মঙ্গলবার, মে ১৮, ২০২১
চট্টগ্রামে করোনা আক্রান্ত আরও ৯০ জন
১২,অক্টোবর,সোমবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: গত ২৪ ঘন্টায় চট্টগ্রামে করোনা শনাক্ত হয়েছে ৯০ জনের। এ নিয়ে মোট আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়ালো ১৯ হাজার ৬৪৮ জন। এদিন করোনায় চট্টগ্রামে একজনের মৃত্যু্ হয়েছে। রোববার (১১ অক্টোবর) রাতে সিভিল সার্জন কার্যালয় থেকে প্রকাশিত প্রতিবেদন অনুযায়ী, চট্টগ্রামের ৮টি ল্যাব ও কক্সবাজার মেডিক্যাল কলেজ ল্যাবে নমুনা পরীক্ষা করা হয়। এর মধ্যে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় (চবি) ল্যাবে ৮৩টি, বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ট্রপিক্যাল অ্যান্ড ইনফেকশাস ডিজিজেস (বিআইটিআইডি) ল্যাবে ৩৭৫টি, চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ (চমেক) ল্যাবে ৩১৫টি এবং চট্টগ্রাম ভেটেরিনারি অ্যান্ড অ্যানিম্যাল সায়েন্সেস বিশ্ববিদ্যালয় (সিভাসু) ল্যাবে ৩২টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়। এতে চবি ল্যাবে ১২ জন, বিআইটিআইডিতে ২০ জন, চমেক ল্যাবে ১৯ জন এবং সিভাসু ল্যাবে ৬ জন করোনা আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়েছেন। এছাড়া বেসরকারি ইম্পেরিয়াল হাসপাতাল ল্যাবে ১০৪টি নমুনা পরীক্ষা করে ১৮ জন, শেভরন ক্লিনিক্যাল ল্যাবরেটরিতে ৩২টি নমুনা পরীক্ষা করে ১০ জন এবং চট্টগ্রাম মা ও শিশু হাসপাতাল ল্যাবে ২২টি নমুনা পরীক্ষা করে ৪ জন করোনা আক্রান্ত রোগী পাওয়া গেছে। চট্টগ্রাম জেনারেল হাসপাতালের রিজিওনাল টিবি রেফারেল ল্যাবরেটরিতে (আরটিআরএল) ৪টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়। এতে একজনের শরীরে করোনা পজেটিভ পাওয়া যায়। অন্যদিকে, কক্সবাজার মেডিক্যাল কলেজ ল্যাবে চট্টগ্রামের ৫টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়। এতে কারো শরীরে করোনা ভাইরাসের অস্তিত্ব মিলেনি। চট্টগ্রামের সিভিল সার্জন ডা. সেখ ফজলে রাব্বি জানান, গত ২৪ ঘণ্টার নমুনা পরীক্ষায় ৯০ জন নতুন আক্রান্ত শনাক্ত হয়েছেন। এইদিন নমুনা পরীক্ষা করা হয় ৯৭২টি। নতুন আক্রান্তদের মধ্যে নগরে ৮০ জন এবং উপজেলায় ১০ জন।
করোনা মহামারীতে মানসিক সমস্যা বেড়েছে- চসিক প্রশাসক
১১,অক্টোবর,রবিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন (চসিক) প্রশাসক খোরশেদ আলম সুজন বলেছেন, নভেল করােনাভাইরাস (কোভিড-১৯) মহামারীর প্রভাবে বিশ্বের অন্যান্য দেশের মতাে বাংলাদেশেও মানসিক স্বাস্থ্য সমস্যা বেড়েছে। যারা কোভিড-১৯ আক্রান্ত হয়েছেন তারাই নয় বরং যারা এখনাে এই রােগে আক্রান্ত হননি তাদের মাঝেও বাড়ছে মানসিক নানা সমস্যা। শনিবার (১০ অক্টোবর) সকালে চসিক জেনারেল হাসপাতালের সম্মেলন কক্ষে নগরবাসীর মানসিক স্বাস্থ্য