সিরিজ হারল বাংলাদেশ
২৩,মার্চ,মঙ্গলবার,স্পোর্টস ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: সিরিজে সমতা ফিরতে আশা জাগানিয়া ব্যাটিং করেছিল বাংলাদেশ। ক্রাইস্টচার্চে দ্বিতীয় ওয়ানডেতে ৬ উইকেটে করেছিল ২৭১ রান। হ্যাগলি ওভালের মাঠে এত রান তাড়া করে জেতার নজির ছিল না আগে। অথচ বাংলাদেশকে ৫ উইকেটে হারিয়ে সেই অসাধ্য সাধনটাই করলো স্বাগতিক নিউজিল্যান্ড। তাতে এক ম্যাচ হাতে রেখেই ২-০ তে সিরিজ নিশ্চিত করেছে স্বাগতিকরা। এমন হারে বাংলাদেশের বাজে ফিল্ডিংয়ের দায় কম নয় মোটেও। বিশেষ করে ৫৩ রানে ৩ উইকেট পড়ে যাওয়ার পর জয়ের ভিত গড়ে দেয় কনওয়ে ও ল্যাথামের ১১৩ রানের জুটি। তাতে অবশ্য বড় অবদান ছিল তাসকিনের! কনওয়েকে রান আউটের সূবর্ণ সুযোগ পেয়েও সেটি হাতছাড়া করেছেন। শেষ পর্যন্ত তামিমের দুর্দান্ত ফিল্ডিংয়ে জুটি ভাঙে তাদের। ৭২ রানে ফেরেন কনওয়ে। তাতে ম্যাচে ফেরার পরিস্থিতিও তৈরি করেছিল বাংলাদেশ। কিন্তু হায়! এমন পরিস্থিতিতে চিরচেনা বাজে ফিল্ডিং ডুবিয়েছে তাদের। ম্যাচের ৩৭ ও ৩৮তম ওভারে তিনটি ক্যাচ ছেড়েছে ফিল্ডাররা। শুরুটা হয় উইকেটকিপার মুশফিককে দিয়ে। তাসকিনের বলে উইকেটের পেছনে নিশামের ক্যাচ ছাড়েন মুশফিক। এক বল পরই ল্যাথাম তাসকিনের বলে কভারে ক্যাচ তুলেছিলেন। তুলনামূলক কঠিন ক্যাচ হলেও আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে এসব ক্যাচ হরহামেশাই হয়ে যায়। মিঠুন জমাতে পারেননি বল। পরের ওভারে মেহেদী হাসান নিজের বোলিংয়ে ফিরতি ক্যাচ ফেলে দেন ল্যাথামের। লোপ্পা এই ক্যাচ মিসে ম্যাচটাই যে হাতছাড়া করে ফেলে বাংলাদেশ! পরে নিশামের সঙ্গে জুটি গড়ে ম্যাচ বের করে নেন ল্যাথাম। নিশামকে ৩০ রানে বিদায় দিয়েও ম্যাচের ভাগ্য বদলাতে পারেননি মোস্তাফিজ। পঞ্চম সেঞ্চুরি ‍তুলে নিয়ে ঠিকই ম্যাচ বের করে নেন কিউইদের অধিনায়ক। ৫ উইকেট হারানো কিউইদের জয় নিশ্চিত হয় ৪৮.২ ওভারে। অথচ দ্বিতীয় এই ম্যাচে ঘুরে দাঁড়ানোর দৃঢ় প্রত্যয় ছিল বাংলাদেশের। টস হেরেও টপ অর্ডারের অবদানে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ৬ উইকেটে ২৭১ রান সংগ্রহ করে সফরকারীরা। বরাবরের মতো এই ম্যাচেও টস জিতে শুরুতে বোলিংয়ের সিদ্ধান্ত নিয়েছিল নিউজিল্যান্ড। শুরুতে লিটন দাস ফিরলেও পরে তামিম ইকবালের ৭৮ ও মিঠুনের অপরাজিত ৭৩ রানেই বড় সংগ্রহ পায় বাংলাদেশ। আগের ম্যাচে অসাধারণ বল করা বোল্ট অবশ্য এদিন ছিলেন নিষ্প্রভ। ৪৯ রান দিয়ে নিয়েছেন একটি। সম সংখ্যক উইকেট নিয়েছেন ম্যাট হেনরি ও কাইল জেমিসনও। দুটি নিয়েছেন মিচেল স্যান্টনার। বাংলাদেশের হয়ে দুটি করে উইকেট নিয়েছেন মোস্তাফিজুর ও মেহেদী হাসান।
