মহিউদ্দিন চৌধুরীর সময় চসিক সব ক্ষেত্রে অগ্রণী ছিল: রেজাউল
২২,ফেব্রুয়ারী,সোমবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: চসিকের স্বাস্থ্যসেবার যে জৌলুস ছিল তা ফিরিয়ে আনতে হবে মন্তব্য করে মেয়র রেজাউল করিম চৌধুরী বলেছেন, প্রয়াত মেয়র এবিএম মহিউদ্দিন চৌধুরীর সময় করপোরেশন সব ক্ষেত্রে অগ্রণী ভূমিকা রাখত। আমি চাই স্বাস্থ্যসেবার ক্ষেত্রেও সেই ভূমিকা রাখুক চসিক। সোমবার (২২ ফেব্রুয়ারি) নগরের টাইগারপাসে চসিকের অস্থায়ী কার্যালয়ের সম্মেলন কক্ষে চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের (চসিক) স্বাস্থ্য বিভাগের মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে মেয়র এসব কথা বলেন। করপোরেশনের স্বাস্থ্যসেবা খাতে অতীতের সুনাম আবার ফিরিয়ে আনা হবে উল্লেখ করে মেয়র বলেন, নগরের অধিবাসীদের সুলভে চিকিৎসাসেবা নিশ্চিতে ঢেলে সাজানো হবে চসিক পরিচালিত মেমন মাতৃসদন হাসপাতাল, জেনারেল হাসপাতালসহ অন্যান্য হাসপাতাল ও স্বাস্থ্যসেবা কেন্দ্রগুলো। তিনি বলেন, সবসময় নানা সীমাবদ্ধতা, সমস্যা থাকবে তা সত্ত্বেও নাগরিক সুবিধা ও সেবাকে অগ্রাধিকার দিতে হবে। পরিকল্পিতভাবে সব ধরনের সরঞ্জাম, যন্ত্রপাতি ক্রয় ও বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকদের সমন্বয়ে চিকিৎসালয়গুলোর আধুনিকায়ন করা হবে। যাতে চসিকও নগরের চিকিৎসাসেবায় মডেল হয়ে থাকে বাংলাদেশের মধ্যে। স্বাস্থ্যসেবার সব চাহিদা ও প্রয়োজনীয়তা করপোরেশনের প্রধান নির্বাহী ও প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা বসে ঠিক করবেন। যা সহযোগিতা করা দরকার মেয়র হিসেবে আমি অবশ্যই করবো। তবে করপোরেশনের চিকিৎসকদের দায়িত্ব নিয়ে কাজ করতে হবে, অবহেলা গাফিলতি হলে কেউ ছাড় পাবেন না। সভায় সভাপতিত্ব করেন চসিকের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা কাজী মুহাম্মদ মোজাম্মেল হক। বক্তব্য দেন করপোরেশনের প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. সেলিম আকতার চৌধুরী, ডা. মোহাম্মদ আলী, ডা. নাসিম ভূঁইয়া, ডা. শাহীন পারভীন, ডা. দীপা ত্রিপুরা, ডা. হাসান মুরাদ চৌধুরী, ডা. মুজিবুল আলম, ডা. সুমন তালুকদার, ডা. সৈয়দ দিদারুল মুনির রুবেল, ডা. তৌহিদুল আনোয়ার, ডা. উম্মে কুলসুম সুমি প্রমুখ।
চট্টগ্রামে করোনা আক্রান্ত আরও ৭৮ জন
২২,ফেব্রুয়ারী,সোমবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা শনাক্ত হয়েছে ৭৮ জনের। এ নিয়ে চট্টগ্রামে মোট আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়ালো ৩৪ হাজার ৪৬৬ জন। এসময়ে করোনায় মৃত্যুবরণ করেনি কেউ। সোমবার (২২ ফেব্রুয়ারি) সকালে সিভিল সার্জন কার্যালয় থেকে প্রকাশিত প্রতিবেদন সূত্রে এ তথ্য জানা যায়। গত ২৪ ঘণ্টায় চট্টগ্রামের ৬টি ল্যাবে ১ হাজার ২৯৯টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়। এরমধ্যে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় ল্যাবে ৬৯টি, বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ট্রপিক্যাল অ্যান্ড ইনফেকশাস ডিজিজেস (বিআইটিআইডি) ল্যাবে ৬৪২টি, চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ (চমেক) ল্যাবে ২৭৬টি এবং চট্টগ্রাম ভেটেরিনারি অ্যান্ড অ্যানিম্যাল সায়েন্সেস বিশ্ববিদ্যালয় (সিভাসু) ল্যাবে ৫০টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়। এতে চবি ল্যাবে ৯ জন, বিআইটিআইডি ল্যাবে ১১ জন, চমেক ল্যাবে ২৩ জন এবং সিভাসু ল্যাবে ১৭ জন করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়েছেন। এছাড়া শেভরন ক্লিনিক্যাল ল্যাবরেটরিতে ২৫৪টি নমুনা পরীক্ষা করে ১৭ জন এবং চট্টগ্রাম মা ও শিশু হাসপাতাল ল্যাবে ৮টি নমুনা পরীক্ষা করে ১ জনের শরীরে করোনা ভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। তবে এইদিন ইম্পেরিয়াল হাসপাতাল ল্যাব, জেনারেল হাসপাতালের রিজিওনাল টিবি রেফারেল ল্যাবরেটরি (আরটিআরএল) এবং কক্সবাজার মেডিক্যাল কলেজ ল্যাবে চট্টগ্রামের কোনো নমুনা পরীক্ষা করা হয়নি। সিভিল সার্জন ডা. সেখ ফজলে রাব্বি জানান, গত ২৪ ঘণ্টার নমুনা পরীক্ষায় ৭৮ জন নতুন আক্রান্ত শনাক্ত হয়েছেন। নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে ১ হাজার ২৯৯টি। নতুন আক্রান্তদের মধ্যে নগরে ৬২ জন এবং উপজেলায় ১৬ জন।
হাটহাজারী সাংবাদিক সমিতির কমিটি গঠন
২১,ফেব্রুয়ারী,রবিবার,অশোক কুমার চৌধুরী,চট্টগ্রাম,নিউজ একাত্তর ডট কম: বাংলাদেশ সাংবাদিক সমিতি হাটহাজারী উপজেলা শাখার (২০২১-২০২২) পূর্নাঙ্গ কমিটি গঠন করা হয়েছে। আজ রোববার (২১ফেব্রুয়ারি) এ উপলক্ষে সংগঠনের অস্থায়ী কার্যালয়ে সংগঠনের সভাপতি বাবলু দাশের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ আলীর সঞ্চালনায় আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় কমিটির সাংগঠনিক কার্যক্রম শক্তিশালী করার লক্ষে ২১ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি গঠন করা হয়। সভায় সবার সম্মতিক্রমে বাবলু দাশকে (ভোরের কাগজ) সভাপতি এবং মোহাম্মদ আলীকে(সমকাল) পুনরায় সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত করা হয়। একইসাথে সিনিয়র সহ-সভাপতি হিসেবে নির্বাচিত হন শ্যামল নাথ (গিরি দর্পণ), সহ-সভাপতি যথাক্রমে কে এম জাহেদ মঞ্জু( দৈনিক বর্তমান), মোহাম্মদ আলমগীর (সি-প্লাস), যুগ্ন -সম্পাদক মোহাম্মদ পারভেজ (গণকন্ঠ), অর্থ-সম্পাদক উজ্জ্বল নাথ (প্রতিদিনের সংবাদ), সাংগঠনিক সম্পাদক মোহাম্মদ বোরহান উদ্দিন (যায় যায় দিন), দপ্তর সম্পাদক আবু সাহেদ (মানবজমিন), প্রচার সম্পাদক সুমন পল্লব (নবচেতনা), ক্রীড়া