প্রকাশ : 2019-08-06

মুক্তির আন্দোলনে আবৃত্তিশিল্পীরাও ঝাঁপিয়ে পড়েছিলেন

০৬আগস্ট,মঙ্গলবার,প্রেস বিজ্ঞপ্তি,নিউজ একাত্তর ডট কম: হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে নিবেদিত দুইদিনব্যাপী মুক্তিযুদ্ধের আবৃত্তি উৎসব গতকাল সোমবার শেষ হলো কবিতা ও সুধীজনের কথায় বঙ্গবন্ধুকে স্মরণের মধ্য দিয়ে। এবারের অনুষ্ঠানের আয়োজক সম্মিলিত আবৃত্তি জোট ও সম্মিলিত আবৃত্তি পরিষদ চট্টগ্রাম। উৎসবের সমাপনী শুরু কথামালা পর্বের মাধ্যমে। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন গবেষক ও ভাষাবিজ্ঞানী ড. মাহবুবুল হক। আমন্ত্রিত অতিথি ছিলেন পেশাজীবী সমন্বয় পরিষদের সভাপতি ডা. এ কিউ এম সিরাজুল ইসলাম, নাট্যজন ও সাংবাদিক প্রদীপ দেওয়ানজী, আবৃত্তি সমন্বয় পরিষদ সভাপতিমন্ডলীর সদস্য (সিলেট অঞ্চল) মোকাদ্দেস বাবুল, নৃত্যশিল্পী সংস্থা, চট্টগ্রামের সভাপতি শারমিন হোসেন, গ্রুপ থিয়েটার ফোরাম সভাপতি খালেদ হেলাল এবং নাট্যজন সুচরিত দাশ খোকন। সভাপতিত্ব করেন সম্মিলিত আবৃত্তি জোটের সভাপতি আবৃত্তিশিল্পী হাসান জাহাঙ্গীর। স্বাগত বক্তব্য দেন, সম্মিলিত আবৃত্তি পরিষদের সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুর রহমান মাহফুজ, জোটের যুগ্ম সম্পাদক দেবাশীষ রুদ্র। এ পর্বের সঞ্চালনায় ছিলেন সেলিম রেজা সাগর ও মেজবাহ চৌধুরী। প্রধান অতিথি ড. মাহবুবুল হক বলেন, বঙ্গবন্ধুর ডাকে উদ্বুদ্ধ হয়ে ১৯৭১ এ সবাই মুক্তিযুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়েছিল। আমরা তখন রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক সংগ্রামে ঝাঁপিয়ে পড়েছিলাম। সেই সময় আবৃত্তিশিল্পীরা এই সাংস্কৃতিক সংগ্রামের মাধ্যমে মুক্তির আন্দোলনে ঝাঁপিয়ে পড়েছিল। কথামালার পর আমন্ত্রিত আবৃত্তিশিল্পীদের পরিবেশনায় ছিলেন নাট্যজন সনজীব বড়ুয়া, আবৃত্তি সমন্বয় পরিষদের সাংগঠনিক সম্পাদক আহসান উল্লাহ তমাল, সিলেট অঞ্চলের সাংগঠনিক সম্পাদক মনির হোসেন, কুমিল্লা অঞ্চলের সাংগঠনিক সম্পাদক এমদাদ হোসেন কৈশোর, রাজশাহী অঞ্চলের সাংগঠনিক সম্পাদক শরীফ বিল্টু, এবং উঠোন সাংস্কৃতিক চর্চা কেন্দ্রের সভাপতি আয়েশা হক শিমু। এছাড়াও কবির কণ্ঠে কবিতা পাঠ করেন খালিদ আহসান, অভিক ওসমান, আশীষ সেন, ইউসুফ মুহম্মদ, উৎপল কান্তি বড়ুয়া, অরুণ শীল ও মনিরুল মনির। এ পর্বের সঞ্চালনায় ছিলেন জোটের প্রশিক্ষণ সম্পাদক গৌতম চৌধুরী, মুহাম্মদ সাজ্জাদ হোসেন ও মোহাম্মদ সেলিম ভূঁইয়া। প্রেস বিজ্ঞপ্তি।

নিউজ চট্টগ্রাম পাতার আরো খবর