মেসির রেকর্ড গড়ার ম্যাচে বার্সার গোল উৎসব
২২,মার্চ,সোমবার,স্পোর্টস ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: আগের ম্যাচেই বার্সেলোনার কিংবদন্তি মিডফিল্ডার জাভিকে ছুঁয়ে ফেলেছিলেন লিওনেল মেসি। এবার সাবেক সতীর্থকে ছাড়িয়েও গেলেন আর্জেন্টাইন ফরোয়ার্ড। বার্সার জার্সিতে সবচেয়ে বেশি ম্যাচ খেলার রেকর্ডের একক মালিকানা এখন মেসির দখলে। আর অধিনায়কের এমন ইতিহাস গড়ার ম্যাচে গোল উৎসবে মাতলো কাতালান জায়ান্টরা। রোববার দিনগত রাতে রিয়াল সোসিয়েদাদকে তাদের ঘরের মাঠে ৬-১ গোলে উড়িয়ে দিয়েছে বার্সা। প্রথমার্ধে আতোঁয়া গ্রিজম্যান ও সের্জিনো ডেস্টের গোলে এগিয়ে যায় সফরকারিরা। এরপর দ্বিতীয়ার্ধে ডেস্ট আরও এক গোল করেন। পরে গোল উৎসবে যোগ দেন মেসি ও উসমানে দেম্বেলেও। । মাঝে সোসিয়েদাদের আন্দের বারেনেতেক্সিয়া এক গোল শোধ করেন। ম্যাচটি খেলতে নেমেই ইতিহাসে নাম লেখান মেসি। বার্সার সিনিয়র দলের হয়ে এটা তার ৭৬৮তম ম্যাচ। এর আগে হুয়েস্কার বিপক্ষে মাঠে নেমে জাভির রেকর্ড স্পর্শ করেছিলেন মেসি। আর ম্যাচটাকে স্মরণীয় করে রাখার কাজটাও ভালোভাবেই করেন তিনি। নিজে জোড়া গোল করার পাশাপাশি সতীর্থকে দিয়ে এক গোলও করান। শুরু থেকেই আক্রমণের পসরা সাজিয়ে বসা বার্সা ৩৭তম মিনিটেই গ্রিজম্যানের গোলে এগিয়ে যায়। আলবার পাঠানো বলে জোরালো শিট নিয়েছিলেন দেম্বেলে। কিন্তু সোসিয়েদাদের গোলরক্ষক রেমিরো দুর্দান্তভাবে ঠেকিয়ে দেন। তবে বল ক্লিয়ার করার আগেই চলে যায় গ্রিজম্যানের পায়ে, আর একদম কাছ থেকে বল পোস্টে পাঠিয়ে দেন ফরাসি ফরোয়ার্ড। বিরতির মিনিট দুয়েক আগে মেসির নিখুঁত থ্রো-বল ফাঁকায় পেয়ে নিচু শটে বল জালে জড়িয়ে দেন ডেস্ট। দ্বিতীয়ার্ধে শুরু হয় বার্সার গোল উৎসব। প্রতিপক্ষের দুই ডিফেন্ডারকে ফাঁকি দিয়ে গোলমুখে নিচু পাস দেন আলবা। সেখানে সুযোগের অপেক্ষায় থাকা ডেস্ট বল দখলে নিয়েই বাঁ পায়ের শটে ফাঁকা জালে বল পাঠিয়ে দেন। ৫৬তম মিনিটে গোলের দেখা পান মেসি। প্রতিপক্ষের ডিফেন্সে বুসকেতসের উঠিয়ে মারা বল দৌড়ে নিয়ন্ত্রণে নিয়ে বাঁ পায়ের শটে রেমিরোকে পরাস্ত করেন মেসি। ৭১তম মিনিটে গোলের খাতা খোলেন দেম্বেলে। মোরিবার