সম্পাদক মোঃ জামসেদ (বর্তমান কথা), সাংস্কৃতিক সম্পাদক মোঃ কুতুব উদ্দিন (ভোরের দর্পণ), ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক মাহমুদ আল আজাদ(খবরপত্র) । এছাড়া কমিটির অন্যান্য সদস্যগণ হলেন বিপুল বড়ুয়া (দৈনিক জনতা), মোঃ জাহেদুল আলম জাহিদ (শাহ আমানত), মোঃ নাজিম উদ্দিন (দৈনিক খবর), আবুল মনসুর (সময়ের নিউজ), নুর মালেক (আমার সময়), মোহাম্মদ জাসেদ (আমিরাত সংবাদ অনলাইন পোর্টাল), নুর উদ্দিন ও গিয়াস উদ্দিন প্রমুখ।
আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে সকল ভাষা সৈনিক ও শহীদদের প্রতি চান্দগাঁও থানা ছাত্রলীগ এর শ্রদ্ধা
২১,ফেব্রুয়ারী,রবিবার,নিউজ ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম ১৯৫২ সালের এই দিনে আমাদের মাতৃভাষা বাংলার মর্যাদা রক্ষা করতে প্রাণ উৎসর্গ করেছিলেন আবুল বরকত, আবদুল জব্বার, আবদুস সালাম, রফিকউদ্দিন আহমদ, শফিউর রহমানসহ আরও অনেকে। এই দিনে বাংলা ভাষা শহীদদের স্মৃতির প্রতি গভীর শ্রদ্ধা জানাই। পরম শ্রদ্ধার সঙ্গে স্মরণ করি বাংলাভাষার মর্যাদা প্রতিষ্ঠার লড়াইয়ে নেতৃত্বদানকারী সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি, জাতির পিতা, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানসহ সকল ভাষাসৈনিককে। যাদের দূরদর্শী ঐতিহাসিক সিদ্ধান্তে এবং সর্বোচ্চ আত্মত্যাগের বিনিময়ে আমাদের মা, মাটি ও মানুষের অস্তিত্ব রক্ষা হয়েছে। করোনা মহামারির কারনে প্রতিটি সরকারে আদেশ অনুজায়ী ৫ জন করে পস্পমাল্য অর্পন করে । এই সময় উপস্থিত ছিলো চান্দগাঁও থানা ছাত্রলীগের সভাপতি মো নুরুন নবী সাহেদ। সাধারন সম্পাদক শহিদুল আলম শহিদ, সহ সভাপতি আবু সাইদ মুন্না, চান্দগাও থানা ছাত্রলীগ নেতা নুর মোহাম্মাদ সানি, লুৎফা আজিম রেনেসা, আফতাফ উদ্দীন তাহসিন, ইসতিয়াক ইসলাম ইমন সহ নেতৃবৃন্দ। বাংলাদেশে বসবাসকারী জনগোষ্ঠীর জাতীয় জীবনে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের গুরুত্ব অপরিসীম। একুশ মানেই হলো- পরাশক্তির কাছে মাথা নত না করা। একুশ একটি বিদ্রোহ, বিপ্লব ও সংগ্রামের নাম। একুশ হল মায়ের ভাষায় ভাষায় কথা বলার জন্য রাজপথ কাপানো মিছিল, স্লোগান, আন্দোলনে মুখরিত একটি মুহূর্ত। এই দিনে বাংলা মায়ের দামাল ছেলেরা তাদের বুকের তাজা রক্তে পিচ ঢালা রাজপথে সিক্ত করে মায়ের ভাষায় কথা বলার অধিকার কে আদায় করেছে পশ্চিমা শাসক গোষ্ঠীয় কবল থেকে। ১৯৫২ সালের ২১ ফেব্রুয়ারি এদেশের জাতীয় জীবনে একটি স্মরণীয় ও তাৎপর্যবহ দিন। আর একুশে ফেব্রুয়ারিকে কেন্দ্রীয় করেই বাংলার স্বাধীনতা আন্দোলনের সূচনা ঘটে এবং শোষণ ও পরাধীনতার শৃংখল থেকে মুক্ত হয় এদেশ ও জাতি।
আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা বিএনপির শ্রদ্ধাঞ্জলি জ্ঞাপন
২১,ফেব্রুয়ারী,রবিবার,নিউজ ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে চট্টগ্রাম দক্ষিণ বিএনপির উদ্যোগে লালদীঘি পাড় খুরশিদ মহলের সামনে হতে চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি, সাবেক মন্ত্রী আলহাজ্ব জাফরুল ইসলাম চৌধুরী, চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা বিএনপির আহ্বায়ক, নগর বিএনপির সাবেক সিনিয়র সহ-সভাপতি আবু সুফিয়ান ও সদস্য সচিব মোস্তাক আহমদ খানের নেতৃত্বে Railly সহকারে চট্টগ্রাম কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে শ্রদ্ধাঞ্জলি জ্ঞাপন করা হয়। এসময় উপস্থিত ছিলেন চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা বিএনপির আহ্বায়ক কমিটির সদস্য এড. ফোরকান, জামাল হোসেন, হুমায়ুন কবির আনসার, লায়ন হেলাল উদ্দিন, মোস্তাফিজুর রহমান চৌধুরী, অধ্যাপক এহসানে মওলা, নুরুল কবির, বাঁশখালী পৌরসভা বিএনপির আহ্বায়ক রাসেল ইকবাল মিয়া, এড. নাসির উদ্দিন, শওকত ওসমান, চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের সাধারণ সম্পাদক মঞ্জুর উদ্দিন তালুকদার, চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা ছাত্রদলের সভাপতি মোঃ শহীদুল আলম শহীদ, বিএনপি নেতা চেয়ারম্যান আলহাজ্ব মুহাম্মদ হাসান চৌধুরী, সিরাজুল ইসলাম, এম.এ. রহিম, মোঃ ওসমান, শেফায়েত উল্লাহ চক্ষু, আপীল উদ্দীন, জেলা ওলামা দলের আহ্বায়ক মোঃ ফোরকান, সিনিয়র যুগ্ম আহ্বায়ক হাফেজ মওলানা আব্দুল করিম, সদস্য সচিব মাহফুজুর রহমান আনিস, জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের সাংগঠনিক সম্পাদক ফৌজলুল কবির ফজলু, সিনিয়র যুগ্ম সম্পাদক আব্দুস ছবুর, জেলা যুবদলের যুগ্ম সম্পাদক দিল মোহাম্মদ মঞ্জু, আহমদ ছগির, দৌলত আকবর চৌধুরী সহ প্রমুখ।
একুশে প্রভাত ফেরী করে শহীদ মিনারে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ করল চাটগাঁইয়্যা নওজোয়ান
২১,ফেব্রুয়ারী,রবিবার,নিউজ ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: ২১ শে ফেব্রুয়ারিতে চেরাগী পাহাড় নিজস্ব কার্যালয় থেকে চাটগাঁইয়্যা নওজোয়ানের সদস্যরা তাদের নব-নির্বাচিত কমিটি নিয়ে প্রভাত ফেরীর মাধ্যমে শহীদ মিনার পুষ্পস্তবক অর্পণ করে। এতে উপস্থিত ছিলেন সভাপতি জামাল আহমেদ, সহ-সভাপতি মোঃ গিয়াস উদ্দিন, সহ-সভাপতি মোঃ জসিম উদ্দিন চৌধুরী, সহ-সভাপতি লায়ন এম মুছা বাবলু, সাধারণ সম্পাদক আহিল সিরাজ, সহ-সাধারণ সম্পাদক ইলিয়াছ ইলু, অর্থ সম্পাদক মোঃ মঞ্জুর আলম, সাংগঠনিক সম্পাদক আনোয়ার হায়দার রাজিন, ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক সম্পাদক রেজাউল করিম মানিক, প্রচার সম্পাদক ওমর আলী রনি, মহিলা বিষয়ক সম্পাদক রায়হান সুলতানা নিহা, সহ-মহিলা বিষয়ক সম্পাদক সীমা সেন, কার্যকরী সদস্য জাফর ইকবাল, সাফাত ইব্রাহিম, সদস্য সেলিম আকতার পিয়াল সহ প্রমুখ।