সেবায় চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের ভূমিকা শীর্ষক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন। এ সময় চসিক প্রশাসক বলেন, চিকিৎসার পাশাপাশি মানসিক রােগীকে পারিবারিক ও সামাজিক সমর্থন দেয়া খুবই জরুরি। অন্যান্য রােগের ন্যায় মানসিক রােগেরও আধুনিক ও বিজ্ঞানসম্মত চিকিৎসা রয়েছে। ঝাড়ফুঁক বা অবৈজ্ঞানিক চিকিৎসা পদ্ধতি পরিহারে জনগণের মাঝে সচেতনতা সৃষ্টি করতে হবে। তাছাড়া শারীরিক ও মানসিকভাবে সুস্থ ও একটি স্বাস্থ্যবান জাতি গঠনে সকলের সম্মিলিত প্রয়াস দরকার। এজন্য চসিকের পক্ষ থেকে সব ধরনের সহযােগিতা থাকবে বলে জানান তিনি বিশ্ব মানসিক স্বাস্থ্য দিবস উপলক্ষে মেন্টাল হেলথ অ্যাডভােকেসি এসােসিয়েশন ও চসিক এর যৌথ উদ্যোগে আয়ােজিত এ অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন, সাংবাদিক এজাজ ইউসুফি, চসিক প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. সেলিম আখতার চৌধুরী, মেন্টাল হেলথ অ্যাডভােকেসি এসােসিয়েশনর সভাপতি শরীফ জহির উদ্দিন মাে. আবু রায়হান, সাধারণ সম্পাদক মােস্তফা কামাল যাত্রা, সমন্বয়কারী মােহিনী সংগীতা সিনহা, চসিক স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. মােহাম্মদ আলী। বক্তারা বলেন, মানসিক সুস্থতা নিশ্চিত করতে বিভিন্ন স্বাস্থ্যকেন্দ্রের পাশাপাশি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলােতেও মানসিক স্বাস্থ্য বিষয়ে সচেতনতামূলক কার্যক্রম গ্রহণ করতে হবে। তাছাড়া মানসিকভাবে সুস্থ একটি জাতি গঠনে সম্মিলিত প্রচেষ্টা আবশ্যক।
আমদানী-রপ্তানী ও অভ্যন্তরিন সমস্যা না থাকলেও বেড়েই চলেছে চাল-ডাল সবজিসহ নিত্যপণ্যের দাম
১১,অক্টোবর,রবিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: চাল-ডাল, পিয়াজ, সবজিসহ নিত্যপণ্যের দাম স্থিতিশীল রাখতে কার্যকরি পদক্ষেপ গ্রহণের দাবী জানিয়েছেন, প্রগতিশীল সংবাদপত্র পাঠক লেখক ফোরাম। সংগঠনের কেন্দ্রিয় কমিটির উপদেষ্টা মো. নুরুল হক জোহাদী, প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি মো. এনামুল হক লিটন, সাধারণ সম্পাদক সাহেনা আক্তার, দপ্তর সম্পাদক মো. মাসুদ রানা, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক মো. ইমদাদুল হক ইমন এবং কার্যকরি সদস্য নুরুল কবির স্বপণ গতকাল রোববার প্রদত্ত এক যৌথ বিবৃতিতে বলেন, করোনার কারণে সরবরাহ সমস্যায় অস্বাভাবিক বেড়ে গিয়েছিল চাল-ডাল তেলসহ সবধরণের নিত্যপণ্যের দাম। বর্তমানে আমদানী-রপ্তানী ও অভ্যন্তরিন সরবরাহ সমস্যা না থাকলেও বেশীর ভাগ পণ্যের দাম এখনো আগের অবস্থান থেকে নামেনি। তাঁরা উদ্বেগ প্রকাশ করে বলেন, করোনার ধাক্কায় দেশের প্রতিটি নিন্ম-নিন্মমধ্যবিত্ত, বিশেষ করে খেটে খাওয়া গরীব-অসহায় মানুষ যেখানে খেয়ে-পড়ে