মনসুরাবাদ পুলিশ লাইন্সের অস্ত্রাগার উদ্বোধন
১৪নভেম্বর,শনিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: হালিশহর থানাধীন উত্তর হালিশহর পুলিশ ফাঁড়ি এবং মনসুরাবাদ পুলিশ লাইন্সের অস্ত্রাগার উদ্বোধন করেছেন পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি) ড. বেনজীর আহমেদ। শুক্রবার (১৩ নভেম্বর) চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশের হালিশহর থানাধীন নবনির্মিত উত্তর হালিশহর পুলিশ ফাঁড়ি ও মনসুরাবাদ পুলিশ লাইন্সের অস্ত্রাগার উদ্বোধন করেন তিনি। নবনির্মিত এই পুলিশ ফাঁড়ি উদ্বোধনের ফলে এলাকার আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি উন্নতির পাশাপাশি স্থানীয় জনসাধারণের পুলিশিং সেবা প্রাপ্তি আরও সহজতর ও গতিশীল হবে বলে আশা প্রকাশ করেন ড. বেনজীর আহমেদ। ফাঁড়ি উদ্বোধন শেষে আইজিপি ড. বেনজীর আহমেদ মনসুরাবাদ পুলিশ লাইন্সের বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কর্মকাণ্ড পরিদর্শন করেন এবং একটি বৃক্ষ রোপণ করেন। এসময় পুলিশের চট্টগ্রাম রেঞ্জের ডিআইজি মো. আনোয়ার হোসেন, চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার সালেহ্ মোহাম্মদ তানভীর, অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (প্রশাসন ও অর্থ) আমেনা বেগম, অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (ক্রাইম অ্যান্ড অপারেশন) এস এম মোস্তাক আহমেদ খান, উপ-পুলিশ কমিশনার (সদর) মো. আমির জাফর ও উপ-পুলিশ কমিশনার (পশ্চিম) মো. ফারুক উল হক উপস্থিত ছিলেন।
২০ হাজার ইয়াবাসহ দুই পাচারকারী আটক
১৩নভেম্বর,শুক্রবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: কর্ণফুলী টোল প্লাজা এলাকা থেকে ২০ হাজার পিস ইয়াবাসহ দুই পাচারকারীকে আটক করেছে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি)। কক্সবাজার থেকে মিনিট্রাকে করে ইয়াবাগুলো নিয়ে নারায়ণগঞ্জ যাচ্ছিলো দুই পাচারকারী। শুক্রবার (১৩ নভেম্বর) ভোরে তাদের আটক করা হয়। আটক দুইজন হলো- মনির ও সুমন। তারা মিনিট্রাকের চালক ও সহকারী বলে জানা গেছে। সিআইডি চট্টগ্রামের পরিদর্শক ফজলুল কাদের চৌধুরী নিউজ একাত্তরকে বলেন, কর্ণফুলী টোল প্লাজা এলাকা থেকে ২০ হাজার পিস ইয়াবাসহ মনির ও সুমন নামে দুইজনকে আটক করা হয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে। পরিদর্শক ফজলুল কাদের চৌধুরী বলেন, আটক দুইজন জানিয়েছে- তারা কক্সবাজার থেকে খাদিজা নামে একজনের কাছ থেকে ইয়াবাগুলো নিয়ে নারায়ণগঞ্জে শাহজাহান নামে আরেকজনের কাছে নিয়ে যাচ্ছিলো। খালি মিনিট্রাক নিয়ে মনির ও সুমন নারায়ণগঞ্জ থেকে কক্সবাজার গিয়েছিল ইয়াবা নিয়ে আসার জন্য।