চুয়েটে মহান শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস-২০২১ উদযাপিত
২১,ফেব্রুয়ারী,রবিবার,নিউজ ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: চট্টগ্রাম প্রকৌশল ও প্রযু্িক্ত বিশ্ববিদ্যালয় (চুয়েট)-এর মাননীয় ভাইস চ্যান্সেলর অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ রফিকুল আলম বলেছেন, একুশ ফেব্রুয়ারির আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি বিশ্বের বুকে বাঙালির একটি স্বকীয় অবস্থান তৈরি করেছে। বাংলা ভাষাকে সর্বস্তরে ছড়িয়ে দিতে হলে আমাদের গবেষণা ও অ্যাবস্ট্রাক্টগুলোকে বাংলায় প্রকাশ করতে হবে। সেজন্য চুয়েটের সকল শিক্ষককে এগিয়ে আসতে হবে। আমাদের তরুণ প্রজন্মকে একুশের মহান চেতনাকে ধারণ করতে হবে। বাংলা ভাষার ব্যবহারের প্রতি দায়িত্বশীল হতে হবে। তবেই ভাষার প্রতি ও ভাষা শহীদদের প্রতি সম্মান প্রদর্শন করা হবে। তিনি আজ ২১ ফেব্রুয়ারি (রবিবার), ২০২১ খ্রি. চুয়েট কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের পাদদেশে মহান শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস-২০২১ উদযাপন উপলক্ষ্যে আয়োজিত এক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন। চুয়েটে জাতীয় দিবস উদযাপন কমিটির সভাপতি এবং পুরকৌশল অনুষদের ডীন অধ্যাপক ড. মো. রবিউল আলমের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন প্রকৌশল ও প্রযুক্তি অনুষদের ডীন ও ছাত্রকল্যাণ পরিচালক অধ্যাপক ড. মো. রেজাউল করিম, স্থাপত্য ও পরিকল্পনা অনুষদের ডীন অধ্যাপক ড. মো. মইনুল ইসলাম, যন্ত্রকৌশল অনুষদের ডীন অধ্যাপক ড. জামাল উদ্দিন আহম্মদ, বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার (অতিরিক্ত দায়িত্ব) অধ্যাপক ড. ফারুক-উজ-জামান চৌধুরী এবং মুজিব বর্ষ বাস্তবায়ন কমিটির সভাপতি অধ্যাপক ড. রণজিৎ কুমার সূত্রধর। অনুষ্ঠানে আরো বক্তব্য রাখেন বিভাগীয় প্রধানগণের পক্ষে তড়িৎ ও ইলেকট্রনিক বিভাগের বিভাগীয় প্রধান অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ আহসান উল্লাহ, প্রভোস্টগণের পক্ষে বঙ্গবন্ধু হলের প্রভোস্ট জনাব সৈয়দ মাসরুর আহমেদ, শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক ড. সজল চন্দ্র বনিক, কর্মকর্তা সমিতির সভাপতি জনাব আমিন মোহাম্মদ মুসা, কর্মচারী সমিতির সভাপতি জনাব মো. জামাল উদ্দিন। অনুষ্ঠান সঞ্চালনায় ছিলেন উপ-পরিচালক (জনসংযোগ) জনাব মোহাম্মদ ফজলুর রহমান এবং নগর ও অঞ্চল পরিকল্পনা বিভাগের সহকারী অধ্যাপক জনাব এটিএম শাহজাহান। এতে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক, কর্মকর্তা, কর্মচারী ও শিশু-কিশোররা স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণপূর্বক