বাচাঁর লড়াইয়ে হিমশিম খাচ্ছে, সেখানে অসাধু ব্যবসায়িচক্র একের পর এক চাল-ডাল, পিয়াজ, কাঁচা মরিচ, ভোজ্যতেল, আদা, রসুন, সবজি, মাছ-মাংসসহ নিত্যপণ্যের দাম বাড়িয়েই চলেছে। এতে করে সাধারণ শ্রমজীবি ও নিন্ম আয়ের মানুষ চরম বিপাকে পড়েছে। বিবৃতিদাতারা ক্ষোভ প্রকাশ করে এ অবস্থা চলতে দেয়া যায় না উল্লেখ করে বলেন, সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সুষ্ঠু বাজার তদারকি ও নজরদারি না থাকায় অসাধু-মুনাফালোভী ব্যবসায়িরা নানা অজুহাতে নিত্যপণ্যের দাম উপূর্যপরীভাবে বৃদ্ধি করেই চলেছে। নেতৃবৃন্দ চাল-ডাল, পিয়াজ, কাঁচা মরিচ, আলু, ভোজ্যতেল, আদা রসুন, সবজিসহ নিত্যপণ্যের মূল্য বৃদ্ধিতে সিন্ডিকেটের কোনো কারসাজি আছে কিনা তা খতিয়ে দেখার পাশাপাশি উল্লেখিত এসব পণ্যের দাম স্থিতিশীল রাখতে কার্যকরি পদক্ষেপ গ্রহণের জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের নিকট জোর দাবী জানান।
সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বজায় রাখতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কাজ করে যাচ্ছেন: নওফেল
১০,অক্টোবর,শনিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বজায় রাখতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কাজ করে যাচ্ছেন বলে মন্তব্য করেছেন শিক্ষা উপমন্ত্রী ব্যারিস্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল। আজ শনিবার বিকালে আসন্ন শারদীয় দুর্গোৎসব উপলক্ষে চট্টগ্রাম-৯ সংসদীয় আসনের সংসদ সদস্য ও শিক্ষা উপমন্ত্রী ব্যারিস্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল এর সাথে মতবিনিময় করেছেন চট্টগ্রাম মহানগর পূজা উদযাপন পরিষদের নেতৃবৃন্দ। মতবিনিময়কালে শিক্ষা উপ-মন্ত্রী ব্যারিস্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল বলেন, হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান যে অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশের স্বপ্ন দেখেছিলেন তা বাস্তবায়নে এবং দেশে সাম্প্রদায়িক সম্প্রতি বজায় রাখতে সার্বক্ষণিক কাজ করে যাচ্ছেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা। শিক্ষা উপ-মন্ত্রী আরো বলেন, আবহমানকাল ধরে এ দেশের হিন্দু সম্প্রদায় বিপুল উৎসাহ-উদ্দীপনা ও উৎসবমুখর পরিবেশে নানা উপচার ও অনুষ্ঠানাদির মাধ্যমে দুর্গাপূজা উদযাপন করে আসছে। দুর্গাপূজা কেবল ধর্মীয় উৎসব নয়, সামাজিক উৎসবও। দুর্গোৎসব উপলক্ষে ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে আত্মীয়-স্বজন, বন্ধু-বান্ধব, পরিবার-পরিজন, পাড়া-প্রতিবেশি একত্রিত হন, মিলিত হন আনন্দ-উৎসবে। তাই এ উৎসব সার্বজনীন। তিনি এই সার্বজনীন উৎসবের সকল কর্মকাণ্ডে সনাতনী সম্প্রদায়ের পাশে থাকবেন আশ্বস্ত করেন। চট্টগ্রাম মহানগর পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি অ্যাডভোকেট চন্দন কুমার তালুকদার সভাপতিত্বে এবং যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হিল্লোল সেন উজ্জ্বল এর সঞ্চালনায় মতবিনিময় সভায় আরো বক্তব্য রাখেন, সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক শ্রী প্রকাশ দাশ অসিত, সাবেক সভাপতি অরবিন্দ পাল অরুণ, সাবেক সাধারণ সম্পাদক লায়ম আশীষ ভট্টাচার্য, অধ্যাপক অর্পণ কান্তি ব্যানার্জি, সুজিত দাশ, সহ-সভাপতি লায়ন দিলীপ ঘোষ, দুলাল চন্দ্র দে, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট নটু কুমার চৌধুরী, সিনিয়র সদস্য অরুপ রতন চক্রবর্তী, পুলক খাস্তগীর, সাংগঠনিক সম্পাদক সজল দত্ত, মহিলা সম্পাদিকা রুমকি সেনগুপ্ত, শিক্ষা ও গবেষণা সম্পাদক সুকান্ত মহাজন টুটুল, প্রিয়তোষ ঘোষ রতন, প্রচার সম্পাদক টিপু শীল জয়দেব, কার্যকরী সদস্য রাহুল দাশ প্রমুখ।
ধর্ম হৃদয়ে পরিশুদ্ধতার আলো জ্বালায়: রেজাউল
১০,অক্টোবর,শনিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: চসিক নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী এম রেজাউল করিম চৌধুরী বলেছেন, ধর্ম মানুষের আত্মাকে পরিশুদ্ধ করে আর ধর্মীয় জ্ঞান মানুষের হৃদয়ে পরিশুদ্ধতার আলো জ্বালায়। শনিবার (১০ অক্টোবর) নগরের চান্দগাঁও সার্বজনীন আনন্দ বিহার পরিচালনা কমিটি আয়োজিত দানোত্তম কঠিন চীবর দানোৎসব অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। নগর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এম রেজাউল করিম বলেন, অনৈতিককাজ, পরনিন্দা, জীবহত্যা, হিংসাসহ যেকোন পাপকাজ থেকে ধর্মই আমাদেরকে বাঁচিয়ে রাখে। পশুর ঘরে জন্মগ্রহণ করলে তার পরিচয় হয় পশু, কিন্তু মানুষের ঘরে জন্ম গ্রহণ করে যদি মনুষত্ব জাগ্রত না হয় তাহলে তাকে মানুষ বলা যায় না। আর মানুষের মধ্যে মনুষত্ব জাগায় ধর্মীয় আচার অনুষ্ঠান। তিনি বলেন, বাংলাদেশের স্বাধীনতার জন্য সকল ধর্মের মানুষ জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ডাকে মহান মুক্তিযুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়েছিলো। একটি অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ গড়ার লক্ষ্যে আমরা সবাই যুদ্ধ করেছি। যেনো ধর্ম ও জাতির কোন ভেদাভেদ বাংলাদেশে না থাকে। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন বাংলাদেশ বৌদ্ধ ভিক্ষু মহাসভার ভারপ্রাপ্ত সংঘনায়ক ও চান্দগাঁও সার্বজনীন কেন্দ্রীয় বৌদ্ধ বিহারের অধ্যক্ষ অগগমহাপন্ডিত অধ্যাপক বনশ্রী মহাথেরো। প্রধান ধর্মদেশক এর বক্তব্য রাখেন বিদর্শনাচার্য্য ভদন্ত নন্দবংশ মহাথেরো। বিশেষ অতিথি ছিলেন ভুলন বড়ুয়া ও প্রধান জ্ঞাতি ছিলেন মানু বড়ুয়া। অনুষ্ঠানে আরো ধর্মদেশনা করেন ভদন্ত জ্ঞানবংশ মহাথেরো, বিদর্শনাচার্য্য আর্য্যশ্রী থেরো, ভদন্ত রত্নপ্রিয় থেরো, ভদন্ত সংঘশ্রী থেরো, ভদন্ত তণহংকার ভিক্ষু, ভদন্ত দেবমিত্র ভিক্ষু ও ভদন্ত প্রজ্ঞালংকার ভিক্ষু প্রমুখ।
