বুধবার, জানুয়ারী ১৭, ২০১৮
প্রকাশ : 2018-01-06

বিএনপির ক্ষমতার উৎস বন্দুকের নল: চট্টগ্রাম সিটি মেয়র

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ব্যারিস্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল বলেছেন, গণতন্ত্র রক্ষায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বকে সুদৃঢ় করতে আমাদের সর্বাত্মক প্রচেষ্টা চালাতে হবে। মনে রাখতে হবে গণতন্ত্র, স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্বের বিরুদ্ধে স্বাধীনতা বিরোধী অপশক্তি এখনো তৎপর। এই অশুভ শক্তির কালো হাত ভেঙে দিতে হবে। আজ বিকেলে কেন্দ্রীয় শহীদ শহীদ মিনার চত্বরে কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের উদ্যোগে অনুষ্ঠিত গণতন্ত্র ও সংবিধান রক্ষা দিবসে আনন্দ সম্মিলনী সমাবেশে প্রধান অতিথির ভাষণে তিনি এ কথা বলেন। তিনি আরো বলেন, কোন ভাবেই প্রতিপক্ষ অপশক্তিকে দুর্বল ভাবা যাবে না। কারণ তাদের পেট্রোডনার আছে। এরা আগুনে সন্ত্রাস চালিয়ে নিরীহ বাঙালিকে হত্যঅ করেছে। তাদের বিরুদ্ধে আমার বাবা দলীয় নেতাকর্মীদের নিয়ে রাজপথে যুদ্ধ ঘোষণা করেছিলেন। এই যুদ্ধ অব্যাহত রাখাতে দলীয় শ্রদ্ধেয় ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক সিটি মেয়রের সাথে নিজেকে নিবেদিত করবো। সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক ও সিটি মেয়র আ.জ.ম নাছির উদ্দিন বলেন, ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি সাধারণ নির্বাচন না হলে গণতন্ত্র ও সংবিধান মুছে যেত। তখন অগণতান্ত্রিক সরকার আসতো এবং জাতিকে অপশক্তি গ্রাস করতো। আমরা সেই বিপদ থেকে রক্ষা পেয়েছি। তিনি আরো বলেন, বিএনপি আজ গণতন্ত্র হত্যা দিবস পালন করছে। জাতি জানে বিএনপি গণতন্ত্রের দুষমন। তারা বন্দুকের নলের মাধ্যমে ক্ষমতা কুক্ষিগত স্বাধীনতা ও মুক্তিযুদ্ধের মূল্যবোধ ছিনতাই করেছিল। এই জাতীয় শত্রুদের বিরুদ্ধে লড়াই-সংগ্রাম অব্যাহত রেখে সামনের জাতীয় নির্বাচনে নৌকার বিজয় নিশ্চিত করতে হবে। সভাপতির ভাষণে সংগঠনের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মাহতাব উদ্দিন চৌধুরী বলেন- কঠিন চ্যালেঞ্জকে মোকাবেলার শক্তি আওয়ামী লীগ রাখে। গণতন্ত্র স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্ব রক্ষায় অতীতের মত রাজপথে থাকবো। তিনি দলীয় পদ-পদবী নিয়ে যারা নিষ্ক্রিয় হয়ে আছেন তাদের সক্রিয়ভাবে সাংগঠনিক দায়িত্ব পালন করার আহ্বান জানান। সংগঠনের সাংগঠনিক সম্পাদক শফিক আদনানের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত সমাবেশে আরো বক্তব্য রাখেন, সহ-সভাপতি আলহাজ্ব নঈম উদ্দিন চৌধুরী, এডভোকেট সুনীল কুমার সরকার, এডভোকেট ইব্রাহিম হোসেন চৌধুরী বাবুল, আলহাজ্ব খোরশেদ আলম সুজন, জহিরুল আলম দোভাষ, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এম.এ. রশীদ, উপদেষ্টা ও কেন্দ্রীয় শ্রমিক লীগ নেতা আলহাজ্ব সফর আলী, তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক চন্দন ধর, নির্বাহী সদস্য এম.এ. জাফর, থানা আওয়ামী লীগের আলহাজ্ব শাহাবুদ্দিন আহমেদ, ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের মোহাম্মদ ইয়াকুব। সমাবেশে মঞ্চে উপস্থিত ছিলেন সহ-সভাপতি আলতাফ হোসেন চৌধুরী বাচ্চু, অর্থ সম্পাদক সিডিএ চেয়ারম্যান আবদুচ ছালাম, উপদেষ্টা শেখ মোহাম্মদ ইসহাক, সম্পাদকমন্ডলীর সদস্য নোমান আল মাহমুদ, চৌধুরী হাসান মাহমুদ হাসনী, আলহাজ্ব শফিকুল ইসলাম ফারুক, সৈয়দ হাসান মাহমুদ শমসের, মোহাম্মদ হোসেন, হাজী জহুর আহমদ, দেবাশীস গুহ বুলবুল, ইঞ্জিনিয়ার মানস রক্ষিত, আবদুল আহাদ, আবু তাহের, হাজী শহিদুল আলম, নির্বাহী সদস্য হাজী মোহাম্মদ ইয়াকুব, আবুল মনসুর, মোহাম্মদ নুরুল আলম, কামরুল হাসান বুলু, গাজী শফিউল আজিম, গৌরাঙ্গ চন্দ্র ঘোষ, ছৈয়দ আমিনুল হক, বখতেয়ার উদ্দিন খান, সাইফুদ্দিন খালেদ বাহার, অমল মিত্র, আবদুল লতিফ টিপু, নেছার উদ্দিন মনজু, গোলাম মোহাম্মদ চৌধুরী, জাফর আলম চৌধুরী, মোহাম্মদ জাবেদ, মোহাম্মদ ইলিয়াস, মোরশেদ আকতার চৌধুরী, হাজী বেলাল আহমেদ, থানা আওয়ামী লীগের ছিদ্দিক আলম, হারুনুর রশীদ, আবু তাহের, আলহাজ্ব ফিরোজ আহমেদ, এম.এ. হালিম, মোমিনুল হক, অধ্যক্ষ আসলাম হোসেন, আনছারুল হক সহ ৪৪টি সাংগঠনিক ওয়ার্ড ও ওয়ার্ড কাউন্সিলর সহ উপস্থিত ছিলেন। সমাবেশ শেষে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার থেকে বাদ্যবাদন সহযোগে একটি আনন্দ র্যাসলী পুরাতন রেল স্টেশন হয়ে দারুল ফজল মার্কেট চত্বরে এসে শেষ হয়।

সারা দেশ পাতার আরো খবর