আবরারের রুমমেট মিজান আটক
১০অক্টোবর,বৃহস্পতিবার,অনলাইন ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: বুয়েট শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদ হত্যার ঘটনায় তার রুমমেট মিজানকে আটক করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার (১০ অক্টোবর) দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে বুয়েটের শেরে-ই-বাংলা হলের ১০১১ নম্বর রুম থেকে তাকে তুলে নিয়ে যায় ডিবি পুলিশ। আটক মিজান বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়াটার রিসোর্চ অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের শিক্ষার্থী। শের-ই-বাংলা হলের প্রত্যক্ষদর্শী আব্দুল কাদের জানান, আবরারের মরদেহ উদ্ধারের পর ১০১১ নম্বর রুমটা একদিন বন্ধ ছিল। এরপর আবরারের বাকি রুমমেটরা সেখানে থাকতে শুরু করেন। আজ দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে ডিবি পুলিশ এসে ওই রুমের মিজানকে তুলে নিয়ে গেছে। এ বিষয়ে জানতে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের মিডিয়া ও পাবলিক রিলেশন্স বিভাগের উপ-কমিশনার (ডিসি) মাসুদুর রহমানের মোবাইল ফোনে কল দেয়া হলেও রিসিভ করেননি তিনি। এদিকে আজ সকালে ঢাকার সবুজবাগ থেকে আবরার ফাহাদ হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় আলোচিত ছাত্রলীগ নেতা অমিত সাহাকে আটক করেছে পুলিশ। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদের জন্য অমিতকে ডিবি কার্যালয়ে নেয়া হয়। পরে যদি আবরার হত্যার ঘটনায় সংশ্লিষ্টতা পাওয়া যায় তাহলে এ মামলায় তাকে গ্রেফতার দেখানো হবে। রোববার (৬ অক্টোবর) দিবাগত মধ্যরাতে বুয়েটের সাধারণ ছাত্র ও বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ ফাহাদকে শেরে-ই-বাংলা হলের দ্বিতীয় তলা থেকে অচেতন অবস্থায় উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে নিয়ে যান। সোমবার (৭ অক্টোবর) সকাল সাড়ে ৬টার দিকে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। তার শরীরে অসংখ্য আঘাতের চিহ্ন ছিল। আবরার ফাহাদ বুয়েটের ইলেকট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেকট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের (ইইই) বিভাগের লেভেল-২ এর টার্ম ১ এর ছাত্র ছিলেন। তিনি শের-ই-বাংলা হলের ১০১১ নম্বর কক্ষে থাকতেন। তার বাড়ি কুষ্টিয়া শহরে। কুষ্টিয়া জেলা স্কুলে তিনি স্কুলজীবন শেষ করে নটরডেম কলেজ থেকে এইচএসসি পাস করেন।
দ্রুততম সময়ে আবরার হত্যার অভিযোগপত্র : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী
১০অক্টোবর,বৃহস্পতিবার,অনলাইন ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: বুয়েট শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদ হত্যাকাণ্ডের বিচার কার্যক্রম দ্রুত সম্পন্ন করতে দ্রুততম সময়ে অভিযোগপত্র দেয়া হবে বলে জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল। বৃহস্পতিবার (১০ অক্টোবর) সচিবালয়ে নিজ দপ্তরে সাংবাদিকদের এ কথা বলেন তিনি। