প্রকাশ : 2019-05-07

চট্টগ্রামে পাসের হার বেড়েছে

৭মে,মঙ্গলবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম: চট্টগ্রাম শিক্ষা বোর্ডে এসএসসি ও সমমান পরীক্ষায় এবারে পাসের হার বাড়লেও কমেছে জিপিএ ৫। এবার গড় পাসের হার ৭৮ দশমিক ১১ শতাংশ।গতবারের তুলনায় এবার পাসের হার ২ দশমিক ৬১ শতাংশ বেড়েছে। এছাড়া জিপিএ-৫ পেয়েছে মোট ৭ হাজার ৩৯৩ জন। গতবারের চেয়ে জিপিএ-৫ পাওয়া শিক্ষার্থীর সংখ্যা ৭১০ জন কমেছে।আজ সোমবার চট্টগ্রাম শিক্ষা বোর্ড মিলনায়তনে এ ফলাফল ঘোষণা করেন পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক মো. মাহবুব হাসান।মাধ্যমিক স্কুল সার্টিফিকেট (এসএসসি) পরীক্ষায় চট্টগ্রাম শিক্ষাবোর্ডে এ বছর পাসের হার গত বছরের চেয়ে ২.৬১ শতাংশ বেড়েছে। তবে শিক্ষাবোর্ডের অধীনে এবার চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, বান্দরবান, রাঙামাটি ও খাগড়াছড়ির ১৯০ কেন্দ্রে ১ লাখ ৪৯ হাজার ৬০৬ জন শিক্ষার্থী অংশ নেয়। এর মধ্যে পাস করেছে ১ লাখ ১৬ হাজার ৮৫১ জন শিক্ষার্থী। সব মিলিয়ে পাসের হার ৭৮.১১ শতাংশ। গত বছর যা ৭৫.৫০ শতাংশ ছিলো।অন্যদিকে গত বছর ৮ হাজার ৯৪ জন শিক্ষার্থী জিপিএ-৫ পেলেও এবার তা কমে ৭ হাজার ৩৯৩ জনে এসে দাঁড়িয়েছে। গত বছরের তুলনায় এবার পরীক্ষার্থীর সংখ্যা প্রায় ১৪ হাজার বাড়লেও জিপিএ-৫ কমেছে ৭০১টি।চট্টগ্রাম শিক্ষা বোর্ডের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক মো. মাহবুব হাসান বলেন, এবার পাসের হার ৭৮.১১ শতাংশ হলেও এর মধ্যে ছাত্র পাসের হার ৭৮.৪৩ এবং ছাত্রী পাসের হার ৭৭.৮৩। ফলে পাসের দিক দিয়ে মেয়েদের তুলনায় ছেলেরা ০.৬০ শতাংশ এগিয়ে আছে।তিনি বলেন, এবারের এসএসসি পরীক্ষার ফলাফলে মানবিক, বিজ্ঞান ও ব্যবসায় শিক্ষা বিভাগে পাসের হার যথাক্রমে ৫.৬৬, ১.৪৬ এবং ১.৯৯ শতাংশ বেড়ে ৬৫.৭৯, ৯১.৪৬ এবং ৮০.৮৫ শতাংশে উন্নীত হয়েছে। গত বছর এ হার ছিলো যথাক্রমে ৯০.০০, ৬০.১৩ এবং ৭৮.৮৬ শতাংশ।বোর্ড সুত্রে জানা গেছে বিগত বছরগুলোতে তিন পার্বত্য জেলায় পাসের হার কম থাকলেও এবার শিক্ষাবোর্ডের বিশেষ নজরদারির কারণে সেখানে পাসের হার বেড়েছে। রাঙামাটি, খাগড়াছড়ি এবং বান্দরবানে গত বছর পাসের হার যথাক্রমে ৬২.৭২, ৫০.৫২ ও ৫৭.৯২ শতাংশ থাকলেও এবার তা বেড়ে ৬৮.৭৫, ৬৫.৪৬ এবং ৬৫.৩৬ শতাংশে উন্নীত হয়েছে। তিন পার্বত্য জেলায় পাসের হার বাড়লেও চট্টগ্রাম নগরে এবার পাসের হার ০.৬১ শতাংশ কমেছে।মো. মাহবুব হাসান বলেন, চট্টগ্রাম শিক্ষাবোর্ডে এবছর পাসের হার শতভাগ এমন স্কুলের সংখ্যা ৩০টি। গত বছর এরকম স্কুলের সংখ্যা ছিলো ২৭টি। তবে পাসের হার শূন্য- এমন কোনো স্কুল এবার নেই।বাসস।

নিউজ চট্টগ্রাম পাতার আরো খবর