ধর্ষণ আর মাদক একে অপরের পরিপূরক
১০,অক্টোবর,শনিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: ভাড়াটিয়া, ভোক্তা ও নাগরিক অধিকার সংরক্ষণ পরিষদর চেয়ারম্যান প্রবীণ সাংবাদিক কামরুল হুদা বলেছেন, ধর্ষণ, নির্যাতন, হত্যা বেড়েই চলেছে। ধর্ষণ থামছেই না। কড়া আইন সত্ত্বেও না। ফাঁসির ভয়ও থামাতে পারছে না ধর্ষণ। বরং ধর্ষণের পর অত্যাচার করে হত্যার ঘটনা বাড়ছেই। সম্মিলিতভাবে উদ্যোগ গ্রহণ করতে পারলে এ পাপ রোধ করা সম্ভব। ধর্ষণ আর মাদক একে অপরের পরিপূরক। তাই দুটিকেই এক সাথে রোধ করতে হবে। নারী নির্যাতন করে হত্যা, ধর্ষণ মামলাগুলোর জন্য দ্রুত বিচারের ব্যবস্থা করতে হবে। ধর্ষণের কারণে নারী সমাজ আজ আতঙ্কিত ও ভীত। তিনি আজ শনিবার ১০ অক্টোবার, দুপুর ১২ টায় ভাড়াটিয়া, ভোক্তা ও নাগরিক অধিকার সংরক্ষণ পরিষদর উদ্যোগে ধর্ষকদের সর্বোচ্চ শস্তি মৃত্যুদন্ড, নারী ও শিশু নির্যাতন বন্ধ, নিত্যপণ্যের বাজার স্থিতিশীল রাখা, করোনাকালে বিদ্যুৎ, গ্যাস ও পানির বিল মওকুপ, ভাড়াটিয়াদের প্রতি সহনশীল হওয়াসহ যাত্রী হয়রানী বন্ধের দাবীতে চেরাগী মোড়ে সমাবেশ ও মানববন্ধনে এ সব কথা বলেন। উক্ত সংগঠনের মহাসচিব সাংবাদিক মোহাম্মদ নাছির উদ্দীন চৌধুরী বলেন, একের পর এক শিশু নির্যাতনের ঘটনায় দেশের সামগ্রিক শিশু অধিকার আজ প্রশ্নবিদ্ধ। সমাজের অনগ্রসর শ্রেণি বিশেষ করে নারী তথা অন্যান্য শ্রেণি-পেশার জনগোষ্ঠীকে নিয়ে অনেকেই কথা বলেন। কিন্তু শিশু অধিকার নিয়ে তেমন কোনো কার্যক্রম আমরা দেখি না। সমাজের শিশুরা যেন অভিভাবহীন। জাতি গঠনে শিশু অধিকার সুরক্ষা ও শিশু কল্যাণ নিশ্চিত করা অপরিহার্য। গত এক বছরে শিশু নির্যাতনের কয়েকটি ভয়াবহ ঘটনা ঘটেছে। নির্যাতনের ভিডিও ফুটেজ ছড়িয়ে পড়েছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে। বক্তারা বলেন, নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের দাম বৃদ্ধির ঘটনায় সাধারণ মানুষ উদ্বিগ্ন। বাজারে দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধির সঙ্গে তাল মিলিয়ে ক্রয়ক্ষমতা না বাড়ায় সাধারণ মানুষ, বিশেষ করে, নিম্মআয়ের শ্রমজীবীরা অসহায় বোধ করছেন। পরিতাপের বিষয় হল, দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধির ক্ষেত্রে সরকারের পক্ষ থেকে তেমন উচ্চবাচ্য হয় না বললেই চলে। বাজার নিয়ন্ত্রণের ক্ষেত্রে সরকারের শক্ত কোনো ভূমিকা নেই। করোনাকালে গ্যাস, পানি ও বিদ্যুৎ বিল মওকুফ করার সিদ্ধান্ত নিয়ে বাড়ীওয়ালাদের ভাড়ার টাকা অর্ধেক নেয়ার ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে। তিনি আরো