রবিবার, ফেব্রুয়ারী ১৬, ২০২০
প্রকাশ : 2020-02-10

চট্টগ্রামের অলংকার সাম্পান মাঝিদের বিতাড়ির করার চক্রান্ত প্রতিহত করা হবে

১০ফেব্রুয়ারী,সোমবার,প্রেস বিজ্ঞপ্তি,নিউজ একাত্তর ডট কম:বৈঠা যার ঘাট তার সরকার প্রবর্তিত আইন এই আইন অমান্য করে কর্ণফুলী নদীর তিন হাজার সাম্পান মাঝিকে কর্মহীন করার প্রতিবাদে মানব বন্ধন বৈঠা বর্জন করেছে ১০টি সাম্পান মাঝি কল্যান সতিতির সদস্যরা। সোমবার সকাল ১১টা দুই ঘন্টা কর্ণফুলীর অভয়মিত্র ঘাট থেকে ১৫ নম্বর পর্যন্ত সকল ঘাটে যাত্রী পারাপার বন্ধ করে মাঝিরা বৈঠা বর্জন ও মানববন্ধন কর্মসূচী পালন করে। নগরীর সদরঘাটে আয়োজিত সমাবেশে বক্তব্যে চট্টগ্রামের প্রেস ক্লাবের সাধারন সম্পাদক চৌধুরী ফরিদ বলেন,মাঝিদের ঘাট বংশানুক্রমে ইজারা দেয়ার বিষয়ে সরকারের সুনির্দিষ্ট নীতিমালা থাকা সত্ত্বেও সরকার বিরোধি চক্র কর্ণফুলী থেকে সাম্পান মাঝিদের বিতাড়ির করার চেষ্টা করছে। মেয়র সাহেব অনুমতি দেয়ার পরও চসিক প্রধান রাজস্ব কর্মকর্তা ঘাট ইজারা দেয়ার বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে কিভাবে। আসন্ন চসিক নির্বাচনে মেয়রের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন করতে সুনির্দিষ্ট চক্রান্ত যে কোন মূল্যে প্রতিরোধ করতে হবে। মাঝিদের ঘাট তাদের ইজারা না দিলে আরো বড় কর্মসূচী ঘোষণা করা হবে। চট্টগ্রাম নদী ও খাল রক্ষা আন্দোলনের সাধারণ সম্পাদক আলীউর রহমান বলেন, ২০০৩ সালের হস্তান্তরি ফেরিঘাট ইজারা ও ব্যবস্থাপনা এবং উদ্ভূদ আয় বন্টন সম্পর্কে নীতিমালায় স্পষ্ট করে বলা হয়েছে বংশ পরম্পরায় একজন ঘাট মাঝি জীবিত থাকলেও তার অনুকূলে ঘাট ইজারা দিতে হবে। সিটি কর্পোরেশন এই আদেশ অমান্য করে ঘাট ইজারা দেয়ায় এডভোকেট মনজিল মোর্শেদ হাইকোর্টে রিট পিটিশন (৩৪৬৫/২০১৫) সালে দায়ের করেন। হাইকোর্টের বিচারক ওবায়দুল হাসান ও বিচারক কৃষ্ন দেবনাথ প্রদত্ত আদেশে বলা হয়েছে পূর্ববর্তী বছরের চেয়ে দশ শতাংশ বৃদ্ধি করে পাটনীজীবী সাম্পান মাঝিদের ঘাট ইজারা দিতে হবে। চসিক প্রধান রাজস্ব কর্মকর্তা এই আদেশ অমান্য করে সর্বসাধারনের জন্য ঘাট ইজারা দেয়ার টেন্ডার বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে কোন সাহসে। কর্ণফুলী গবেষক অধ্যাপক ড. ইদ্রিচ আলী বলেন, কর্ণফুলীর পরিবেশ প্রতিবেশ রক্ষা করেই হাজার বছর ধরে সাম্পান মাঝিরা কর্ণফুলীর অলংকার হিসাবে জীবনযাপন করে আসছে। তাদের বিতাড়ন করার এই চক্রান্ত চট্টগ্রামের ইতিহাস ঐতিহ্যে আঘাত করা। যা প্রতিরোধ করতে হবে। চরপাথরঘাটা আওয়ামী লীগের সভাপতি ছৈয়দ আহমদ বলেন, চসিক রাজস্ব কর্মকর্তা পুরো টেন্ডার বিজ্ঞাপনে কোথাও সাম্পান বা নৌকা শব্দ উচ্চারন করেননি। তিনি সাম্পানের পরিবর্তে লাইফবোট দিয়ে যাত্রী পারাপারের জন্য টেন্ডার আহবান করেছেন। সরকারের ভাবমূর্তি চট্টগ্রামের জনগনের কাছে ক্ষুন্ন করার জন্য তিনি সুনির্দিষ্ট পরিকল্পনা নিয়ে এই কাজ করেছেন। যা কিছুতেই মেনে নেয়া হবেনা। কর্ণফুলী নদী সাম্পান মাঝি কল্যান সমিতি ফেডারেশন সভাপতি এস এম পেয়ার আলীর সভাপতিত্বে অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, আওয়ামী লীগ নেতা আমির আহমদ আমু, চরপাথরঘাটা ব্রীজঘাট সাম্পান মাঝি সমিতির সভাপতি জাফর আহমদ, সব সভাপতি জিন্নাত আলী, ইছানগর বাংলাবাজার সাম্পান চালক সমিতির সভাপতি মো: লোকমান দয়াল, সাধারণ সম্পাদ মোহাম্মদ ইউসুফ, অর্থ সম্পাদক জসিম উদ্দিন, ইছানগর সদরঘাট সাম্পান মাঝি সমিতির সাধারণ সম্পাদ মিজানুর রহমান, অর্থ সম্পাদ ফরিদ আহম্মদ, পতেঙ্গা তেলের টেংকার কর্মচারী পারাপার সাম্পান মাঝি পাটনি শ্রমিক সমিতির সভাপতি মোহাম্মদ সোহেল, ১১নম্বর মাতব্বর ঘাট ও জুলধা লাইফ বোট সাম্পান টেম্পু মাঝি মালিক (পাটনি) সমবায় সমিতির সভাপতি আবদুস শুক্কর,সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ ইয়াসিন হাসনাত, সদরঘাট সাম্পান চালক সমিতির সভাপতি আবসার উদ্দিন বাপ্পি সাধারন সম্পাদক এয়ার মোহাম্মদ, ১২ নম্বর তিনটিংগা ঘাট যাত্রী পারাপার সাম্পান মাঝি ও শ্রমিক সমবায় লিমিটেড এর জাফর আহম্মদ, ১৪ নম্বর গুচ্ছগ্রাম ঘাট নৌকা পারাপার ও লাইটার টেংকার শ্রমজীবি সমবায় সমিতির সভাপতি ফরিদুল আলম সাধারন সম্পাদক সোলেমান প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।- প্রেস বিজ্ঞপ্তি

নিউজ চট্টগ্রাম পাতার আরো খবর