মঙ্গলবার, মে ১৮, ২০২১
নেত্রকোনায় শিক্ষার্থীদের ঈদ উপহার দিলেন রিকশা চালক তারা মিয়া
০৮,মে,শনিবার,নেত্রকোনা প্রতিনিধি,নিউজ একাত্তর ডট কম: জেলার দুর্গাপুরে মানবতার ফেরিওয়ালা নামে খ্যাত রিকশা চালক তারা মিয়া ঈদুল ফিতর উপলক্ষে মাদরাসার শিক্ষার্থীদের ঈদ উপহার দিয়েছেন। শুক্রবার (৭ মে) দুপুরে দুর্গাপুর ইউনিয়নের পশ্চিম চকলেংগুরা বাইতুল নুর জামে মাদরাসার শিক্ষার্থীদের মাঝে এই ঈদ সামগ্রীগুলো বিতরণ করা হয়। এ সময় উপস্থিত ছিলেন স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদের মেম্বার হয়রত আলী, সুসং সরকারি কলেজের কর্মচারী মো. আব্দুল রাজ্জাক, পথ পাঠাগার সভাপতি নাজমুল হুদা সারোয়ার সহ স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ। উল্লেখ্য, তারা মিয়া গত ৭ বছর যাবত রিকশা চালানোর উপার্জিত টাকা থেকে বিভিন্ন বিদ্যালয় ও মাদরাসার শিক্ষার্থীদের মাঝে শিক্ষাসামগ্রীসহ নানা উপহার বিতরণ করে আসছেন। এছাড়াও তিনি মাঝে মাঝে গরীব অসহায়দের বিভিন্ন ভাবে সহযোগিতা করে থাকেন।
দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌরুটে যাত্রীদের উপচে পড়া ভিড়
০৬,মে,বৃহস্পতিবার,রাজবাড়ী প্রতিনিধি,নিউজ একাত্তর ডট কম: দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌরুটজুড়ে ছোট গাড়ী ও যাত্রীদের উপচে পড়া ভিড়। সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার কোনও তোয়াক্কা করছে না কেউ। গাদাগাদি করে গন্তব্যস্থানে পৌঁছানোর চেষ্টা করছে যাত্রীরা। এসময় ঘাটে ছোট গাড়ীর চাপও বৃদ্ধি পেয়েছে। দৌলতদিয়া ফেরি ঘাট এলাকায় গিয়ে দেখা যায়, দীর্ঘবিরতির পর শুরু হয়েছে স্থানীয় যাত্রীবাহী পরিবহনগুলোর চলাচল। ঘরমুখি হচ্ছে সাধারণ মানুষ। স্থানীয় গণপরিবহন থাকলেও ছোট গাড়ীর চাপ বেশি রয়েছে। এসময় ভাড়ায় চলাচল করছে প্রাইভেটকার, মাইক্রোবাস, অটো এবং মোটরসাইকেল। এদিকে লঞ্চ চলাচল বন্ধ থাকায় ঘরমুখি যাত্রীরা নদী পার হচ্ছেন ফেরিতেই। বিআইডব্লিউটিসি দৌলতদিয়া ঘাট শাখা সূত্রে জানা যায়, দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌরুটে দিনে ৬টি ইউটিলিটি (ছোট) ফেরি চলাচল করে। রাতে চলাচল করে ছোট বড় ১৫টি ফেরি। এরইমাঝে গত ২৪ ঘণ্টায় ১১ শত পণ্যবাহী ট্রাক ও ১৫ শত ছোট গাড়ী নদী পার হয়েছে বলেও জানায় দৌলতদিয়া ঘাট কর্তৃপক্ষ।
মানবতার ফেরিওয়ালা যুবলীগ নেতা বায়েজীদ