পাস ধরে সোসিয়েদাদের ডিফেন্সে ঢুকে বাঁ পায়ের শটে লক্ষ্যভেদ করেন ফরাসি ফরোয়ার্ড। ৭৭তম মিনিটে ব্যবধান কমান বারেনেতেক্সিয়া। সতীর্থ ফার্নান্দেসের সঙ্গে ওয়ান-টু পাসের পর বক্সে ঢুকে পড়েন এই সোসিয়েদাদ উইঙ্গার। এরপর ডান পায়ের জোরালো শটে বার্সা গোলরক্ষক মার্ক-আন্দ্রে টের স্টেগানকে সহজেই পরাস্ত করে বল জালে জড়িয়ে দেন। তবে স্বাগতিকদের ব্যবধান কমানোর স্বস্তিও কেড়ে নেন মেসি। ৮৯তম মিনিটে আলবার কাছ থেকে বল পেয়ে বাঁ পায়ের শটে লক্ষ্যভেদ করেন তিনি। এই নিয়ে ২৮ ম্যাচে ১৯ জয়, ৫ ড্র ও ৪ হারে ৬২ পয়েন্ট নিয়ে লা লিগার পয়েন্ট তালিকার দুইয়ে উঠে এলো বার্সা। একই রাতে আলাভেসকে ১-০ গোলে হারানো অ্যাতলেতিকো মাদ্রিদ সমান ম্যাচে ৬২ পয়েন্ট নিয়ে আছে শীর্ষে। আর ৬০ পয়েন্ট নিয়ে তিনে রিয়াল মাদ্রিদ।
ইংল্যান্ডকে উড়িয়ে ফাইনাল জয় ভারতের
২১,মার্চ,রবিবার,স্পোর্টস ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: পাঁচ ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজে ২-২ সমতা ছিল। আহমেদাবাদে সিরিজের পঞ্চম ও শেষ টি-টোয়েন্টি ম্যাচটি আদতে পরিণত হয়েছিল অঘোষিত ফাইনালে। সেই ফাইনাল জিতলো ভারত বড় ব্যবধানেই। ইংল্যান্ডকে ৩৬ রানে হারিয়ে ৩-২ ব্যবধানে সিরিজ নিজেদের করে নিয়েছে বিরাট কোহলির দল। মহাগুরুত্বপূর্ণ লড়াইয়ে অবশ্য ভারতকে আসল কাজটা করে দিয়েছেন ব্যাটসম্যানরাই। তবে বোলারদেরও অবদানও ফেলে দেয়া যাবে না কিছুতেই। বরং একটা সময় তো ইংল্যান্ডেরও জয়ের ভালো সম্ভাবনা তৈরি হয়েছিল। সেখান থেকে দারুণভাবে ঘুরে দাঁড়ান ভারতীয় বোলাররা। রোহিত শর্মা, বিরাট কোহলির দুর্দান্ত হাফসেঞ্চুরির সঙ্গে হার্দিক পান্ডিয়া আর সূর্যকুমার যাদবের ব্যাটিং তাণ্ডবে ২ উইকেটে ২২৪ রানের বিশাল সংগ্রহ দাঁড় করিয়েছিল টস হেরে ব্যাট করতে নামা ভারত। রোহিত আর কোহলি ৫৪ বলের উদ্বোধনী জুটিতেই দলকে এনে দেন ৯৪ রান। ৩৪ বলে ৪ বাউন্ডারি আর ৫ ছক্কায় ৬৪ রান করে বেন স্টোকসের বলে বোল্ড হলে ভাঙে এই জুটি। উইকেটে আসেন সূর্যকুমার। এসেই আগের ম্যাচের মতো তাণ্ডব শুরু করেন। ১৭ বলে ৩ চার আর ২ ছক্কায় ৩২ রানের ছোট কিন্তু কার্যকরী এক ইনিংস খেলে সূর্য আদিল রশিদের শিকার হলে কিছুটা স্বস্তির আশা করেছিল ইংল্যান্ড। কিন্তু তাদের সেই স্বস্তি আসেনি। এবার কোহলির সঙ্গী হন হার্দিক পান্ডিয়া। তৃতীয় উইকেটে ৪০ বলে ৮১ রানের বিধ্বংসী এক জুটি উপহার দেন তারা। দুজনই