বলেন, যানবাহনে যাত্রী সেবার লেশ মাত্র নেই। সারাদেশে ভাড়া ডাকাতি চললেও প্রশাসন ও যথাযথ কর্তৃপক্ষ তেমন কোনও ব্যবস্থা নিচ্ছে না। অন্যদিকে হাজার হাজার ফিটনেস বিহীন চলাচল করছে। বিশেষ করে লক্করঝক্কর বাস, জানালা ভাঙা, লাইট ও ফ্যান নেই, বৃষ্টির সময় ছাদ থেকে পানি পড়ে, ইঞ্জিনের বিকট শব্দ, হাইড্রোলিক হর্ণের ব্যবহার, ইত্যাদি। সারা দেশে যানজটের অন্যতম একটি কারণ গণপরিবহন শ্রমিকদের স্বেচ্ছাচারিতা। তারা তাদের খেয়াল-খুশি মতো এমনভাবে ক্রসিংয়ে বা মোড়ে বা রাস্তার মাঝখানে বাস থামিয়ে যাত্রী উঠানো-নামানো করে, যাতে করে পেছনের কোন যানবাহন তাকে অতিক্রম করতে না পারে। ফলে সবুজ সিগনাল থাকা সত্ত্বেও যানবাহনগুলোকে দাঁড়িয়ে থাকতে হয়। ভাড়াটিয়া, ভোক্তা ও নাগরিক অধিকার সংরক্ষণ পরিষদর সমাবেশ ও মানববন্ধনে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, এনজিটিভির বার্তা সম্পাদক সাইফুর রহমান সাইফুল, বাংলাদেশ আইন সহায়তা অধিকার বাস্তবায়ন ফাউন্ডেশনের চট্টগ্রাম জেলা সেক্রেটারী তারেক খান চৌধুরী, রাজনীতিবিদ সাহাব উদ্দিন হাসান বাবু, সাংবাদিক কামাল হোসেন, সাংবাদিক রোকন উদ্দীন আহমদ, সাংবাদিক ইকবাল মাহমুদ রুস্তম, সাংবাদিক জাকির হোসেন, সাংবাদিক মো. জাবেদুর রহমান, সাংবাদিক ডা. মাহতাব হোসাইন মাজেদ, সাংবাদিক আমান উল্লাহ বাদশা, সাংবাদিক দেবাশীষ রাজা, সাংবাদিক মো. সিরাজুল আলম টিপু, সাংবাদিক নন্দীনি চৌধুরী, রাজনীতিবিদ মো. সেলিম, লোকমান হাকিম, মো. আবদুল্লাহ প্রমুখ।
কিশোর-যুবাদের অবক্ষয়মুক্ত রাখতে খেলাধুলার বিকল্প নেই: তথ্যমন্ত্রী
০৯,অক্টোবর,শুক্রবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ও এর ওয়েভভিত্তিক বিভিন্ন এন্টারটেনমেন্ট এপসগুলোর ব্যাপারে আসক্তি থেকে আমাদের তরুণ সমাজকে বের করে আনতে হবে। কিশোর-যুবাদের অবক্ষয়মুক্ত রাখতে খেলাধুলার বিকল্প নেই। তিনি বলেন, ছেলেরা এখন আর মাঠে গিয়ে খেলে না। আমাদের ছোটবেলায় আমরা মাঠে গিয়ে খেলার জন্য ও সন্ধ্যার আগে বাসায় না ফেরার জন্য প্রতি সপ্তাহে বাবা-মার বকা শুনতাম। আর এখনকার ছেলেদের জোর করে ধরে মাঠে পাঠাতে হয়। বিষয়টা উল্টো হয়ে গেছে। আসলে খেলাধুলার কোন বিকল্প নাই। সেই জন্য খেলাধুলার আয়োজনও করতে হবে। আয়োজন না থাকলে তো ছেলেমেয়েরা খেলাধুলা করবে না। চট্টগ্রাম জেলা ক্রীড়া সংস্থা (সিজেকেএস) একটি ভাল উদ্যোগ গ্রহণ করেছে। আজ শুক্রবার (৯ অক্টোবর) সন্ধ্যায় নগরীর এমএ আজিজ স্টেডিয়ামে বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে চট্টগ্রাম জেলা ক্রীড়া সংস্থা আয়োজিত ফুটবল টুর্ণামেন্টের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তথ্যমন্ত্রী এসব কথা বলেন। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন সিজেকেএসর সাধারণ সম্পাদক আ জ ম নাছির উদ্দিন, টুর্ণামেন্ট কমিটির সভাপতি ও চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশের (সিএমপি) অতিরিক্ত কমিশনার এসএম মেহেদী হাসান, সিজেকেএসর সহ-সভাপতি দিদারুল আলম চৌধুরী, এহসানুল হায়দার বাবুল, হাছান সিদ্দিকী, চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবের সভাপতি আলী আব্বাস প্রমুখ। তথ্যমন্ত্রী হাছান মাহমুদ বলেন, আজকে ধর্ষণসহ কিশোর গ্যাং নানা অপরাধ করছে, নানা ধরণের অপরাধের সাথে বিভিন্ন কিশোর গ্যাং যুক্ত হচ্ছে। এটি থেকে রক্ষা করার একটি বড় উপায় হচ্ছে পাড়ায় পাড়ায় খেলাধুলার ব্যাপকতা বাড়ানো। এটি অত্যন্ত প্রয়োজন। করোনাকালে আমরা যেভাবে স্থবির হয়ে গেছি, এই স্থবিরতা বেশিদিন রাখা যায় না। এই স্থবিরতা কাটানোর জন্য খেলাধুলার কোন বিকল্প নাই। আমি মনে করি খুব শিগগির চট্টগ্রামে লীগের খেলাও আয়োজন করা প্রয়োজন। ড. হাছান মাহমুদ বলেন, করোনার কারণে পৃথিবী স্তব্ধ হয়ে গেছে। বাংলাদেশের কোথাও করোনার কারণে এ টুর্ণামেন্ট শুরু করা হয়নি এখনো। কিন্তু করোনার জন্য জীবন স্তব্ধ হয়ে থাকতে পারে না। আমাদের সবাইকে করোনা মোকাবেলা যেমন করতে হবে, জীবন এবং জীবিকা দুটিই আমাদেরকে বাঁচিয়ে রাখতে হবে। একইভাবে জীবনের সাথে ওঁৎপ্রোতভাবে যুক্ত খেলাধুলা, সেটাও আমাদের অব্যাহত রাখতে হবে। সেই লক্ষ্য নিয়েই করোনাকালে বাংলাদেশে প্রথম সিজেকেএস ফুটবল টুর্ণামেন্টের যাত্রা শুরু করল। সেজন্য সিজেকেএসকে ধন্যবাদ ও অভিনন্দন জানাই। বঙ্গবন্ধুর স্মৃতিচারণ করে তিনি বলেন, এখানে অনেকে জানেন না বঙ্গবন্ধু নিজেও কিন্তু ফুটবল খেলতেন। বঙ্গবন্ধু যখন স্কুলের ছাত্র তখন স্কুল ম্যানেজমেন্টের সভাপতি ছিলেন বঙ্গবন্ধুর বাবা শেখ লুৎফর রহমান। তখন শেখ লুৎফর রহমানের টিমের সাথে বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বাধীন টিমের খেলা হয়েছিল টুঙ্গিপাড়ায়। সেই খেলায় বাবার টিমকে তিনি হারিয়ে দিয়েছিলেন।
করোনা চিকিৎসায় ঢাকা যাচ্ছেন ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ
০৯,অক্টোবর,শুক্রবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: করোনা আক্রান্ত হওয়া সাবেক মন্ত্রী ও সাংসদ ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেনকে ঢাকায় নেয়ার সিদ্ধান্ত নিচ্ছে তার পরিবার। আজ শুক্রবার (৯ অক্টোবর) তাকে ঢাকায় নেয়া হতে পারে বলে জানা যায়। এর আগে, গতকাল বৃহস্পতিবার (৮ অক্টোবর) সকালে তাঁর নমুনা সংগ্রহ করা হয়। রাত ১০টা ২০ মিনিটে বিআইটিআইডি থেকে ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফের করোনাভাইরাসে আক্রান্তের বিষয়টি নিশ্চিত করা হয়। এরপরে তাকে নগরীর পার্কভিউ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পার্কভিউ হাসপাতালের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ডা. এটিএম