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা অনুযায়ী দেশের সব বিশ্ববিদ্যালয় কতৃর্পক্ষের সঙ্গে আলাপ করে হলগুলোতে তল্লাশি চালানো হবে। একইসঙ্গে শুধু শুদ্ধি অভিযান নয়, দেশে সুশাসন প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে সব ধরনের পদক্ষেপ নেয়া হবে। বুয়েট ছাত্র আবরার হত্যাকারীদের সর্বোচ্চ শাস্তি হবে জানিয়ে গতকাল প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, কোনো রাজনৈতিক পরিচয় দেখা হচ্ছে না, অপরাধী যেই হোক কেউ ছাড় পাবে না। বুধবার (৯ অক্টোবর) বিকেলে গণভবনে সাম্প্রতিক যুক্তরাষ্ট্র ও ভারত সফর নিয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ কথা বলেন।
শিক্ষার্থীদের সঙ্গে ভিসি কথা না বললে বুয়েটের সব ভবনে তালা ঝুলানোর হুঁশিয়ারি
১০অক্টোবর,বৃহস্পতিবার,অনলাইন ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: আগামীকাল শুক্রবারের মধ্যে শিক্ষার্থীদের সঙ্গে উপাচার্য অধ্যাপক সাইফুল ইসলাম কথা না বললে বুয়েটের সব ভবনে তালা ঝুঁলিয়ে দেওয়া হবে বলে হুঁশিয়ারি করেছেন আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা। আবরার ফাহাদ হত্যাকাণ্ডের জেরে আজ বৃহস্পতিবার চতুর্থদিনের মতো আন্দোলন অব্যাহত রেখেছেন বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা। এরই এক পর্যায়ে বেলা সাড়ে ১১টায় সংবাদ সম্মেলনে করে তারা শিক্ষার্থীদের কথা বলার জন্য উপাচার্যকে এ আল্টিমেটাম দেন।একই সঙ্গে সোমবার থেকে আন্দোলন চালিয়ে আসা শিক্ষার্থীদের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, তাদের ১০ দফা দাবি পূরণ না হলে ভর্তি পরীক্ষাসহ বুয়েটের সব কার্যক্রম বন্ধ করে দেওয়া হবে।প্রসঙ্গত, রবিবার দিবাগত গভীর রাতে বুয়েটের ইলেকট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেকট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের (ইইই) বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদের মরদেহ বুয়েটের শেরে-বাংলা হল থেকে উদ্ধার করে পুলিশ। অভিযোগ, ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের মারধরে তিনি মারা যান। এ ঘটনায় আবরারের বাবা ১৯ জনকে আসামি করে রাজধানীর চকবাজার থানায় মামলা করেন। এখন পর্যন্ত এ মামলায় ১৩ জন রিমান্ডে আছে।
আবরার হত্যা : ছাত্রলীগ নেতা অমিত সাহা আটক
১০অক্টোবর,বৃহস্পতিবার,অনলাইন ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) ছাত্র আবরার ফাহাদ হত্যা মামলায় বুয়েট শাখা ছাত্রলীগের আইন বিষয়ক উপ-সম্পাদক অমিত সাহাকে আটক করেছে ডিবি পুলিশ। আজ বৃহস্পতিবার (১০ অক্টোবর) সবুজবাগ থেকে বেলা ১১টার দিকে তাকে আটক করা হয়। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন ডিবির জয়েন্ট কমিশনার মাহাবুব আলম। জানা যায়, ফাহাদকে যে কক্ষে হত্যা করা হয় সেই ২০১১ কক্ষের বাসিন্দা অমিত। গেল রোববার দিবাগত রাত তিনটার দিকে বুয়েটের শের-ই-বাংলা হলের একতলা থেকে দোতলায় ওঠার সিঁড়ির মাঝ থেকে আবরারের মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। ওই ঘটনায় এখন পর্যন্ত ১৩ জনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। এর মধ্যে ১০ জনকে মঙ্গলবার (০৮ অক্টোবর) আদালতে হাজির করে রিমান্ড আবেদন করলে আদালত ৫ দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেন। এদিকে আবরার ফাহাদের হত্যার প্রতিবাদে আন্দোলনে চালিয়ে যাচ্ছে বুয়েট শিক্ষার্থীরা। সব দাবি না মানা পর্যন্ত বুয়েট শিক্ষার্থীরা আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন। আগামী ১৫ অক্টোবরের মধ্যে বিশ্ববিদ্যালয়ে সাংগঠনিক ছাত্র রাজনীতি নিষিদ্ধের দাবি জানানো হয়েছে। গতকাল বুধবার (৯ অক্টোবর) আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা জানিয়েছিলেন, আবরারের হত্যাকারীদের সর্বোচ্চ শাস্তির দাবিসহ ১০ দফা দাবি সময়সীমার মধ্যে না মানা হলে বুয়েটের সব ধরনের একাডেমিক কার্যক্রম বন্ধ থাকবে।
ড. ইউনূসের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা
০৯অক্টোবর,বুধবার,অনলাইন ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: গ্রামীণ ব্যাংকের প্রতিষ্ঠাতা, শান্তিতে নোবেল বিজয়ী অর্থনীতিবিদ ড. মুহাম্মদ ইউনূসের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেছেন আদালত। বুধবার (৯ অক্টোবর) ঢাকার শ্রম আদালতের বিচারক তিন মামলায় তার বিরুদ্ধে এ আদেশ দেন। নিজের প্রতিষ্ঠিত গ্রামীণ কমিউনিকেশন্স প্রতিষ্ঠানে ট্রেড ইউনিয়ন গঠন করায় চাকরিচ্যুতির অভিযোগে দায়ের করা তিন মামলায় তার বিরুদ্ধে এ গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেন ঢাকার তৃতীয় শ্রম আদালতের চেয়ারম্যান রহিবুল ইসলাম। আজ তিন মামলায় ড. ইউনূসের সমনের জবাব দেয়ার জন্য দিন ধার্য ছিল। কিন্তু তিনি আদালতে উপস্থিত না হওয়ায় এ গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করা হয়। ড. ইউনূসের আইনজীবী রাজু আহম্মেদ আদালতকে বলেন, ড. মুহাম্মদ ইউনূস সম্মানিত ব্যক্তি। তিনি ব্যবসার কাজে বিদেশ অবস্থান করছেন। তিনি দেশে এলে আদালতে উপস্থিত হবেন। মামলার বাদী প্রস্তাবিত গ্রামীণ কমিউনিকেশন্স শ্রমিক কর্মচারী ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক আব্দুস সালাম বলেন, প্রতিষ্ঠানে ইউনিয়ন গঠন করার জন্য চাকরিচ্যুত করায় আমরা ড. ইউনূসের বিরুদ্ধে মামলা করি। তিনি আজ (বুধবার) আদালতে উপস্থিত না হওয়ায় আদালত তার বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেন। অপরদিকে গ্রামীণ কমিউনিকেশন্সের ব্যবস্থাপনা পরিচালক নাজনীন সুলতানা ও উপ-মহাব্যবস্থাপক খন্দকার আবু আবেদীন আত্মসমর্পণ করে জামিন আবেদন করলে আদালত তা মঞ্জুর করেন। এর আগে গত ৩ জুলাই ঢাকার তৃতীয় শ্রম আদালতে ড. মুহাম্মদ ইউনূসসহ তিনজনের বিরুদ্ধে মামলা করেন গ্রামীণ কমিউনিকেশন্সের সদ্য চাকরিচ্যুত সাবেক তিন কর্মচারী। আদালত ৮ অক্টোবর তাদের হাজির হওয়ার জন্য সমন জারি করেন। মামলার অপর দুই আসামি হলেন প্রতিষ্ঠানের ব্যবস্থাপনা পরিচালক নাজনীন সুলতানা ও উপ-মহাব্যবস্থাপক খন্দকার আবু আবেদীন।
আবরার হত্যার দায় নিয়ে বুয়েট ভিসির পদত্যাগ দাবি তিনশ' শিক্ষকের
