প্রকাশ : 2018-03-11

জিতিয়েই মাঠ ছেড়েছেন মুশফিক

শ্রীলঙ্কাকে শুরুতে ২১৪ রানের বিশাল সংগ্রহ জমা করতে দেখে বাংলাদেশের জয়ের আশা হয়তো ছেড়েই দিয়েছিলেন অনেকে। কিন্তু অসাধারণ ব্যাটিং করে দলকে জয়ের বন্দরে নিয়ে গেছেন বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানরা। ৫ উইকেটের দুর্দান্ত এক জয় পেয়েছে মাহমুদউল্লাহর দল। ৩৫ বলে ৭২ রানের ঝড়ো ইনিংস খেলে দলকে জিতিয়েই মাঠ ছেড়েছেন মুশফিকুর রহিম। শ্রীলঙ্কার করা ২১৪ রানের জবাবে ব্যাট করতে নেমে শুরু থেকেই দাপুটে নৈপুণ্য দেখিয়েছেন বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানরা। দুই ওপেনার তামিম ইকবাল ও লিটন দাসের ঝড়ো ব্যাটিং করে উদ্বোধনী জুটিতেই জমা করেছিলেন ৭৪ রান। প্রথম ১০ ওভারের মধ্যে অবশ্য দুজনেই ফিরেছেন সাজঘরে। ষষ্ঠ ওভারে দলীয় ৭৪ রানের মাথায় বাংলাদেশ হারিয়েছিল প্রথম উইকেট। ১৯ বলে ৪৩ রানের ঝড়ো ইনিংস খেলে ফিরেছিলেন লিটন। দশম ওভারে সাজঘরের পথে হেঁটেছেন তামিম। তিনি খেলেছেন ২৯ বলে ৪৭ রানের ইনিংস। তৃতীয় উইকেটে ৫১ রানের জুটি গড়ে দলকে জয়ের পথে আরও খানিকটা এগিয়ে দিয়েছিলেন মুশফিকুর রহিম ও সৌম্য সরকার। ১৫তম ওভারে সৌম্য ফিরেছিলেন ২৪ রান করে। মাহমুদউল্লাহর ব্যাট থেকে এসেছে ২০ রান। আর ৩৫ বলে ৭২ রানের অসাধারণ ইনিংস খেলে দলকে জয়ের বন্দরে নিয়ে গেছেন মুশফিক। শেষপর্যন্ত অপরাজিতই ছিলেন সাবেক এই অধিনায়ক। এর আগে টস হেরে ব্যাট করতে নেমে কুশল পেরেরার ৭৪, কুশল মেন্ডিসের ৫৭, উপুল থারাঙ্গার ৩২ ও ধনুস্কা গুনাথিলাকার ২৬ রানের ইনিংসগুলোতে ভর করে ২১৪ রান সংগ্রহ করেছে স্বাগতিক শ্রীলঙ্কা। বাংলাদেশের পক্ষে দারুণ বোলিং করে তিনটি উইকেট নিয়েছেন মুস্তাফিজুর রহমান। দুটি উইকেট গেছে অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহর ঝুলিতে। লক্ষ্য ২১৫ রান। টি-টোয়েন্টিতে তা পাহাড়সম স্কোরই বটে। এই সংগ্রহ তাড়া করতে নেমে শুরুটা দারুণ করেছিল বাংলাদেশ। দুই ওপেনার তামিম ইকবাল ও লিটন দাস চমৎকার সূচনা এনে দেন দলকে। তারপরও কিছুটা সংশয় ছিলই, প্রতিপক্ষের এই বিশাল সংগ্রহ টপকাতে পারবে কি বাংলাদেশ। না, সব সংশয় দূরে ঠেলে দারুণ এক জয় পেয়েছে লাল-সবুজের দল। আর তা সম্ভব হয়েছে অভিজ্ঞ ব্যাটসম্যান মুশফিকুর রহিমের কল্যাণে। মুশফিকের হার-না-মানা ৭২ রানের ইনিংসের ওপর ভর করেই নিদাহাস ট্রফিতে বাংলাদেশ পাঁচ উইকেটের দারুণ জয় পেয়েছে। দলের প্রয়োজন মুহূর্তে বুক চিতিয়ে রুখে দাঁড়িয়েছেন দেশের অন্যতম সেরা এই ব্যাটসম্যান। মাত্র ৩৫ বলে এই ইনিংসটি খেলেন তিনি। পাঁচটি চার ও চারটি ছক্কায় এই ইনিংসটি সাজান তিনি। তাঁর চমৎকার ইনিংসের ওপরই ভর করেই মূলত জয় পেয়েছে বাংলাদেশ। অবশ্য এর আগে তামিম ও লিটন শুরু থেকে ঝড় তোলেন। লিটন মাত্র ১৯ বলে দুই চার ও পাঁচ ছক্কায় ৪৩ রান করে আউট হন। তার তামিম ২৯ বলে ৪৭ করে দলের জয়ের ভিত গড়ে দেন। মাঝে অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ ২০ রানের একটি ইনিংস খেলেন। যার ওপর ভর করেই সিরিজের প্রথম জয় পেয়েছে বাংলাদেশ। অবশ্য আসরে নিজেদের প্রথম ভারতের কাছে খুবই বাজে ভাবে হেরেছিল বাংলাদেশ। সে ম্যাচে তারা ছয় উইকেটে হেরেছে। ঘরের মাঠে দীর্ঘ ব্যর্থতার পর জয় এই বাংলাদেশ শিবিরে কিছুটা স্বস্তি এনে দিয়েছে।