চট্টগ্রাম সিটিতে কমলো সম্পত্তি স্থানান্তর কর
১২নভেম্বর,বৃহস্পতিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরশেনসহ ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশন এলাকায় কোম্পানি থেকে কোম্পানি পর্যায়ে স্থাবর সম্পত্তি হস্তান্তরের কর কমিয়েছে সরকার। এসব এলাকায় দুই শতাংশ থেকে এক শতাংশে নামিয়ে সিটি করপোরেশন আদর্শ কর তফসিল, ২০১৬ সংশোধন করেছে। গত ৫ নভেম্বর এ সংক্রান্তে একটি গেজেটও প্রকাশিত হয়েছে। আগামী ১ ডিসেম্বর থেকে এ গেজেট কার্যকর হবে। কর তফসিল অনুযায়ী, প্রতিটি হস্তান্তর দলিলে উল্লিখিত স্থাবর সম্পত্তির মূল্যের সর্বোচ্চ দুই শতাংশ হারে কর আরোপ করা যায়। এখন সেই তফসিল সংশোধন করে বলা হয়েছে, স্থাবর সম্পত্তি হস্তান্তরের ক্ষেত্রে প্রতিটি হস্তান্তর দলিলে উল্লিখিত স্থাবর সম্পত্তির মূল্যের সর্বোচ্চ দুই শতাংশ হারে স্থাবর সম্পত্তি হস্তান্তর কর আরোপ করা যাবে। তবে শর্ত থাকে যে, ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন, ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন এবং চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের অধিক্ষেত্রে কোম্পানি থেকে কোম্পানির স্থাবর সম্পত্তি হস্তান্তরের ক্ষেত্রে সম্পত্তির মূল্যের এক শতাংশ হারে স্থাবর সম্পত্তি হস্তান্তর কর আরোপ করা যাবে।
মাস্ক বাধ্যতামূলক করতে চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসনের অভিযান, ৮৯ জনকে জরিমানা
১২নভেম্বর,বৃহস্পতিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: করোনাভাইরাস মহামারীর মধ্যে মাস্ক না পরায় চট্টগ্রাম মহানগরীর বিভিন্ন এলাকায় ৮৯ জনকে সাড়ে ১৭ হাজার টাকা জরিমানা করেছে প্রশাসন। এদের মধ্যে ৩০ জনকে ছয় ঘণ্টার আটকাদেশও দেওয়া হয়। আজ বৃহস্পতিবার (১২ নভেম্বর) সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত নগরীর চেরাগী পাহাড়, হাজারি লেইন, টেরিবাজার এবং জহুর হকার্স মার্কেটে অভিযান চালিয়ে জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট উমর ফারুক ও আলী হাসান এ জরিমানা করেন। ম্যাজিস্ট্রেট উমর ফারুক নগরীর হাজারি লেইন, চেরাগী পাহাড় ও টেরিবাজার এলাকায় ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেন। অভিযানে ৭৫ জনকে ১৫ হাজার ৫০০ টাকা জরিমানা করা হয় উল্লেখ করে তিনি বলেন, এর মধ্যে ৩০ জনকে ১০০ টাকা করে জরিমানার পাশাপাশি সকাল ১০টা থেকে বিকাল চারটা পর্যন্ত ছয় ঘণ্টার আটকাদেশ দেওয়া হয়। করোনাভাইরাস মহামারীর মধ্যে মাস্ক পরা বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। প্রাণঘাতি এ ভাইরাসের সংক্রমণ এড়াতে সাধারণ লোকজনের মাস্ক পরা নিশ্চিত করতে প্রশাসন অভিযান পরিচালনা করছে। তারই অংশ হিসেবে এ জরিমানা। অপরদিকে নগরীর জহুর হকার্স মার্কেটে অভিযান চালিয়ে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আলী হাসান ১৪ জনকে দুই হাজার দুইশ টাকা জরিমানা করেন। তিনি বলেন, মার্কেটের ক্রেতা ও বিক্রেতাদের এ জরিমানা করা হয়েছে। তাদের মুচলেকাও নেওয়া হয়েছে। এছাড়া তাদের সতর্ক করে ভবিষ্যতে মাস্ক পরতে বলা হয়েছে অভিযানে।
স্বাভাবিক জীবনে ফেরার প্রত্যয় বাইশ্যা ডাকাতের
১২নভেম্বর,বৃহস্পতিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: আর দশজন সাধারণ মানুষের মতোই স্বাভাবিক জীবন-যাপন করছিলেন আব্দুল হাকিম। চট্টগ্রামের উপকূলীয় অঞ্চলের এই বাসিন্দা ঘটনাচক্রে হয়ে ওঠেন বাইশ্যা ডাকাত। উপকূল এলাকায় দুর্ধর্ষ বাইশ্যা বাহিনী গড়ে তুলে শুরু করেন জলদস্যুতা। বাইশ্যা ডাকাত বলেন, ভুল বুঝে খারাপ মানুষের পাল্লায় প্রায় পাঁচ বছর আগে এই পথে পা বাড়িয়েছিলাম। অন্ধকার পথে পা বাড়িয়ে নিজে নানা বঞ্চনার শিকার হওয়ার পাশাপাশি পরিবারের সদস্যদেরও করেছি ঘৃণার পাত্র। তবে দীর্ঘ সময় গড়িয়ে একসময় বুঝেছি- আমার বেছে নেওয়া পথটি ছিলো ভুল পথ। এরপর স্বাভাবিক জীবনে ফেরার ইচ্ছা জাগে তার। একসময় Rapid Action Battalion (Rab-7) সহায়তায় সেই সুযোগ পেয়ে যান। অবশেষে আত্মসমর্পণের মাধ্যমে ক্ষমা চেয়ে স্বাভাবিক জীবনে ফেরার প্রত্যয় ব্যক্ত করেছেন বাইশ্যা ডাকাত। বৃহস্পতিবার (১২ নভেম্বর) দুপুরে চট্টগ্রামের বাঁশখালী আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ের মাঠে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামালের কাছে বাইশ্যা ডাকাতসহ ৩৪ জন জলদস্যু আত্মসমর্পণ করেছেন। আত্মসমর্পণের পর জলদস্যুদের পক্ষ থেকে তিনি বলেন, আমরাও ভালো মানুষের সন্তান ছিলাম, ভালো পথে ভালো জীবন-যাপন করতাম। তবে একসময় ভুল বুঝে, খারাপ মানুষের ফাঁদে পড়ে অন্ধকার পথে পা বাড়াই। এরপর থেকে মানুষ আমাদের ঘৃণা করে, আমার পরিবার-সন্তানদের ঘৃণা করে। আমরা এমন এক জীবন পার করেছি, কোথাও প্রশাসনের ভয়ে স্বাভাবিক চলাফেরা করতে পারতাম না। এরপর একসময় নিজের ভুল বুঝতে পেরে ভালো পথে আসার চেষ্টা করি। সুযোগ পেয়ে এখন আমরা অনেকে আত্মসমর্পণ করেছি। অন্ধকার থেকে আলোর পথে ফিরে আসতে চাই। আমরা Rabর পক্ষ থেকে ভালো আচরণ পেয়েছি। এজন্য Rab কে ধন্যবাদ জানাই। ভবিষ্যতে ভালোভাবে চলাফেরার আশা প্রকাশ করে তিনি বলেন, যারা এখনো আত্মসমর্পণ করেননি তারা এ সুযোগ পাবেন না। তোমরাও এ সুযোগ কাজে লাগাও, আত্মসমর্পণ করো। অতীত কর্মকাণ্ডের জন্য ক্ষমা চেয়ে তিনি আরো বলেন, আমাদেরও পরিবার আছে। তাই আমাদেরকে সহায়তা করার জন্য সরকারের প্রতি অনুরোধ জানাই। আমি সবার পক্ষ থেকে আমাদের কর্মকাণ্ডের জন্য ক্ষমা চাইছি।