০৯অক্টোবর,বুধবার,অনলাইন ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: আবরার ফাহাদ হত্যার দায় নিয়ে বাংলাদেশ প্রকেৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) উপাচার্য অধ্যাপক ড. সাইফুল ইসলামকে পদত্যাগের আহ্বান জানিয়েছেন প্রতিষ্ঠানটির অন্তত তিনশ' শিক্ষক।বুধবার সকাল সাড়ে ১০টা থেকে বেলা আড়াইটা পর্যন্ত শিক্ষক সমিতির এক বৈঠকে এই আহ্বান জানানো হয়। বৈঠকে অন্তত ৩০০ শিক্ষক উপস্থিত ছিলেন। ওই বৈঠকে পদত্যাগ করেন শেরে-বাংলা হলের প্রভোস্ট ড. জাফর ইকবাল খান। হত্যাকাণ্ড কেন্দ্র করে শিক্ষার্থীদের চলমান আন্দোলনে বুয়েট ভিসির পদত্যাগসহ ১০ দফা দাবির সঙ্গে একাত্মতা প্রকাশ করে বুয়েট শিক্ষক সমিতি। তারা আবরার হত্যায় প্রশাসনিক ব্যর্থতার দায় নিয়ে ভিসি সাইফুল ইসলামকে পদত্যাগ করার আহ্বান জানান। এর আগে বুয়েট অ্যালামনাই অ্যাসোসিয়েশনের এক প্রতিবাদ সমাবেশ থেকে বুয়েট ভিসির অপসারণ দাবি করা হয়। অ্যালামনাই অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি অধ্যাপক ড. জামিলুর রেজা চৗেধুরী অ্যাসোসিয়েশনের পক্ষে এই দাবি করেন। এর আগে সকালে আবরার হত্যার বিচার দাবিতে ১০ দফা দাবি উপস্থাপন করেন বুয়েটের আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা। শিক্ষার্থীদের চলমান আন্দোলনে বুয়েট ভিসির পদত্যাগসহ ১০ দফা দাবির সঙ্গে সংহতি প্রকাশ করেছে বুয়েট শিক্ষক সমিতি।গত রবিবার রাত ৮টায় বুয়েটের দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র আবরার ফাহাদকে ডেকে নিয়ে যায় ছাত্রলীগের একদল নেতাকর্মী। এরপর তাকে শেরে বাংলা হলের ২০১১ নম্বর কক্ষে পিটিয়ে হত্যা করা হয়।
জনগণের ট্যাক্সের টাকায় ক্যাম্পাসে মাস্তানি করা চলবে না: প্রধানমন্ত্রী
০৯অক্টোবর,বুধবার,অনলাইন ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: দেশের প্রতিটি বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে, প্রতিটি হলে তল্লাশি করতে হবে। অস্ত্র মাদক পাওয়া গেলে ব্যবস্থা নিতে হবে। জনগণের ট্যাক্সের টাকায় খেয়ে পরে মাস্তানি চলবে না। বললেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বুধবার বিকেলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গণভবনে এক সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন। আমেরিকা ও ভারত সফর নিয়ে এই সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়। শেখ হাসিনা বলেন, একেকটা ছাত্রের পেছনে কয়েক লক্ষ টাকা খরচ করে সরকার। মেধাবী তৈরির জন্য এতো টাকা খরচ করা হয়। মাস্তানি করার জন্য তো এসব টাকা দেয়া হয় না। তিনি বলেন, রাজনীতির কারণেই মনের মধ্যে দেশপ্রেম জাগে। ছাত্ররাজনীতি করেছি বলেই দেশের প্রতি মমত্ববোধ নিয়ে কাজ করতে পারছি। ছাত্ররাজনীতি বন্ধ হবে কেন? নিষিদ্ধ করার প্রশ্নই ওঠে না। বুয়েট স্বায়ত্বশাসিত বিশ্ববিদ্যালয়। তারা চাইলে আলাদা সিদ্ধান্ত নিতে পারে। বললেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, বুয়েট একটা স্বায়ত্বশাসিত বিশ্ববিদ্যালয়। সরকার সেখানে ফান্ড দেয়। কিন্তু হস্তক্ষেপ করে না। তারা চাইলে সেখানে ছাত্ররাজনীতি নিষিদ্ধ করতে পারে। এটা তাদের বিষয়। তবে আমি মনে করি ছাত্ররাজনীতি থাকলে তাদের দেশের প্রতি আরও মমত্ব জাগবে। তিনি বলেন, দেশের প্রতিটি বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে, প্রতিটি হলে হলে তল্লাশি করতে হবে। অস্ত্র মাদক পাওয়া গেলে ব্যবস্থা নিতে হবে। জনগণের ট্যাক্সের টাকায় খেয়ে পরে মাস্তানি চলবে না।