অংশগ্রহণ করেন। অনুষ্ঠানের শুরুতে মহান ভাষা শহীদদের স্মরণে দোয়া ও মুনাজাত করা হয়। এর আগে দিবসটি উপলক্ষ্যে দিনের প্রথম প্রহরে সকাল সাড়ে ৭টায় ক্যাম্পাসের উত্তর গোল চত্ত্বর হতে প্রভাতফেরীর মাধ্যমে দিনব্যাপী কর্মসূচীর শুরু হয়। এতে নেতৃত্ব দেন মাননীয় ভাইস চ্যান্সেলর অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ রফিকুল আলম। এরপর চুয়েট কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে ভাষা শহীদদের শ্রদ্ধা জানিয়ে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ রফিকুল আলম। উল্লেখ্য, মুজিব শতবর্ষে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের গুরুত্ব ও তাৎপর্য বিষয়ে রচনা প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়।
শ্রদ্ধার ফুলে ভাষা শহীদদের স্মরণ চট্টগ্রামে
২১,ফেব্রুয়ারী,রবিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: রাষ্ট্রভাষা বাংলার জন্য পাকিস্তানি শাসকের বুলেটের সামনে দাঁড়িয়ে যারা জীবন উৎসর্গ করেছেন, ফুলেল শ্রদ্ধায় তাদের স্মরণ করেছেন বন্দরনগরী চট্টগ্রামের মানুষ। রোববার (২১ ফেব্রুয়ারি) প্রথম প্রহরে নগরের কে সি দে রোড এলাকায় শহীদ মিনারে ফুল দিয়ে ভাষা শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা প্রথম জানান সিটি মেয়র রেজাউল করিম চৌধুরী। মেয়রের পরেই শহীদ মিনারে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান চট্টগ্রাম বিভাগীয় কমিশনার এ বি এম আজাদ, পুলিশের চট্টগ্রাম রেঞ্জের ডিআইজি আনোয়ার হোসেন, সিএমপি কমিশনার সালেহ মোহাম্মদ তানভীর, জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ মমিনুর রহমান, পুলিশ সুপার এস এম রশিদুল হক, মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার মোজাফফর আহমেদ, সিডিএ চেয়ারম্যান জহিরুল আলম দোভাষ। এরপর পর্যায়ক্রমে ট্যুরিস্ট পুলিশ, ইন্ডাস্ট্রিয়াল পুলিশ, পিবিআই চট্টগ্রাম জেলা, চট্টগ্রাম জেলা পরিষদ, পানি উন্নয়ন বোর্ড, রেলওয়ে পুলিশ, চট্টগ্রাম জেলা আনসার কমান্ডার, ফায়ার সার্ভিস, চট্টগ্রাম কারাগার, পরিবেশ অধিদফতর, পরিচালক স্বাস্থ্য, চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাব, চট্টগ্রাম সাংবাদিক ইউনিয়ন, মুক্তিযোদ্ধা সন্তান কমান্ডসহ বিভিন্ন সরকারি ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের ঊর্দ্ধতন কর্মকর্তারা শহীদ মিনারে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান। শহীদদের শ্রদ্ধা জানাতে মধ্যরাতে ঘড়ির কাঁটা ১২টা ছোঁয়ার আগেই হাজারো মানুষ হাতে ফুল নিয়ে দাঁড়িয়ে যান শহীদ মিনার অভিমুখী লাইনে। বিশিষ্টজনদের শ্রদ্ধা জানানোর পর উন্মুক্ত হয় শহীদ মিনার। করোনা ভাইরাসের কারণে স্বাস্থ্যবিধি মেনে শহীদ মিনারে ফুল দিয়ে বিনম্র শ্রদ্ধায় ভাষা শহীদদের স্মরণ করেন চট্টগ্রামের নানা শ্রেণি পেশার মানুষ। ১৯৫২ সালের ২১ ফেব্রুয়ারি বাংলাকে রাষ্ট্রভাষা করার দাবিতে আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীদের মিছিলে পাকিস্তানি শাসক গোষ্ঠীর নির্দেশে পুলিশের গুলিতে প্রাণ হারান সালাম, রফিক, বরকত, শফিউরসহ নাম না জানা অনেকে। এরপর বাংলাকে অন্যতম রাষ্ট্রভাষার স্বীকৃতি দেয় তৎকালীন পাকিস্তানি শাসকগোষ্ঠী। ভাষা আন্দোলনের ধারাবাহিকতায় ১৯৭১ সালে সশস্ত্র সংগ্রামের মধ্য দিয়ে আসে বাংলাদেশের স্বাধীনতা।
চট্টগ্রামে করোনা আক্রান্ত ৩৭ জন, টিকা নিলেন ২৩ হাজার
২১,ফেব্রুয়ারী,রবিবার,নিউজ ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: গত ২৪ ঘন্টায় চট্টগ্রামে ১ হাজার ১৮২টি নমুনা পরীক্ষা করে করোনা ভাইরাস শনাক্ত হয়েছে ৩৭ জনের। এ নিয়ে মোট আক্রান্ত ৩৪ হাজার ৩৮৮ জন। এসময়ে করোনায় মৃত্যুবরণ করেনি কেউ। অন্যদিকে চট্টগ্রামে শনিবার টিকা নিয়েছেন ২৩ হাজার ৪৭৩ জন। এখন পর্যন্ত ১ লাখ ৭৫ হাজার ১১৫ জন টিকা গ্রহণ করেছেন। রোববার (২১ ফেব্রুয়ারি) সকালে সিভিল সার্জন কার্যালয় থেকে এসব তথ্য জানানো হয়। গত ২৪ ঘণ্টায় চট্টগ্রামে ৫টি ল্যাবে নমুনা পরীক্ষা হয়। বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ট্রপিক্যাল অ্যান্ড ইনফেকশাস ডিজিজেসে (বিআইটিআইডি) ৭৪২টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়। এতে শনাক্ত হয় ৭ জন। চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ (চমেক) ল্যাবে ৩৩৬টি নমুনা পরীক্ষা করে ৮ জনের শরীরে করোনা ভাইরাস পাওয়া গেছে। ইম্পেরিয়াল হাসপাতাল ল্যাবে ৮৫টি নমুনা পরীক্ষা করে ১৫ জন করোনা আক্রান্ত শনাক্ত হয়েছে। তবে চট্টগ্রাম মা ও শিশু হাসপাতাল ল্যাবে ৯টি নমুনা পরীক্ষা করে কারো শরীরে করোনা ভাইরাস শনাক্ত হয়নি। জেনারেল হাসপাতালের রিজিওনাল টিবি রেফারেল ল্যাবরেটরিতে (আরটিআরএল) ১০টি নমুনা পরীক্ষা করে ৫টি নমুনা পজেটিভ শনাক্ত হয়। চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় ল্যাব, চট্টগ্রাম ভেটেরিনারি অ্যান্ড অ্যানিম্যাল সায়েন্সেস বিশ্ববিদ্যালয় (সিভাসু) ল্যাব, শেভরণ ক্লিনিক্যাল ল্যাবরেটরি এবং কক্সবাজার মেডিক্যাল কলেজ ল্যাবে এদিন কোনো পরীক্ষা করা হয়নি। চট্টগ্রামের সিভিল সার্জন ডা. সেখ ফজলে রাব্বি জানান, গত ২৪ ঘণ্টার নমুনা পরীক্ষায় ৩৭ জন নতুন আক্রান্ত শনাক্ত হয়েছেন। এইদিন নমুনা পরীক্ষা করা হয় ১ হাজার ১৮২টি। নতুন আক্রান্তদের মধ্যে নগরে ৩৫ জন এবং উপজেলায় ২ জন। তিনি আরও বলেন, করোনার টিকা কার্যক্রমের সপ্তম দিনে টিকা নিয়েছেন ২৩ হাজার ৪৭৩ জন। এর মধ্যে সিটি করপোরেশন এলাকায় ১১ হাজার ১৪৪ জন এবং উপজেলায় ১২ হাজার ৩২৯ জন।

নিউজ চট্টগ্রাম পাতার আরো খবর