মঙ্গলবার, আগস্ট ২১, ২০১৮
প্রকাশ : 2018-02-11

ইটালির পথে প্রধানমন্ত্রী

ইন্টারন্যাশনাল ফান্ড ফর এগ্রিকালচারাল ডেভেলপমেন্টের (ইফাদ) পরিচালনা পর্ষদের বার্ষিক অধিবেশনে যোগ দিতে ইতালির পথে রওনা হয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। রোববার সকাল ১০টা ৫ মিনিটে প্রধানমন্ত্রী এমিরেটস এয়ারলাইন্সের একটি ফ্লাইটে ঢাকা থেকে রোমের উদ্দেশ্যে রওনা হন প্রধানমন্ত্রী। তার প্রেস সচিব ইহসানুল করিম এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, স্থানীয় সময় আজ সন্ধ্যা পৌনে ৭টায় রোমের ফিউমিসিনো বিমানবন্দরে পৌঁছানোর কথা রয়েছে ফ্লাইটটির। ইতালিতে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত আবদুস সোবহান সিকদার বিমানবন্দরে প্রধানমন্ত্রীকে অভ্যর্থনা জানাবেন। পথে প্রধানমন্ত্রী দুঘণ্টার জন্য দুবাইয়ে যাত্রাবিরতি করবেন। ইফাদ প্রেসিডেন্ট গিলবার্ট এফ হুনগবোর আমন্ত্রণে প্রধানমন্ত্রী চার দিনের এ সফরে যাচ্ছেন। ১৩ ফেব্রুয়ারি সকালে রোমে ইফাদ সদর দফতরে পরিচালনা পর্ষদের ৪১তম বৈঠকের উদ্বোধনী অধিবেশনে প্রধানমন্ত্রী মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করবেন। এতে প্রধানমন্ত্রী যুব উন্নয়ন, দরিদ্র ও প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর জীবনমানের উন্নয়নে তার সরকারের নেয়া বিভিন্ন পদক্ষেপ তুলে ধরবেন। এবারের সম্মেলনের প্রতিপাদ্য ফ্রম ফ্রাজিলিটি টু লং টার্ম রেজিলেন্স : ইনভেস্টিং ইন সাসটেইনেবল রুরাল ইকোনমিকস। এর আগে কাল শেখ হাসিনা হলি সি ( ভেটিক্যান সিটি) সফর করবেন। সেখানে সেক্রেটারি স্টেট অব কার্ডিনাল পেইটরো পারোলাইনের সঙ্গে বৈঠক করবেন। পোপ ফ্রান্সিসের আমন্ত্রণে সেখানে যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী। আগে পোপ ফ্রান্সিস শেখ হাসিনার আমন্ত্রণে গত বছর বাংলাদেশ সফর করেছেন। বৃহস্পতিবার এক প্রেস ব্রিফিংয়ে পররাষ্ট্রমন্ত্রী এএইচ মাহমুদ আলী এসব তথ্য জানিয়েছিলেন। তিনি আরও জানান, প্রধানমন্ত্রী সম্মেলনের কী-নোট স্পিকারদের সম্মানে ইফাদ প্রেসিডেন্টের দেয়া মধ্যাহ্নভোজে যোগ দেবেন। ওইদিন (১৩ ফেব্রুয়ারি) সন্ধ্যায় শেখ হাসিনা রোমের পারকো দেই প্রিনসিপি গ্র্যান্ড হোটেল অ্যান্ড এসপিএ প্রবাসী বাংলাদেশিদের এক সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে যোগ দেবেন। অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত, কৃষিমন্ত্রী মতিয়া চৌধুরী এবং পররাষ্ট্রমন্ত্রী এএইচ মাহমুদ আলী প্রধানমন্ত্রীর সফরসঙ্গী হিসেবে থাকবেন। প্রধানমন্ত্রী আবুধাবি হয়ে ১৫ ফেব্রুয়ারি দেশে ফিরবেন। উন্নয়নশীল দেশগুলোর গ্রামীণ এলাকার দারিদ্র্য ও ক্ষুধা দূরীকরণে ইফাদ একটি আন্তর্জাতিক আর্থিক প্রতিষ্ঠান এবং জাতিসংঘের একটি বিশেষায়িত সংস্থা। ১৯৭৪ সালে বিশ্ব খাদ্য সম্মেলনের সিদ্ধান্তে ১৯৭৭ সালে আন্তর্জাতিক আর্থিক প্রতিষ্ঠান হিসেবে ইফাদ প্রতিষ্ঠিত হয়। দারিদ্র্য দূরীকরণ এবং খাদ্য ও পুষ্টির মানোন্নয়নে ৩০ বছর ধরে রোমভিত্তিক এই সংস্থা বাংলাদেশে বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্প বাস্তবায়ন করে আসছে। ইফাদ মঞ্জুরি ও সহজ ঋণ হিসেবে এ পর্যন্ত বাংলাদেশের বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্পে ৭৮২ মিলিয়ন ডলার সহায়তা দিয়েছে।

জাতীয় পাতার আরো খবর