দাবির সঙ্গে নীতিগত সমর্থন জানাচ্ছি- তোপের মুখে বুয়েট ভিসি
০৮অক্টোবর,মঙ্গলবার,অনলাইন ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদকে পিটিয়ে হত্যার ঘটনার ৩৬ ঘণ্টা পর ক্যাম্পাসে প্রকাশ্যে এসে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের তোপের মুখে পড়েছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি (উপাচার্য) অধ্যাপক সাইফুল ইসলাম। মঙ্গলবার বিকালে নিজ কার্যালয়ে প্রোভোস্টদের নিয়ে জরুরি বৈঠক শেষে শিক্ষার্থীদের সামনে আসেন ভিসি। এ সময় আবরার হত্যার ঘটনায় শিক্ষার্থীদের সব দাবির সঙ্গে নীতিগত সমর্থন জানান ভিসি। বলেন, তোমরা যে দাবিগুলো করেছে, আমি সেই দাবিগুলো মেনে নিয়েছি। আমি তোমাদের দাবির সঙ্গে নীতিগত সমর্থন জানাচ্ছি। আমি তোমাদের সঙ্গে আছি। একপর্যায়ে ভিসিকে শিক্ষার্থীরা প্রশ্ন করেন, আবরার হত্যার ঘটনার পর তিনি কেন ক্যাম্পাসে আসেননি? জবাবে ভিসি বলেন, আমি ক্যাম্পাসে ছিলাম। এ সময় শিক্ষার্থীরা ভুয়া ভুয়া বলে স্লোগান দিতে শুরু করেন।
আবরার হত্যা: গ্রেফতার ছাত্রলীগের ১০ নেতা রিমান্ডে
০৮অক্টোবর,মঙ্গলবার,অনলাইন ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদ হত্যার ঘটনায় এখন পর্যন্ত ১০ জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। গ্রেফতার ১০ জনই আবরার হত্যার কথা স্বীকার করেছেন। ঢাকা দক্ষিণ মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার হাসান আরাফাত বিষয়টি নিশ্চিত করেন। এদিকে, আবরার ফাহাদকে পিটিয়ে হত্যার ঘটনায় গ্রেফতার ছাত্রলীগের ১০ নেতার ৫ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত। মঙ্গলবার (৮ অক্টোবর) তাদের ঢাকা মহানগর হাকিম আদালতে হাজির করে পুলিশ। এ সময় চকবাজার থানায় করা মামলার সুষ্ঠু তদন্তের জন্য ১০ দিনের রিমান্ড আবেদন করেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা। শুনানি শেষে ঢাকা মহানগর হাকিম সাদবীর ইয়াসির আহসান চৌধুরী এই রিমান্ড মঞ্জুর করেন। যাদের রিমান্ড মঞ্জুর করা হয়েছে তারা হলেন- বুয়েট শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মেহেদি হাসান রাসেল, সহ-সভাপতি মুস্তাকিম ফুয়াদ, সহ-সম্পাদক আশিকুল ইসলাম বিটু, উপ-দফতর সম্পাদক মুজতবা রাফিদ, উপ-সমাজকল্যাণ সম্পাদক ইফতি মোশাররফ সকাল, উপ-আইন সম্পাদক অমিত সাহা, ক্রীড়া সম্পাদক সেফায়েতুল ইসলাম জিওন, তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক অনিক সরকার, গ্রন্থনা ও গবেষণা সম্পাদক ইশতিয়াক মুন্না এবং খন্দকার তাবাখখারুল ইসলাম তানভির। আবরার ফাহাদ বুয়েটের তড়িৎ ও ইলেকট্রনিক প্রকৌশল বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের (১৭তম ব্যাচ) ছাত্র ছিলেন। তিনি থাকতেন বুয়েটের শেরে বাংলা হলের নিচতলায় ১০১১ নম্বর কক্ষে। বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে সাম্প্রতিক কিছু চুক্তির সমালোচনা করে ফেসবুকে স্ট্যাটাস দেয়ার জেরে রোববার রাতে ফাহাদকে পিটিয়ে হত্যা করেন বুয়েট ছাত্রলীগের একদল নেতাকর্মী। সোমবার রাতে ফাহাদ হ'ত্যার ঘটনায় ১৯ জনকে আসামি করে তার বাবা বরকত উল্লাহ ঢাকার চকবাজার থানায় মামলা করেন।

জাতীয় পাতার আরো খবর