রেজাউল করিম বলেন, ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন বর্তমানে পার্কভিউ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন। গতকাল (বৃহস্পতিবার) রাতে উনি আসার সাথে সাথে চিকিৎসা শুরু হয়েছে। উনার জন্য মেডিক্যাল বোর্ড গঠন করা হয়েছে এবং চিকিৎসার সম্পূর্ণ ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। তবে উনার পরিবার যদি উনাকে ঢাকা নিতে চান, তাহলে নিয়ে যাবেন। উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শেখ আতাউর রহমান বলেন, উনাকে ঢাকায় নেয়ার ব্যবস্থা করা হচ্ছে। আজকেই ঢাকা নেয়া হবে। কারণ, উনার শারীরিক অবস্থার জন্য আওয়ামী লীগের সিনিয়র (প্রবীণ) নেতাকর্মীরা খুবই চিন্তিত। এমনকি প্রধানমন্ত্রী অফিস থেকেও তার জন্য খোঁজ-খবর নিচ্ছে।
এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ের কাজ পরিদর্শন স্থানীয় সরকার মন্ত্রীর
০৯,অক্টোবর,শুক্রবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ের চলমান উন্নয়নকাজ পরিদর্শন করেছেন স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম। শুক্রবার (০৯ অক্টোবর) বিকেলে সরেজমিন পরিদর্শন করেন মন্ত্রী। এ সময় চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের (চসিক) প্রশাসক খোরশেদ আলম সুজন মন্ত্রীকে চলমান কাজের বিভিন্ন দিক অবহিত করেন। পরিদর্শনকালে মন্ত্রী মোহাম্মদ তাজুল ইসলাম এ প্রকল্পের কাজের অগ্রগতিতে সন্তোষ প্রকাশ করে বলেন, প্রকল্পটির নির্মাণকাজ সম্পন্ন হলে নগর থেকে পতেঙ্গার শাহ আমানত আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে যাতায়াত সহজ হবে। তা ছাড়া যানজটের ভোগান্তি থেকে বিমানের যাত্রীরা মুক্তি পাবেন। তিনি চট্টগ্রামে বাস্তবায়নাধীন প্রকল্পগুলোর কাজ দ্রুত সম্পন্ন করার ওপর গুরুত্বারোপ করে বলেন, এতে চট্টগ্রামের উন্নয়নে আরো নতুন নতুন প্রকল্প প্রাপ্তির পথ সুগম হবে। এ সময় স্থানীয় সরকার বিভাগের সিনিয়র সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ, রাউজান উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এহছানুল হায়দার চৌধুরী বাবুল, চসিকের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। ২০১৭ সালের জুলাইয়ে প্রায় সাড়ে ৩ হাজার কোটি টাকা ব্যয়ে লালখান বাজার থেকে বিমানবন্দরমুখী এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে নির্মাণকাজের অনুমোদন দেয় একনেক। এর প্রায় দেড় বছর পর ২০১৯ সালের ২৪ ফেব্রুয়ারি নির্মাণকাজ উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এখন পর্যন্ত প্রায় ৪০ শতাংশ কাজ শেষ হয়েছে। ১৬ কিলোমিটার দীর্ঘ এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ের ৮ কিলোমিটারের নির্মাণকাজ চলছে।

সর্বশেষ সংবাদ