প্রকাশ : 2018-01-10

বঙ্গবন্ধু ও মহিউদ্দীন চৌধুরী- একটা ফটোও নাই এখন আমাদের কাছে

চট্টগ্রামে একটি মার্কেটের সামনে থেকে বঙ্গবন্ধু ও সাবেক সিটি মেয়র এবিএম মহিউদ্দিন চৌধুরীর নির্মাণাধীন ভাস্কর্য ভেঙে ফেলার অভিযোগ করেছেন ব্যবসায়ীরা। তবে, সিটি করপোরেশনের দাবি, ড্রেনের ওপর অবৈধ নির্মাণকাজ চলায় উচ্ছেদ করা হয়েছে। দুপুরে নগরীর জহুরা হকার্স মার্কেটের সামনে সিটি করপোরেশনের ড্রেনের ওপর নির্মাণাধীন অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ অভিযান চালান স্পেশাল ম্যাজিস্ট্রেট জাহানারা ফেরদৌসের নেতৃত্বাধীন ভ্রাম্যমাণ আদালত। এ সময় মার্কেটের সামনের একটি একটি দেয়াল এবং জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, সাবেক মেয়র মহিউদ্দিন চৌধুরী ও সাবেক শ্রমমন্ত্রী জহুর আহমেদের নির্মাণাধীন ভাস্কর্য ভেঙ্গে ফেলা হয় বলে অভিযোগ করেন ব্যবসায়ীরা। তবে, ড্রেনের ওপর অবৈধ নির্মাণকাজ চলায় উচ্ছেদ করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন সিটি করপোরেশনের স্পেশাল ম্যাজিস্ট্রেট। প্রত্যক্ষদর্শী এক ব্যবসায়ী বলেন, ২০-২৫ জন পুলিশ আমাদেরকে ঢুকতে দেয়নি। সব ভেঙে ফেলেছে। ওদের যে ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপনের জিনিস ছিলো, সেগুলোও নিয়ে গেছে। জহুর হকার্স মার্কেট ব্যবসায়ী সমিতির সহ-সভাপতি মো. রফিক সওদাগর বলেন, অন্যায্যভাবে সন্ত্রাস চালিয়ে আমাদের দোকানদারদের পিটিয়ে সমস্ত ফটোগুলো নিয়ে গেছে। শেখ মুজিবর রহমান, মহিউদ্দীন চৌধুরী- একটা ফটোও নাই এখন আমাদের কাছে। চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের স্পেশাল ম্যাজিস্ট্রেট জাহানারা ফেরদৌস বলেন, ড্রেন কিন্তু সিটি করপোরেশনের। এটা তো মার্কেটের না। এরমধ্যে উনারা যদি বলেন, উনাদেরকে ড্রেনের উপর এটা করতে দেয়া হোক তাহলে, আপনারা মেয়রের সঙ্গে যোগাযোগ করেন, আমরা ভাঙবো না। এরপর উনারা কিন্তু কেউই যোগাযোগ করেননি, যোগাযোগের চেষ্টাও করেননি। পরে আমরা আমাদের দায়িত্ব পালন করে ওয়ালটা ভেঙে দিয়ে চলে এসেছি। ওখানে কোনো ম্যুরাল ছিলো না। যদি থেকে থাকে তাহলে উনারা ওটা পরে এনে ওখানে বসিয়েছে। এর দায়ভার সিটি করপোরেশন নেবে না।

সারা দেশ পাতার আরো খবর