প্রকাশ : 2020-01-12

আমার চাওয়া পাওয়ার কিছু নাই,জনগনের সেবাই আমার একমাত্র লক্ষ্যঃ কাউন্সিলর হাজী নুরুল হক

১২জানুয়ারী,রবিবার,কমল চক্রবর্তী,চট্টগ্রাম,নিউজ একাত্তর ডট কম: চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের ৩৫ নং বক্সির হাট ওয়ার্ডের বর্তমান কাউন্সিলর হাজী নুরুল হক এলাকার উন্নয়ন ও আগামী নির্বাচন নিয়ে তার পরিকল্পনার কথা তুলে ধরেন। রবিবার ১২ই ডিসেম্বর সকালে তার নিজ কার্যালয়ে নিউজ একাত্তরকে দেয়া একান্ত সাক্ষাৎকারে তিনি তার নানা কর্মকাণ্ড ,এলাকার উন্নয়ন চিত্র তথা আগামী নির্বাচনে বিজয়ী হলে তিনি এলাকার উন্নয়নে কি কি কাজ করবেন তা তুলে ধরেন। তিনি জানান, তিনি ১৯৯৪-২০০৫ইং মেয়াদে দুই বার ও ২০১০-২০২০ইং মেয়াদে দুই বার মোট ৪ বার নির্বাচিত হয়েছেন।বিগত ৫ বছরের মেয়াদে তিনি এলাকার অনেক উন্নয়ন করেছেন, জনগন এর সুফল ভোগ করছে। কাউন্সিলর হাজী নুরুল হক জানিয়েছেন, তিনি আগামী নির্বাচনে আবারও নির্বাচন করবেন এবং তিনি আশাবাদী তার সময়ে এলাকায় যে উন্নয়ন হয়েছে তাতে এলাকার জনগন তাকে পুনরায় আবার নির্বাচিত করবে। সেইসাথে তিনি জনগনের সেবা করে যাবেন। আমার চাওয়া পাওয়ার কিছু নাই ।জনগনের সেবাই আমার একমাত্র লক্ষ্য। ব্যক্তিগত কোন সুবিধার জন্য কাউন্সিলর পদটিকে ব্যবহার করেন না। এমনকি পরিবারের কেউ না। তিনি আরো জানান, তার এলাকায় উল্লেখ যোগ্য বেশ কিছু উন্নয়ন তিনি করেছেন। তার মধ্যে এলাকার রাস্তা ঘাটের মেরামত, রাস্তার উপর এলইডি লাইট স্থাপন, নালা নর্দমা গুলো পরিচ্ছন্ন করা। জলাবদ্ধতা নিরসনে ড্রেনের পরিসর বাড়ানো হয়েছে। এর মধ্যে বেশ কিছু ড্রেনের কাজ চলমান আছে যা আমি নিজে দাঁড়িয়ে থেকে কাজ করাচ্ছি। ময়লা আবর্জনা অপসারনের ডাস্টবিন বসানো হয়েছে । সেইসাথে ডোর টু ডোর ময়লা অপসারনের ব্যবস্থা করা হয়েছে। জলাবদ্ধতা নিরসন কল্পে চাক্তাই খাল পরিস্কারের ব্যবস্থা করা হয়েছে। ইতিমধ্যে বাংলাদেশ সেনাবাহিনী একটি প্রকল্প হাতে হিয়েছে। আমার এলাকার আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতি মোটামোটি ভালো। তিনি জানান, তার এলাকায় কোন সন্ত্রাস ও চাঁদাবাজি নেই এটা বলা যাবে না। চাঁদাবাজি আছে, সরকারি দলীয় নামধারীরা চাঁদাবাজি করে। তাই চাঁদাবাজি বন্ধ করতে অনেকটা বেগ পেতে হচ্ছে। মাদকের সমস্যা কিছুটা আছে, তবে নির্মূলে তিনি বদ্ধ পরিকর। আগামী নির্বাচনে বিজয়ী হলে তিনি পুরোপুরি মাদক নির্মূলে কাজ করে যাবেন। সেইসাথে জলাবদ্ধতা নিরসন কল্পে নানা প্রয়োজনীয় উদ্দেগ নিবেন। প্রতিবেদকের সাথে কথা হয় ৩৫ নং বক্সির হাট ওয়ার্ডের কয়েকজন এলাকাবাসীর সাথে এখানে তাদের মতামত তুলে ধরা হলঃ ৩৫ নং বক্সির হাট ওয়ার্ডের বাজার এলাকার স্থানীয় এক বাসিন্দা মোঃ আবুল কালাম(৩৫) জানান, বর্তমান কাউন্সিলর এলাকায় অনেক উন্নয়ন করেছেন। রাস্তা ঘাটেরও বেশ উন্নয়ন করেছেন। তবে জলাবদ্ধতার সমস্যা থেকে আমরা মুক্তি পাই নাই। বেশির ভাগ সময় জোয়ারের পানিতে একাকার হয়ে যায়। এটাই আমাদের বড় সমস্যা। ব্যক্তি হিসাবে ওনি ভালো লোক। তাই আগামী নির্বাচনে আবার বিজয়ী হবেন এতে সন্দেহ নেই। ৩৫ নং বক্সির হাট ওয়ার্ডের বক্সির হাট মোড়ের ব্যবসায়ী কাঞ্চন দাশ জানান (৪৭) জানান, বর্তমান কাউন্সিলর মোটামুটি এলাকায় কাজ করেছেন। তিনি একাধারে দুই মেয়াদে কাউন্সিলর নির্বাচিত হয়েছেন। আগামী নির্বাচনেও তিনি আবার নির্বাচিত হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। ব্যক্তি হিসাবে ওনার ভালো গ্রহন যোগ্যতা আছে। আমাদের এলাকার মাদকের ব্যপারে বলতে পারবনা তবে ও চাঁদাবাজি হয়। সেইসাথে জলাবদ্ধতার সমস্যা তো আছেই। যানজট ও একটা বড় সমস্যা।

নিউজ চট্টগ্রাম পাতার আরো খবর