০৫,মে,বুধবার,লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি,নিউজ একাত্তর ডট কম: করোনাভাইরাস শুরু থেকে মানুষের পাশে দাঁড়িয়ে সকাল থেকে মাঝরাত পর্যন্ত কাজ করে যাচ্ছেন লক্ষ্মীপুর জেলা যুবলীগের সাবেক যুগ্ন-আহবায়ক বায়েজীদ ভূঁইয়া। প্রতিদিন নতুন নতুন উদ্যোগ আর সাহায্য সহযোগিতায় তাকে পাশে পাচ্ছেন জেলাবাসী। এসব উদ্যোগের কারণে বায়েজীদ ভূঁইয়া স্থানীয়দের কাছে- মানবতার ফেরিওয়ালা হিসেবে পরিচিত হয়ে উঠেছেন। কেউ কেউ আবার তাকে 'মানবিক নেতা' বলেও ডাকেন। গেল বছরে করোনার শুরু থেকে এ পর্যন্ত লক্ষ্মীপুর জেলায় শনাক্ত হয়েছে ২ হাজার ৮৪৫ জন। মৃত্যু হয়েছে ৫১ জনের। ফলে শুরু থেকে বেড়েছে ঝুঁকি। করোনার দ্বিতীয় ঢেউ মোকাবিলায় গত মাসের (৫ এপ্রিল) লকডাউন করা হয়েছে লক্ষ্মীপুর জেলা। এর আগে ২০২০ সালে করোনার শুরু থেকে কয়েক বার লকডাউন হয় এ জেলা। এমন পরিস্থিতিতে নিম্ন আয়ের লোকজনের চরম দুর্দিন যাচ্ছে। কষ্টে আছেন মধ্যবিত্তরাও। তাদের কথা চিন্তা করে বায়েজীদ ভূঁইয়া ব্যতিক্রমী উদ্যোগ গ্রহণ করেন। সে তার উপজেলায় সকাল থেকে মধ্যরাত পর্যন্ত গরীব, অসহায় ও দুস্থ মানুষের বাড়িতে বাড়িতে গিয়ে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ কার্যক্রম অব্যাহত রেখেছেন। খাদ্য সামগ্রীর মাঝে ছিল চাল, ডাল, তেল, আলু ও পেঁয়াজ। এদিকে রমজানের শুরু থেকে মানুষের মাঝে ইফতার সামগ্রী বিতরণ অব্যাহত রেখেছে। এছাড়া তার ইউনিয়নে মাইকিং ও মাস্ক, হ্যান্ড গ্লাভস এবং হ্যান্ড স্যানিটাইজার বিতরণ করছেন। সুরক্ষা পোশাকসহ ভিন্ন উপকরণ দিয়ে চিকিৎসকদের সহায়তা করেছেন তিনি। করোনা শুরু থেকে তিনি বিভিন্ন স্থানে নিজ হাতে জীবাণুনাশক স্প্রেও করেন। একই সময় তিনি সদর উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নে বিতরণ করেন প্রায় ৭ হাজার ব্যাগ খাদ্য সামগ্রী। সম্প্রতি তিনি রোজা রেখে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও কেন্দ্রীয় যুবলীগ নেতাকর্মীদের নির্দেশে অসহায় কৃষদের ধান কেটে মাড়াই করে বাড়িতে পৌঁছে দেওয়াসহ কৃষকদেরকে খাদ্যসামগ্রী দিয়েছেন। সদর উপজেলার রায়পুর কেরোয়া ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি মো. আকবর ও সাধারণ সম্পাদক হুমায়ুন কবির নিউজ একাত্তরকে বলেন, করোনার শুরু থেকে খাদ্য সহায়তা ও ১ম রমজান থেকে ৩০ রমজান পর্যন্ত ইফতার সামগ্রী বিতরণ কার্যক্রম চলমান রেখেছেন বায়েজীদ। তিনি নিজেই উপস্থিত থেকে নিজ হাতে মানুষের মধ্যে এ সব সামগ্রী বিতরণ করেন। জানতে চাইলে যুবলীগ নেতা বায়েজীদ ভূঁইয়া নিউজ একাত্তরকে বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে যুবলীগের চেয়ারম্যান শেখ শামস পরশ ও সাধারণ সম্পাদক মাইনুল হোসেন খান নিখিলের আহ্বানে অসহায় মানুষগুলোর পাশে দাঁড়ানো আমার কর্তব্য। করোনাযুদ্ধের এই ক্রান্তিলগ্নে খাদ্যসামগ্রী না পেলে অসহায় মানুষগুলো খাদ্য সংকটে থাকতো। এই কারণে আমার নিজস্ব তহবিল থেকে আমি এসব সাহায্য সহযোগীতা করে যাচ্ছি। এসব কার্যক্রম অব্যাহত থাকবে।
হিলি স্থলবন্দরে আমদানি-রপ্তানি শুরু
