প্রকাশ : 2018-02-07

বইমেলায় দর্শনার্থীর মিলন ঘটছে

শুরুর দিকে বই মেলার যে রূপ, এবারও তার ব্যত্যয় ঘটেনি। মেলা শুরুর সপ্তাহ গড়ালেও বিকিকিনি ঠিক জমে ওঠেনি বইমেলায়। বইমেলায় হাজারো দর্শনার্থীর মিলন ঘটছে শুরুর দিন থেকেই। তবে ঢিমেতালে চলছে বেচাকেনা। অমর একুশের গ্রন্থমেলায় ছয়দিনে পাঁচ শতাধিক নতুন গ্রন্থ প্রকাশ পেয়েছে। প্রকাশিত বইয়ের মধ্যে কবিতা শীর্ষ অবস্থানে রয়েছে। তারপরই রয়েছে শিশুতোষ গ্রন্থ। এর পরের অবস্থানে রয়েছে উপন্যাস এবং ছোট গল্প। মেলায় মঙ্গলবার বাংলা একাডেমির তথ্য কেন্দ্র থেকে এ তথ্য জানানো হয়। এখন পর্যন্ত প্রকাশ পেয়েছে মাত্র ১৩৮টি নতুন বই। এর মধ্যে রয়েছে গল্প ২০, উপন্যাস ২৯, প্রবন্ধ ৬, কবিতা ৪৩, ছড়া ১, শিশুসাহিত্য ৫, জীবনী ৪, মুক্তিযুদ্ধ ৩, নাটক ১, বিজ্ঞান ২, ভ্রমণ ২, ইতিহাস ৫, চিকিৎসা/স্বাস্থ্য ১, অভিধান ১, বৈজ্ঞানিক কল্পকাহিনী ৩ এবং অন্যান্য বিষয়ের নতুন ১২টি বই। বইগুলোর মধ্যে রয়েছে রাবেয়া খাতুনের রূপালি পর্দায় সোনালি লেখা (অনন্যা), মাহবুবুর রহমানের নীল পাড়ের শাড়ি (দাঁড়কাক), ইজাজ আহ্মেদ মিলনের বেদনা আমার জন্ম সহোদর(প্রিয়মুখ), মোকারম হোসেনের নিসর্গ কথা (কথাপ্রকাশ), গোলাম মাওলা রনির ইতিহাসের নির্মম প্রতিশোধ (অনন্যা), আনিসুল হকের ছোট ছোট কিশোর গল্প (অনন্যা), ইমদাদুল হক মিলনের বুমার বাড়িতে ভূতের উপদ্রব(পাঞ্জেরী পাবলিকেশন্স), স্বকৃত নোমানের ইবিকাসের বংশধর (পাঞ্জেরী পাবলিকেশন্স), খালেক বিন জয়েনউদ্দিনের বাঙালির শ্রেষ্ঠ সন্তান বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব ও একাত্তর পঁচাত্তর এবং বাংলাদেশ (বর্ণায়ন), জিমি হাইসানের এ ফায়ার অব ফোর্থ সেঞ্চুরি (ঐতিহ্য)। এ নিয়ে মেলায় গত ছয়দিনে ৫৩৬টি নতুন বই প্রকাশ পেল। মেলায় দুই ফেব্রয়ারি ৫৫টি, তিন ফেব্রয়ারি ১২০, ৪ ফেব্রয়ারি ১১১ ও ৫ ফেব্রয়ারি ১১৬টি নতুন বই প্রকাশ পেয়েছে। বই প্রকাশের ব্যাপারে প্রকাশকরা জানান, মেলায় সবসময়ই প্রথম সপ্তাহেই চার ভাগের এক ভাগ বই আসে। এবার ছয়দিনের মাথায় পাঁচ শতাধিক এসেছে। প্রকাশনার এই গতি সন্তোষজনক। বাংলা একাডেমির স্টল থেকে জানানো হয়, এ পর্যন্ত বাংলা একাডেমির স্টলে সর্বাধিক ৭৬টি নতুন বই এসেছে। সোহরাওয়ার্দী উদ্যোনে সৃষ্টিশীল প্রকাশনা সংস্থার স্টলগুলোতেই বেশি নতুন বই বেশি এসেছে। অন্য প্রকাশের স্বত্ত্বাধিকারী মাজহারুল ইসলাম বলেন, ছয়দিনে পাঁচ শতাধিক বই খুবই উল্লেখযোগ্য ব্যাপার। গতবারও পাঁচদিনে এতো বই মেলায় আসেনি। তিনি বলেন, বই আসছে প্রতিদিন। হয়তো অনেক বই তালিকায় আসছে না। আমার মনে হয় নতুন বই ৭০০ ছাড়িয়ে গেছে। অন্বেষা প্রকাশনের স্বত্ত্বাধিকারী শাহাদাত হোসেন জানান, তারা ১৮টি নতুন বই এনেছেন। হুমায়ুন আহমেদের পুরনো বইগুলো সবচেয়ে বেশি বিক্রি হচ্ছে বলে তিনি জানান। তিনি মেলার ধূলা নিয়ে বিরক্ত প্রকাশ করেন। বলেন, সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে নির্মিত রাস্তাগুলোতে বালি উড়ছে সারাক্ষণ। তাদের স্টলের বইগুলোতে প্রতিদিন ধূলা এসে জমা হয়।