া নারী ফুটবল দলের মূল লক্ষ্য। মিয়ানমার যাবার আগে কোচই এমনটা জানিয়েছিলেন। তবে শেখার সঙ্গে ফেরাটা হলো একরাশ হতাশায়। দেশের ফুটবলের কতই না সাফল্য এসেছে সাবিনা-কৃষ্ণাদের হাত ধরে। তবে এবারের ফেরাটা শূন্যহাতে। বয়সভিত্তিক পর্যায়ে অদম্য বাংলাদেশ বরাবরই দম হারায় সিনিয়র পর্যায়ে। শেষ দুই টুর্নামেন্টে নারী দলের ভরাডুবি যার চাক্ষুষ প্রমাণ। কেন এমনটা হলো? কোচের কণ্ঠে সরল স্বীকারোক্তি। গোলাম রব্বানি ছোটন বলেন, এখান থেকে মেয়েরা অনেক অভিজ্ঞতা অর্জন করেছেন। বড় দলের সঙ্গে খেলতে হলে যে আরও বেশি কষ্ট করতে হবে এটা তাদের উপলব্ধি করতে হবে। প্রতিপক্ষ শক্তিশালী মিয়ানমার, ভারত কিংবা নেপাল হলেও ৩ ম্যাচে নিশ্চয় ১৩ গোল হজম করার মতো দল নয় টিম বাংলাদেশ। খেলোয়াড়রা বলছেন এতে দায় আছে তাদেরও। বাংলাদেশ নারী ফুটবল দলের অধিনায়ক সাবিনা খাতুন বলেন, আমাদের ছোট ছোট কিছু ভুল ছিল। এর জন্য সময়ের দরকার। তবে আগামী বছরের শুরুতেই মিয়ানমারে পাওয়া ক্ষতে, প্রলেপ দেয়ার সুযোগ পাচ্ছে ছোটনের দল। ফেব্রুয়ারিতে ইয়াংগুনে বসছে এএফসি অনূর্ধ্ব-১৬ টুর্নামেন্টের দ্বিতীয় বাছাই। স্বাগতিক দল ছাড়াও সেখানে আঁখি-তহুরারা লড়বে চীন ও ফিলিপিন্সের বিপক্ষে। শেষ পর্যন্ত সাফ নারী চ্যাম্পিয়নশিপ মাঠে না গড়ালে, আপাতত সেই টুর্নামেন্টেই শ্যেন দৃষ্টি বাংলার জয়িতাদের।