০২,মে,রবিবার,দিনাজপুর প্রতিনিধি,নিউজ একাত্তর ডট কম: মে দিবস উপলক্ষে একদিন বন্ধের পর দিনাজপুরের হিলি স্থলবন্দরের আবারও আমদানি-রপ্তানিসহ সকল কার্যক্রম চালু হয়েছে। রোববার (২ মে) সকালে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন হিলি স্থলবন্দরের আমদানি-রপ্তানিকারক গ্রুপের সভাপতি হারুন উর রশিদ হারুন। সভাপতি জানান, গতকাল শনিবার মে দিবস উপলক্ষে হিলি বন্দরে ভারত থেকে সকল প্রকার আমদানি-রপ্তানি বন্ধ ছিলো। একদিন বন্ধের পর ভারত থেকে পণ্য আমদানি শুরু হয়েছে। সভাপতি আরও জানান, আজ সকাল থেকে বন্দরে সব কার্যক্রম স্বাভাবিক হয়েছে। ভারতীয় ট্রাকের পণ্য আনলোড করে দেশি ট্রাকগুলো লোড হয়ে দেশের বিভিন্ন স্থানে ছেড়ে যেতে শুরু করেছে।
বরগুনায় সুবিধাভোগীদের হাতে প্রধানমন্ত্রীর উপহার সামগ্রী
৩০,এপ্রিল,শুক্রবার,বরগুনা প্রতিনিধি,নিউজ একাত্তর ডট কম: বরগুনায় করোনাভাইরাসে ক্ষতিগ্রস্তদের মাঝে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপহার সামগ্রী বিতরণ করা হয়েছে। কর্মহীন পরিবহন শ্রমিক, বীর মুক্তিযোদ্ধাদের পরিবার এবং পিছিয়ে পরা তৃতীয় লিঙ্গের জনগোষ্ঠীর হাতে উপহার সামগ্রী তুলে দেন জেলা প্রশাসক হাবিবুর রহমান। বৃহস্পতিবার (২৯ এপ্রিল) বিকেলে সার্কিট হাউজ প্রাঙ্গণে আনুষ্ঠানিকভাবে ৩৮৬ জন সুবিধাভোগীদের হাতে এই সহায়তা তুলে দেয়া হয়। উপহার সামগ্রীর মধ্যে রয়েছে চাল, ডাল, তেলসহ অন্যান্য খাদ্য সামগ্রী। এসময় উপস্থিত ছিলেন পুলিশ সুপার জাহাঙ্গীর মল্লিক, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক আশ্রাফুল ইসলাম, বরগুনা পৌরসভার মেয়র কামরুল আহসান মহারাজ, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আলহাজ জাহাঙ্গীর কবীর ও বরগুনা সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মাসুমা আক্তারসহ জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটগণ। উপহার সামগ্রী বিতরণের আগে জেলা প্রশাসক হাবিবুর রহমান বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর পক্ষ থেকে এই সহায়তা প্রদান করা হয়েছে। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা একজন মানুষও যেন নিরন্ন না থাকেন। তাই বরগুনা জেলা সদরসহ সকল উপজেলায় মহামারি কালে ক্ষতিগ্রস্ত কর্মহীন হয়ে পরা মানুষের মধ্যে এই সহযোগিতা অব্যাহত থাকবে বলে জানান তিনি।
জয়পুরহাটে হুইল চেয়ার ও সেমাই চিনি বিতরণ
