প্রকাশ : 2019-01-12

সুপার ওভারে খুলনাকে হারালো চিটাগং

ক্রীড়া ডেস্ক: বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগ (বিপিএল) টি-২০ ক্রিকেটের ইতিহাসে প্রথম সুপার ওভার অনুষ্ঠিত হলো চলমান অর্থাৎ ষষ্ঠ আসরে। ষষ্ঠ আসরের একাদশ ম্যাচে আজ শনিবার সুপার ওভারে খুলনা টাইটান্সকে হারালো চিটাগং ভাইকিংস। নির্ধারিত ২০ ওভারে ৬ উইকেটে ১৫১ রান করেছিল খুলনা টাইটান্স। জবাবে ২০ ওভারে ৮ উইকেটে ১৫১ রান করে চিটাগং ভাইকিংস। ফলে ম্যাচটি টাই হয়। পরে সুপার ওভারে বিজয়ী দল নির্ধারণ করা হয়। নিজেদের তৃতীয় ম্যাচে দ্বিতীয় জয়ের স্বাদ নিলো চিটাগং। অন্যদিকে টানা চার ম্যাচে হারের স্বাদ নিলো খুলনা। মিরপুর শেরে বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে টস জিতে প্রথমে ফিল্ডিং বেছে নেয় চিটাগং ভাইকিংস। দলকে ৩১ রানের সূচনা এনে দেন দলের দুই ওপেনার আয়ারল্যান্ডের পল স্টার্লিং ও জুনায়েদ সিদ্দিকী। দু জনের কেউই বড় ইনিংস খেলতে পারেননি। জুনায়েদ ১৫ বলে ২০ ও স্টার্লিং ১০ বলে ১৮ রান করেন। দুই ওপেনারের বিদায়ের পর ৭৭ রানের জুটি গড়েন ইংল্যান্ডের ডেভিড মালান ও অধিনায়ক মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ। বড় ইনিংসের ইঙ্গিত দিয়ে হাফ-সেঞ্চুরির আগে থেমেছেন তারা। মালান ৪৩ বলে ৪৫ রান ও মাহমুদুল্লাহ ৩১ বলে ৩৩ রান করেন। এছাড়া ওয়েস্ট ইন্ডিজের কার্লোস ব্রার্থওয়েট ৫ বলে ১২ রান করেন। ফলে ২০ ওভারে ৬ উইকেটে ১৫১ রান করে খুলনা টাইটান্স। চিটাগং ভাইকিংসের বাঁ-হাতি স্পিনার সানজামুল ইসলাম ২টি উইকেট নেন। জবাবে দলীয় ১২ রানে আফগানিস্তানের ওপেনার মোহাম্মদ শেহজাদকে হারায় চিটাগং ভাইকিংস। তবে দ্বিতীয় উইকেটে ৩৯ রানে জুটি গড়ে চিটাগং-এর রানের চাকা সচল রেখেছিলেন দক্ষিণ আফ্রিকার ক্যামেরন ডেলপোর্ট ও ইয়াসির আলি। ডেলপোর্ট ১৭ রানে থামলেও ৩৪ বলে ৪১ রানের ছোট্ট ও দায়িত্বপূর্ণ ইনিংস খেলেন ইয়াসির। মিডল অর্ডারে জিম্বাবুয়ের সিকান্দার রাজা রানের খাতাই খুলতে পারেননি। ওয়েস্ট ইন্ডিজের ব্রার্থওয়েটের বলে বোল্ড হন তিনি। পরবর্তীতে শেষ ৫ ওভারে ৫২ রান প্রয়োজন পড়ে চিটাগং-এর। তখন উইকেটে ছিলেন অধিনায়ক মুশফিকুর রহিম ও মোসাদ্দেক হোসেন। বেশি দূর একসাথে যেতে পারেননি মুশফিক ও মোসাদ্দেক। ১৭তম ওভারে ১২ বলে ১২ রান করে বিদায় নেন মোসাদ্দেক। পরের ওভারে উইকেট পতনের তালিকায় নাম তুলেন মুশফিকও। ১টি চার ও ২টি ছক্কায় ২৬ বলে ৩৪ রান করেন মুশফিক। এরপর শেষ দিকে এসে, শেষ ওভার ১৯ রান দরকার ছিলো চিটাগং-এর। শেষ ওভারে বল হাতে নেন খুলনার আরিফুল হক। তার দ্বিতীয় ডেলিভারিতে নাইম হাসান এবং চতুর্থ ও পঞ্চম বলে ফ্রাঙ্কলিন ছক্কা মারেন। শেষ বলে ১ রান দরকার ছিলো চিটাগং-এর। শেষ বলে রান আউট হন ফ্রাঙ্কলিন। ফলে ম্যাচটি টাই হয়। ১৩ বলে ২৩ রান করে আউট হন ফ্রাঙ্কলিন। ২টি করে উইকেট নেন ব্রার্থওয়েট ও শরিফুল ইসলাম। টাই হওয়ায় ম্যাচটি সুপার ওভারে গড়ায়। বিপিএলের ইতিহাসে এটিই ছিল প্রথম সুপার ওভার। সেখানে প্রথমে ব্যাট করে চিটাগং ভাইকিংস। ১ ওভারে ১ উইকেটে ১১ রান করে চিটাগং। জবাবে ১ ওভারে ১ উইকেটে ১০ রান করে খুলনা। ফলে ম্যাচটি জিতে নেয় চিটাগং। সংক্ষিপ্ত স্কোর: খুলনা টাইটান্স: ১৫১/৬, ২০ ওভার (মালান ৪৫, মাহমুদুল্লাহ ৩৩, সানজামুল ২/৩৭)। চিটাগং ভাইকিংস: ১৫১/৮, ২০ ওভার (ইয়াসির ৪১, মুশফিক ৩৪, ব্রার্থওয়েট ২/৩০)। ফল: ম্যাচ টাই, সুপার ওভারে জিতলো চিটাগং ভাইকিংস।