মঙ্গলবার, আগস্ট ২১, ২০১৮
প্রকাশ : 2018-02-12

ইফতেখার সাইমুল সভাপতি এবং নাজিম উদ্দিন চৌধুরী সম্পাদক

চট্টগ্রাম জেলা আইনজীবী সমিতির নির্বাচনে আওয়ামীপন্থী সম্মিলিত আইনজীবী সমন্বয় পরিষদ সভাপতি পদে ও বিএনপিজামায়াতপন্থী জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ঐক্য পরিষদ সাধারণ সম্পাদক পদে বিজয়ী হয়েছে। তবে মোট ১৯টি পদের মধ্যে বিএনপিজামায়াতপন্থী ঐক্য পরিষদ ১২টি পদে জয়লাভ করেছে। আর আওয়ামীপন্থী সমন্বয় পরিষদ বাকী ৭টি পদে জয়ী হয়েছে। অন্য দুই প্যানেল থেকে কেউ জয়ী হতে পারেনি। গতকাল রাত সাড়ে ১২টায় নির্বাচন কমিশন ভোটের ফলাফল ঘোষণা করে। গতকাল রোববার সকাল ৯টার থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত একটানা ভোটগ্রহণ সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন হয়। মোট ভোট পড়ে ৩ হাজার ৮৫টি। এ নির্বাচনে এবারই প্রথম চারটি প্যানেল প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে। এগুলো হচ্ছে, আওয়ামীলীগ সমর্থিত সম্মিলিত আইনজীবী সমন্বয় পরিষদ, বিএনপি জামায়াত জোট সমর্থিত আইনজীবী ঐক্য পরিষদ এবং দলনিরপেক্ষ আইনজীবীদের সংগঠন সমমনা আইনজীবী সংসদ। এর বাইরে এবার মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও প্রগতিশীল ভাবধারায় বিশ্বাসী আইনজীবীদের সংগঠন গণতান্ত্রিক আইনজীবী সমিতি নামে আলাদা একটি প্যানেলও নির্বাচনে অংশ নেয়। সভাপতি পদে নিবাচিত হয়েছেন শেখ ইফতেখার সাইমুল চৌধুরী ১৩৩৬ ভোট পেয়ে জয়ী হয়েছেন। এ পদে ঐক্য পরিষদের এএসএম বদরুল আনোয়ার পেয়েছেন ১০৭৪ ভোট ও সমমনার চন্দন দাশ পেয়েছেন ৬০৭ ভোট। এ পদে গণতান্ত্রিক আইনজীবী সমিতির প্রার্থী কামাল সাত্তার চৌধুরী পেয়েছেন ৩৫ ভোট। সাধারণ সম্পাদক পদে বড় ব্যবধানে জিতেছেন ঐক্য পরিষদের মোহাম্মদ নাজিম উদ্দিন চৌধুরী। তিনি পেয়েছেন ১৪৭৫ ভোট। সমন্বয়ের উত্তম কুমার দত্ত ৪৯৪ ভোট। সমমনার নুরুল ইসলাম ৩৩৯ ভোট। গণতান্ত্রিকের জহীর উদ্দীন মাহমুদ ৭৭ ভোট। স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে বর্তমান সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ আবু হানিফ ৬৪৪ এবং জামায়াত বিএনপিপন্থী আবদুল মুকিম পেয়েছেন ৩১ ভোট। সিনিয়র সহুসভাপতি পদে সমন্বয়ের মোহাম্মদ ছুরত জামাল পেয়েছেন ১৩৪৫ ভোট, ঐক্যের মো. ইছহাক ১৩২৫, সমমনার মো. মাফুজুর রহমান চৌধুরী পান ৩৪৮ ভোট। সহসভাপতি পদে সমন্বয়ের মোহাম্মদ রফিকুল আলম ১১৩৩, ঐক্যের মো. নুরুদ্দিন আরিফ চৌধুরী ১২১৭, সমমনার একেএম রুহুল আমিন পেয়েছেন ৬৭২ ভোট। সহসাধারণ সম্পাদক পদে সমন্বয়ের মোহাম্মদ ইয়াছিন খোকন ১৭৫৪ ভোট পেয়েছেন। ঐক্যের মুহাম্মদ কবির হোসাইন ৯৩৯, সমমনার সৈয়দ নজরুল ইসলাম ১৯৪ এবং গণতান্ত্রিকের নারায়ন প্রসাদ বিশ্বাস পান ১৭৮ ভোট। অর্থ সম্পাদক পদে সমন্বয়ের মঈনুল আলম চৌধুরী টিপু ৯৮৪, ঐক্যের মোহাম্মদ শফিউল হক চৌধুরী সেলিম ১১৪০, সমমনার হামিদ আলী চৌধুরী ৮১১, গণতান্ত্রিকের মো. মোশারেফ হোসেন পান ১০৪ ভোট। পাঠাগার সম্পাদক পদে সমন্বয়ের জিকো বড়ুয়া ৯৮৮, ঐক্যের মো. নুরুল করিম এরফান ১১৫৩ ও সমমনার ভাস্কর রায় চৌধুরী পান ৮৮১ ভোট। সাংস্কৃতিক ও ক্রীড়া সম্পাদক পদে সমন্বয়ের রুবেল পাল ১১০৮, ঐক্যের হাসনা হেনা ১২৪৬, সমমনার আক্তার বেগম ৫১১, গণতান্ত্রিকের মোহাম্মদ মনির হোসেন পেয়েছেন ১৫৭ ভোট। তথ্যপ্রযুক্তি সম্পাদক পদে সমন্বয়ের মো. রাশেদুল আজম রাশেদ ১৭৫০, ঐক্যের মো. হেলাল উদ্দিন আবু ১০৫০ এবং সমমনার মোহাম্মদ ফারুক মাহমুদ পান ২৩০ ভোট। নির্বাহী সদস্য পদে সমন্বয় পরিষদের ফারহানা রবিউল লিজা ১৪৭৩, সেলিনা আক্তার ১৬৪৯ ও ইয়াসিন মাহমুদ তানজিল পেয়েছেন ১৫২৯ ভোট পেয়ে বিজয়ী হন। ঐক্য পরিষদের এইচএস সোহরাওয়ার্দী ১৬০৮, মো. এনামুল হক ১৫৫৩, মো. হাসান কায়েস ১৩৯২ মো. লোকমান ১৬৭১, মোহাম্মদ এহছানুল হক ১৫৭৩, মোহাম্মদ ইয়াছিন ১৬২৬ এবং মুহাম্মদ আকিব চৌধুরী ১৬২৩ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। নির্বাচনের বিষয়ে কমিশনার আখতার কবির চৌধুরী বলেন, প্রতিবারের মতো এবারও শান্তিপূর্ণভাবে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। ভোটারদের দায়িত্বশীল ভুমিকার কারণে এটা সম্ভব হয়েছে বলে জানালেন এক সময়ের এ আইনজীবী নেতা। নির্বাচন কমিশনার আখতার কবির চৌধুরী জানান, এবার নির্বাচনে ৩ হাজার ৭১৫ জন ভোটার তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করার কথা থাকলেও ভোট পড়েছে ৩ হাজার ৮৫টি। মোট ১৯টি পদে ভোটগ্রহণ হয়েছে। এতে প্রতিদ্বন্দ্বিতায় ছিলেন ৫৬ জন। অত্যন্ত সুন্দর ও উৎসবমুখর পরিবেশে এ ভোট অনুষ্ঠিত হয়েছে। যার যার প্যানেলের পক্ষে মিছিল শেহ্মাগান হয়েছে ঠিকই, কিন্তু সকলের মাঝে সহনীয় ও সৌহার্দ্যপূর্ণ পরিবেশ বজায় ছিল। যা অন্য যেকোন পেশাজীবী সংগঠনের জন্য দৃষ্টান্ত হয়ে থাকার মতো। এ নির্বাচনে সমন্বয় পরিষদ ও ঐক্য পরিষদ ১৯টি পদের সবকটিতে প্রার্থী দিয়েছিল। মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও পরিবর্তনের অঙ্গীকার নিয়ে বাংলাদেশ গণতান্ত্রিক আইনজীবী সমিতি প্রথমবার প্যানেল ঘোষণা করে সভাপতিু ও সাধারণ সম্পাদকসহ ৬টি পদে প্রার্থী দেয়। সমমনা আইনজীবী সংসদ সম্পাদকীয় পদের সবকটিসহ একটি নির্বাহী সদস্য পদে প্রার্থী দেয়। প্রতিদ্বন্দ্বী ৫৬ প্রার্থীর মধ্যে সভাপতি পদে ৪ জন, সাধারণ সম্পাদক পদে ৬ জন, সিনিয়র সহ সভাপতি ও সহুসভাপতি পদে ৩ জন করে, সহ সাধারণ সম্পাদক. ক্রীড়া সাংস্কৃতিক ও অর্থ সম্পাদক পদে ৪ জন করে, পাঠাগার সম্পাদক ও তথ্যপ্রযুক্তি সম্পাদক পদে ৩ জন করে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন। নির্বাহী সদস্য পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন ২২ জন। চট্টগ্রাম জেলা আইনজীবি সমিতির নির্বাচনে নির্বাচিত সকল বিজ্ঞ আইনজীবিবৃন্দকে নিউজ একাত্তর ডটকম ও সপ্তাহিক সংবাদের কাগজ পত্রিকার পক্ষ থেকে শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন।

সারা দেশ পাতার আরো খবর