২৯,এপ্রিল,বৃহস্পতিবার,জয়পুরহাট প্রতিনিধি,নিউজ একাত্তর ডট কম: জয়পুরহাটে লাল সবুজ প্রতিবন্ধী কল্যাণ সংস্থার উদ্যোগে অসহায় প্রতিবন্ধীদের মাঝে হুইল চেয়ার ও সেমাই চিনি বিতরণ করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার (২৯ এপ্রিল) সকালে শহরের প্রফেসর পাড়ার লাল সবুজ প্রতিবন্ধী কল্যাণ সংস্থার কার্যালয় চত্বরে পাঁচজনকে হুইল চেয়ার ও ২শ প্রতিবন্ধী পরিবারের হাতে সেমাই চিনিসহ ঈদ সামগ্রী তুলে দেন জয়পুরহাট পুলিশ সুপার মাসুম আহাম্মদ ভুইয়া। এ সময় লাল সবুজ প্রতিবন্ধী কল্যাণ সংস্থার সভাপতি জাকারিয়া মণ্ডল শিমুলের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জাকির হোসেন, জেলা এনজিও সমন্বয় কমিটির উপদেষ্টা নন্দলাল পার্শী, সদর উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান অশোক কুমার ঠাকুর, জেলা জাতীয় পার্টির সভাপতি হেলাল উদ্দিন, সাধারণ সম্পাদক তিতাস মোস্তফা ও পৌর কাউন্সিলর পাপিয়া। এসময় পুলিশ সুপার মাসুম আহাম্মদ ভুইয়া বলেন, বর্তমান সরকার প্রতিবন্ধীদের জন্য বিভিন্ন ধরনের সুযোগ-সুবিধা প্রদান করছে। প্রতিবন্ধীরা এখন আর সমাজের বোঝা নয়। সমাজের বিত্তবানদের তাদের পাশে দাঁড়ানোর আহ্বান জানান তিনি।
হিলিতে তীব্র তাপদাহে বিপাকে নিম্ন আয়ের মানুষ
২৮,এপ্রিল,বুধবার,হিলি প্রতিনিধি,নিউজ একাত্তর ডট কম: গত কয়েকদিন ধরে চলা তীব্র তাপদাহে দিনাজপুরের হিলিতে সাধারণ মানুষের জনজীবন অতিষ্ট হয়ে পড়েছে। অতিরিক্ত গরমের কারণে কাজ করতে না পেরে বিপাকে পড়েছেন খেটে খাওয়া দিনমজুর নিম্ন আয়ের মানুষজন। গত কয়েকদিন ধরেই সারাদেশের মতো হিলিতেও তীব্র তাপদাহ চলছে। তীব্র রোদ ও গরমের কারণে প্রয়োজন ছাড়া অনেকেই ঘর থেকে বের হচ্ছেন না। গরম থেকে রেহায় পেতে একটু বিশ্রামের আশায় বিভিন্ন গাছের ছায়ায় নিচে বসে থাকতে দেখা গেছে অনেককে। পথচারীরা বলেন, গত কয়েকদিন ধরে প্রচণ্ড রোদের তাপের কারণে তাপদাহ চলছে। মানুষজন তীব্র রোদ ও গরমের কারণে বাড়ি থেকে বাহির হতে পারছেনা। কাজ করতে না পারায় অনেকের আয় রোজগার নেই। অতিরিক্ত গরমের কারণে ডায়রিয়াসহ বিভিন্ন রোগে অসুস্থ হয়ে পড়ছেন মানুষ। এতই গরম যে রোদের মধ্যে চলাফেরা করলে স্ট্রোক হবার উপক্রম হয়ে যাচ্ছে। ভ্যান চালক খালেদ হোসেন বলেন, গরমের কারণে মানুষজন বাড়ি থেকে বের না হওয়ায় যাত্রী পাওয়া যাচ্ছেনা। ফলে জীবন চালানো কষ্ট হয়ে পড়ছে। এত পরিমাণ গরম আগে কখনো ছিল না, দেখিইনি। আবহাওয়া অধিদপ্তরের দিনাজপুরের ইনচার্জ তোফাজ্জল হোসেন বলেন, সুর্য লম্বভাবে কিরণ দেওয়ায় ও বাতাসে হিমেলিটির পরিমাণ বেশি থাকায় গত কয়েকদিন ধরে সারাদেশেই তাপদাহ চলছে। এমন অবস্থা আরও দুএকদিন বিরাজ করবে। এরপর দেশের বিভিন্ন স্থানে কালবৈশাখি ঝড়সহ বৃষ্টি হতে পারে, সে সময় তাপমাত্রা কমে আসবে। তিনি আরও জানান, আগামী ২৯ এপ্রিল থেকে শুরু করে ৬ মে পর্যন্ত দেশের বিভিন্ন স্থানে পর্যায়ক্রমে এই ঝড়সহ বৃষ্টি হতে পারে। তবে দিনাজপুর অঞ্চলে আগামী মাসের ২-৩ তারিখের আগে হওয়ার সম্ভাবনা দেখা যাচ্ছে।
অসহায় পরিবারের পাশে এমপি আলহাজ মোরশেদ আলম
