প্রকাশ : 2018-01-06

ইন্দোনেশিয়া, ভিয়েতনাম ও সুইজারল্যান্ড এই তিন দেশের প্রেসিডেন্ট ঢাকায় আসছেন, চলছে প্রস্তুতি

ইন্দোনেশিয়া, ভিয়েতনাম ও সুইজারল্যান্ডের প্রেসিডেন্ট ঢাকায় আসছেন। এই তিন দেশের প্রেসিডেন্টের সফর নিয়ে এখন প্রস্তুতি চলছে। ইন্দোনেশিয়ার প্রেসিডেন্ট জোকো উইদোদো চলতি মাসের শেষ সপ্তাহে ঢাকায় আসছেন। আর ভিয়েতনামের প্রেসিডেন্ট ত্রং তান সাং ও সুইজারল্যান্ডের প্রেসিডেন্ট এ্যালেন বার্সেট আগামী মাসে আসছেন। তিন দেশের প্রেসিডেন্টের ঢাকা সফরের প্রস্তুতি নিয়ে ব্যস্ত সময় পার করছে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। তবে ইন্দোনেশিয়ার প্রেসিডেন্টের ঢাকা সফর হবে চলতি মাসের শেষ সপ্তাহে। আর আগামী মাসে ভিয়েতনাম ও সুইজারল্যান্ডের প্রেসিডেন্টের সফরটি হতে পারে। শীর্ষ পর্যায়ের এসব সফর নিয়ে সংশ্লিষ্ট দেশগুলোর সঙ্গে আলোচনা চলছে। রোহিঙ্গা পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণে আসছেন ইন্দোনেশিয়ার প্রেসিডেন্ট জোকো উইদোদো। তিনি কক্সবাজারের রোহিঙ্গা অধ্যুষিত এলাকায়ও যেতে পারেন। রোহিঙ্গা ইস্যুতে ইন্দোনেশিয়া বাংলাদেশের পাশে রয়েছে। এর আগে ইন্দোনেশিয়ার প্রেসিডেন্টের দূত হিসেবে গত ৫ সেপ্টেম্বর বাংলাদেশ সফর করেছেন দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রী রেতনো এল মারসুদি। তখন তিনি দ্বিপক্ষীয় বিভিন্ন বিষয় ও রোহিঙ্গা ইস্যুতে পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী ছাড়াও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে বৈঠক করেন। সে সময় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাহমুদ আলীর সঙ্গে বৈঠকের পর ইন্দোনেশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী জানিয়েছিলেন, তার দেশের প্রেসিডেন্ট জোকো উইদোদো তাকে তিনটি বার্তাসহ বাংলাদেশে পাঠিয়েছেন। এর মধ্যে শরণার্থী সমস্যার কারণে বাংলাদেশের ওপর যে বোঝা চেপেছে তার জন্য ইন্দোনেশিয়ার পক্ষে সহমর্মিতা জানানো, বাংলাদেশের জন্য সহায়তা করতে ইন্দোনেশিয়া যে তৈরি আছে সেটা জানানো এবং বাস্তব পরিস্থিতি নিয়ে সরাসরি আলোচনা করা। এর আগে ২০১২ সালের নবেম্বর মাসে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভিয়েতনাম সফর করেন। সে সময় ভিয়েতনামের প্রেসিডেন্ট ত্রং তান সাংয়ের সঙ্গে দ্বিপক্ষীয় বৈঠকে দুই দেশের মধ্যে দ্বিপক্ষীয় সহযোগিতা বাড়ানোর বিষয়ে আলোচনা করেন তারা। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তখন ভিয়েতনামের প্রেসিডেন্টকে ঢাকা সফরের জন্য আমন্ত্রণ জানিয়েছিলেন। সে অনুযায়ী ভিয়েতনামের প্রেসিডেন্ট ঢাকায় আসছেন। এদিকে সুইজারল্যান্ডের সঙ্গে বাংলাদেশের দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ক এখন আগের চেয়ে অনেক জোরদার হয়েছে। ২০১৬ সালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নিউইয়র্কে তৎকালীন সুইজারল্যান্ডের প্রেসিডেন্টের সঙ্গে বৈঠক করেছিলেন। সে সময় তিনি সুইস প্রেসিডেন্টকে ঢাকায় আসার আমন্ত্রণ জানান। তবে নানা কারণে তিনি আসতে পারেননি। এখন চলতি বছর নতুন সুইস প্রেসিডেন্ট হয়েছেন এ্যালেন বার্সেট। তারই সফরের বিষয়ে প্রস্তুতি নিচ্ছে ঢাকা। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা জানান, কূটনৈতিক ক্ষেত্রে চলতি বছরের সম্ভাব্য চ্যালেঞ্জগুলো বাংলাদেশ কিভাবে মোকাবেলা করবে এবং বিশ্ব পরিস্থিতিতে সরকারের অবস্থান কি হবে সেটা নিয়েও ব্যাপক তৎপর রয়েছে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। এ নিয়ে নতুন বছরের শুরুতেই পররাষ্ট্র সচিবের নেতৃত্বে উচ্চ পর্যায়ের একটি বৈঠক হয়েছে। সেখানে মন্ত্রণালয়ের উচ্চ পদমর্যাদার কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। বৈঠকে আন্তর্জাতিক অঙ্গনে প্রভাব বিস্তারে বাংলাদেশের কূটনৈতিক তৎপরতা, ব্যবসা-বাণিজ্যের সম্প্রসারণ, জনশক্তি রফতানির অগ্রগতিসহ সার্বিক ইস্যুতে আলোচনা হয়েছে। রোহিঙ্গা সঙ্কট মোকাবেলায় বাংলাদেশের নেয়া পদক্ষেপগুলো পর্যালোচনা করা হয়েছে। এছাড়া চলতি বছরের ডিসেম্বরে অনুষ্ঠেয় জাতীয় নির্বাচনকে কেন্দ্র করে বিদেশী কূটনীতিকদের চলমান ও সম্ভাব্য তৎপরতার ওপরও আলোকপাত করা হয়েছে। এছাড়া বৈঠকে চলতি বছর বাংলাদেশে এসব শীর্ষ পর্যায়ের সফর নিয়েও আলোচনা হয়।

জাতীয় পাতার আরো খবর