কোতোয়ালী রেল স্টেশন এলাকা থেকে ৮৮ ভরি স্বর্ণসহ পাচারকারী আটক
১১নভেম্বর,বুধবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: নগরের কোতোয়ালী থানাধীন রেল স্টেশন এলাকা থেকে স্বর্ণ পাচারকালে জোসেফ উদ্দিন রুমন (৩০) নামে এক যুবককে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। মঙ্গলবার (১০ নভেম্বর) দিবাগত রাতে তাকে গ্রেফতার করা হয়। তার কাছ থেকে আটটি স্বর্ণের বার, দুইটি লকেট, দুই জোড়া কানের দুল ও একটি আংটি উদ্ধার করা হয়েছে। জোসেফ উদ্দিন রুমন রাঙ্গুনিয়ার পদুয়া দক্ষিণ পাড়া এলাকার মো. জহির আহমদের ছেলে। কোতোয়ালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ মহসীন জানান, জোসেফ স্বর্ণগুলো নিয়ে ঢাকা যাচ্ছিল। রেল স্টেশন এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। তার কাছ থেকে আটটি স্বর্ণের বার, দুইটি লকেট, দুই জোড়া কানের দুল ও একটি আংটি উদ্ধার করা হয়েছে। গ্রেফতার জোসেফের সঙ্গে আর কারা জড়িত তা জানতে তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে বলে জানান ওসি।
চট্টগ্রাম নগরীর অধিকাংশ সড়কের বেহালদশা
১০নভেম্বর,মঙ্গলবার,মো.এনামুল হক লিটন,চট্টগ্রাম,নিউজ একাত্তর ডট কম: চট্টগ্রাম মহানগরীর অধিকাংশ সড়কে বড়-বড় গর্ত সৃষ্টি হওয়ার পাশাপাশী বিভিন্ন সড়কের ম্যানহোলগুলোর বেহাল দশা হয়ে যানচলাচলে বিঘ্ন সৃষ্টি হলেও এ যেন দেখার কেউ নেই! নগরীর অধিকাংশ সড়কের অবস্থাই অত্যন্ত নাজুক। ফলে প্রতিনিয়ত যানজট সৃষ্টি হওয়ার পাশাপাশী দূর্ঘটনাও ঘটে চলেছে। সরেজমিনে নগরীর বহদ্দারহাট, মুরাদপুর, বায়েজিদ, অক্সিজেন, অন্যান্য আবাসিক এলাকা, ষোলশহর ২নং গেইট ও ষ্ট্রান্ড রোডের বিভিন্ন এলাকা ঘুরে ভোগান্তির এ চিত্র দেখা গেছে। জানা যায়, সড়কগুলো সাময়িকভাবে মেরামত করা হলেও কয়েকদিনের টানা বৃষ্টিতে ভেঙ্গে আবারো বেহাল দশা হয়ে পড়েছে। এসব অধিকাংশ সড়কেই যান চলাচলতো দূরের কথা মানুষের পক্ষে পায়ে হেঁটে পথ চলাও দায় হয়ে পড়েছে। বহদ্দারহাট মোড়ের রাস্তার এক পাশের অবস্থা অত্যন্ত নাজুক। স্যাত-স্যাতে কাদা আর ভাঙ্গাচোরা রাস্তার কারণে প্রতিনিয়ত যানজট সৃষ্টির পাশাপাশী দূর্ঘটনাও ঘটে চলেছে। এসব যানজট সামাল দিতে ট্রাফিক পুলিশকেও হিমশিম খেতে যায়। মো. সুমন নামে এক সিএনজি চালক জানান, বিভিন্ন সড়কে বড়-বড় গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। এসব অধিকাংশ গর্তে পানি জমা থাকার কারণে দূর থেকে গর্ত বুঝা যায় না। তাই অনেক সময় গর্তে পড়ে সিএনজি উল্টে যায়। এছাড়া যানজটের কারণে রোজগারও বন্ধ হয়ে গেছে। নগরীর প্রতিটি সড়কেই প্রতিনিয়ত যানজট লেগে থাকে। এ প্রসঙ্গে সিএমপির ট্রাফিক বিভাগের বায়েজিদ বোস্তামী জোনের ট্রাফিক ইন্সপেক্টর (টিআই) শহীদুল ইসলাম জানান, রাস্তা ভাঙ্গাসহ যানবাহন বেড়ে যাওয়ায় কিছুটা যানজটের সৃষ্টি হচ্ছে। তবে আমরা যানজট যেন না হয় সেদিকে বেশী খেয়াল রাখি। সরেজমিনে নগরীর বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, সড়কগুলো সাময়িকভাবে মেরামত করা হলেও বৃষ্টিতে ভেঙ্গে আবারো ব্যবহার অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। আর এসব কারণে যানজট, দূর্ঘটনার পাশাপাশী জনদূর্ভোগ বেড়েই চলেছে। জানতে চাওয়া হলে, চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন (চসিক) প্রশাসক খোরশেদ আলম সুজন নিউজ একাত্তর ডট কম কে জানান, জরুরী ভিত্তিতে এসব সড়ক সংস্কারের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। তাই উন্নয়ন কাজের জন্য একটু ধৈয্য ধরতে হবে।
কাজ না করলে ডোর টু ডোর শ্রমিকদের নিয়োগ বাতিল: চসিক প্রশাসক
১০নভেম্বর,মঙ্গলবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: সিটি করপোরেশনের প্রশাসক খোরশেদ আলম সুজন বলেছেন, ডোর টু ডোর শ্রমিকদের বেতন খাতে সিটি করপোরেশনের মাসে ২ কোটি ৪০ লাখ টাকা ব্যয় হয়। এরপরও ময়লা-আবর্জনা পরিষ্কার হচ্ছে না বলে নগরবাসী প্রায় অভিযোগ করছেন। তিনি বলেছেন, এ ধরনের অভিযোগ কাম্য নয়। নগরে ডোর টু ডোর ময়লা-আবর্জনা পরিষ্কার কাজে নিয়োজিত শ্রমিকরা যদি সঠিকভাবে তাদের দায়িত্ব পালন না করেন, তাহলে তাদের নিয়োগ বাতিল করা হবে। মঙ্গলবার (১০ নভেম্বর) নগরের আন্দরকিল্লায় পুরাতন নগর ভবনে তার দপ্তরে নগরবাসীর সঙ্গে গণস্বাক্ষাতকালে লালখান বাজার ওয়ার্ডের এক বাসিন্দার অভিযোগের জবাবে তিনি এসব কথা বলেন। লালখান বাজার ওয়ার্ডের আরেক বাসিন্দা পোড়া কলোনী এলাকায় নালার আবর্জনা তুলে যত্র-তত্র দীর্ঘ সময় উন্মুক্তভাবে ফেলে রাখা হয় বলে প্রশাসককে জানান। প্রশাসক অভিযোগ পেয়ে তাৎক্ষণিক ওই এলাকার সব ময়লা-আবর্জনা পরিষ্কার করতে অতিরিক্ত প্রধান পরিচ্ছন্ন কর্মকর্তাকে নির্দেশ দেন। ফকিরহাট দোকান মালিক সমিতির নেতারা ট্রেড লাইসেন্স প্রদান প্রক্রিয়া সহজ করতে প্রশাসককে অনুরোধ জানান। প্রশাসক ১ দিনের মধ্যে বিষয়টির সুরহা করতে প্রধান রাজস্ব কর্মকর্তাকে নির্দেশনা দেবেন বলে ব্যবসায়ী নেতাদের আশ্বস্ত করেন। নগরের মুরাদপুর ও ২ নম্বর গেট মোড়ে সড়কের আইল্যান্ড ভেঙে যাওয়ায় পরিবহন মালিকরা তা মেরামতে প্রশাসকের দৃষ্টি কামনা করেন। প্রশাসক এর সমাধানের আশ্বাস দেন। তিনি নগরে ফিটনেসবিহীন বাস ও অন্যান্য গাড়ি চলাচল বন্ধে পরিবহন মালিকদের সহযোগিতা কামনা করেন। সুজন বলেন, ফিটনেসবিহীন গাড়ি অনেক সময় বেপরোয়া গতিতে আইল্যান্ডের ওপর উঠে যায়। এতে আইল্যান্ড ভেঙে যায়। গণপরিবহন ও শহর এলাকার বাসগুলোতে কর্মজীবী নারীরা যাতে যৌন হয়রানির শিকার না হন এবং নিরাপদে চলাচল করতে পারেন সে ব্যাপারে পরিবহন মালিকদের আরও তদারকি প্রয়োজন।
চট্টগ্রামে করোনায় আক্রান্ত ২২ হাজার, নতুন ১০৮
১০নভেম্বর,মঙ্গলবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: চট্টগ্রামে করোনায় নতুন আক্রান্ত হয়েছেন ১০৮জন। এখন পর্যন্ত মোট আক্রান্ত ২২ হাজার ৮জন। গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে একজনের মৃত্যু হয়েছে। সোমবার (৯ নভেম্ববর) রাতে সিভিল সার্জন কার্যালয় থেকে প্রকাশিত প্রতিবেদনে এসব তথ্য পাওয়া যায়। এতে দেখা যায় চট্টগ্রামের ৮টি ল্যাব নমুনা পরীক্ষা করা হয়। গত ২৪ ঘণ্টায় ১ হাজার ২৬৪টি নমুনা পরীক্ষা করা হয় এর মধ্যে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় (চবি) ল্যাবে ৬৫টি, বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ট্রপিক্যাল অ্যান্ড ইনফেকশাস ডিজিজেস (বিআইটিআইডি) ল্যাবে ৫৮৮টি, চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ (চমেক) ল্যাবে ৪৩৫টি এবং চট্টগ্রাম ভেটেরিনারি অ্যান্ড অ্যানিম্যাল সায়েন্সেস বিশ্ববিদ্যালয় (সিভাসু) ল্যাবে ৫৪টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়। এতে চবি ল্যাবে ১০জন, বিআইটিআইডিতে ৭জন এবং চমেক ল্যাবে ৫১জন এবং সিভাসু ল্যাবে ৮ জন করোনা আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়েছেন। এ ছাড়া বেসরকারি ইম্পেরিয়াল হাসপাতাল ল্যাবে ৫১টি নমুনা পরীক্ষা করে ১০জন, শেভরন ক্লিনিক্যাল ল্যাবরেটরিতে ২৯টি নমুনা পরীক্ষা করে ১২জন এবং চট্টগ্রাম মা ও শিশু হাসপাতাল ল্যাবে ৩৬টি নমুনা পরীক্ষা করে ৪জন করোনা আক্রান্ত রোগী পাওয়া গেছে। এইদিন জেনারেল হাসপাতালের রিজিওনাল টিবি রেফারেল ল্যাবরেটরিতে (আরটিআরএল) ৬টি নমুনা পরীক্ষা করে ৬জন আক্রান্ত হয়েছেন। তবে কক্সবাজার মেডিক্যাল কলেজ ল্যাবে চট্টগ্রামের কোনো নমুনা পরীক্ষা করা হয়নি। চট্টগ্রামের সিভিল সার্জন ডা. সেখ ফজলে রাব্বি জানান, গত ২৪ ঘণ্টার নমুনা পরীক্ষায় ১০৮জন নতুন আক্রান্ত শনাক্ত হয়েছেন। নতুন আক্রান্তদের মধ্যে নগরে ৯১জন এবং উপজেলায় ১৭জন।

নিউজ চট্টগ্রাম পাতার আরো খবর