২৬,এপ্রিল,সোমবার,নোয়াখালী প্রতিনিধি,নিউজ একাত্তর ডট কম: দ্বিতীয় ধাপে বিশ্বব্যাপী করোনা মহামারিতে কর্মহীন হয়ে পড়া হতদরিদ্র, দুঃস্থ ও অসহায় পরিবারের মাঝে নোয়াখালী-২ আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ মোরশেদ আলমের ব্যক্তিগত তহবিল থেকে ঈদ সামগ্রী বিতরণের কার্যক্রম চলছে। সংসদ সদস্যের স্থানীয় প্রতিনিধি কামাল উদ্দিন চৌধুরী বলেন, করোনা মহামারির প্রথম থেকে আলহাজ মোরশেদ আলম এমপির পক্ষ থেকে নির্বাচনী এলাকা সেনবাগ-সোনাইমুড়িতে ৩০ হাজার পরিবারের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করা হয়। এবার করোনার দ্বিতীয় ধাপে রমজান উপলক্ষে প্রথম পর্যায়ে ১৫ হাজার পরিবারের মাঝে ঈদ সামগ্রী বিতরণ করা হচ্ছে। এছাড়া আরও কয়েক ধাপে ঈদ সামগ্রী বিতরণ করা হবে বলেও জানান তিনি। প্রতি পরিবারের জন্য চিড়া, মুড়ি সেমাই, চিনি, তেলসহ নিত্য প্রয়োজনীয় খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করা হবে।
স্ত্রী পরকীয়ার টানে পরপুরুষের ঘরে, সেই কষ্টে ছেলেকে খুন
২৬,এপ্রিল,সোমবার,মাদারীপুর প্রতিনিধি,নিউজ একাত্তর ডট কম: মাদারীপুরের কালকিনিতে পরকীয়ার জেরে ছেলেকে গলা কেটে হত্যার অভিযোগ উঠেছে বাবার বিরুদ্ধে। এ সময় বিষ খাওয়া অবস্থায় বাবাকে উদ্ধার করে ভর্তি করা হয়েছে সদর হাসপাতালে। রোববার (২৫ এপ্রিল) রাতে কালকিনি উপজেলার গোপালপুর এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। নিহত রনি খৈয়ার (১০) এতিমখানা থেকে লেখাপড়া করতেন। স্বজনরা জানায়, সম্প্রতি মাদারীপুরের কালকিনির গোপালপুরের তোফাজ্জেল হোসেনের স্ত্রী মিনারা একই এলাকার চা বিক্রেতা আব্দুর রশিদের সাথে পরকীয়ায় সম্পর্ক গড়ে তোলে। দেড় মাস আগে মিনারা রশিদের সাথে চলে যায়। পরে তোফাজ্জেলের মনের ভেতর শুরু হয় মানসিক যন্ত্রণা। লোকলজ্জার ভয়ে ছেলে ও নিজেকে পৃথিবী থেকে সরিয়ে নেয়ার পরিকল্পনা করেন তিনি। সেই অনুযায়ী রোববার রাত ১০টার দিকে তোফাজ্জেল ধারালো অস্ত্র দিয়ে ছেলে রনিকে গলাকেটে হত্যা করে। একই সাথে বিষ পান করেন তোফাজ্জেলল। পরে এ সংবাদ পেয়ে পুলিশ এসে নিহত রনির মরদেহ উদ্ধার করে ময়না তদেন্তর জন্য জেলা সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠান। পাশাপাশি তোফাজ্জেলকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। তোফাজ্জেলের শ্যালক আনোয়ার হোসেন বলেন, মিনারা পরকীয়ার কারণে চা বিক্রেতা রশিদের সাথে ঢাকায় চলে গেছে। পরে তোফাজ্জেল কষ্ট থেকে বাঁচতে এই ঘটনা ঘটিয়েছে। এ বিষয়ে মাদারীপুরের কালকিনি থানার অফিসার ইনচার্জ ইশতিয়াক আসফাক রাসেল জানান, অসুস্থ তোফাজ্জেল সুস্থ্য হবার পর তার কাছ থেকে ঘটনার বিবরণ শুনে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

সর্বশেষ সংবাদ

সারা দেশ পাতার আরো খবর