থাকেন অপরাজিত। কোহলি ৫২ বলে ৭ চার আর ২ ছক্কায় করেন ৮০ রান। হার্দিক ১৭ বলে ৪ বাউন্ডারি আর ২ ছক্কায় খেলেন হার না মানা ৩৯ রানের ইনিংস। লক্ষ্য ২২৫ রান। ইংল্যান্ড ১৩ ওভার পর্যন্ত দশের ওপর রান তুলেই এগোচ্ছিল। উইকেট তখনও হাতে ছিল ৮টি। কিন্তু ভারতীয় বোলাররা সেখান থেকে দারুণভাবে কামব্যাক করেন। একের পর এক উইকেট হারিয়ে ইংলিশরা থামে ৮ উইকেটে ১৮৮ রানে। জস বাটলার ৩৪ বলে ৫২ আর ডেভিড মালান ৪৬ বলে ৬৮ রান করে ফেরার পরই কার্যত ম্যাচ থেকে ছিটকে পড়ে ইংল্যান্ড। পরের ব্যাটসম্যানদের কেউ বিশের ঘরও ছুঁতে পারেননি। ভারতীয় বোলারদের মধ্যে সবচেয়ে সফল ছিলেন শার্দুল ঠাকুর। ৪ ওভারে ৪৫ রান খরচ করলেও গুরুত্বপূর্ণ ৩টি উইকেট নেন এই পেসার। ভীষণ মিতব্যয়ী ছিলেন ভুবনেশ্বর কুমার। ৪ ওভারে মাত্র ১৫ রান দিয়ে ২টি উইকেট নেন তিনি।
সিরি আর বর্ষসেরা ফুটবলার রোনালদো
২০,মার্চ,শনিবার,স্পোর্টস ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: ইতালিয়ান ফুটবলের সর্বোচ্চ লিগ সিরি আর বর্ষসেরা ফুটবলার আবারও নির্বাচিত হয়েছেন পর্তুগিজ ও জুভেন্টাস তারকা ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো। টানা দ্বিতীয় বার সিরি আর বর্ষসেরা ফুটবলার নির্বাচিত হয়েছেন তিনি। শুক্রবার এই ঘোষণাটি দেওয়ায় হয়। গত মৌসুমে রোনালদো ৩৩ লিগ ম্যাচে ৩১টি গোল করেছিলেন। এর আগে ২০১৮ সালে জুভেন্টাসে যোগদানের পরের মৌসুমেই ২০১৯ সালে এই সিআরসেভেন পুরস্কারটি নেন। ২০২০ সালে করোনাভাইরাসের কারণে এই অ্যাওয়ার্ডটি দেওয়া হয়নি। এদিকে বর্ষসেরা নারী ফুটবলারের পুরস্কার জিতেছেন জুভেন্টাস নারী দলের স্ট্রাইকার ক্রিস্টিয়ান গিরেল্লি। বর্ষসেরা দলের খেতাব জিতেছে আতালান্তা। আর বর্ষসেরা কোচ হয়েছেন একই দলের পিয়েরো গ্যাসপেরিনি।
কাল নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে মাঠে নামবে বাংলাদেশ
১৯,মার্চ,শুক্রবার,স্পোর্টস ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: তিন ম্যাচ সিরিজের প্রথম ওয়ানডেতে আগামীকাল স্বাগতিক নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে মাঠে নামবে বাংলাদেশ। ডানেডিনের ইউনিভার্সিটি ওভাল মাঠে খেলাটি শুরু হবে বাংলাদেশ সময় ভোর ৪টায়। নিউজিল্যান্ডের কন্ডিশন সবসময় দুর্ভেদ্য বাংলাদেশর কাছে। এখন পর্যন্ত কিউইদের মাটিতে ১৩টি ম্যাচ খেলেছে টাইগাররা। হেরেছে সবকটিতেই। তবে এবার সেখানকার বিরূপ আবহাওয়ার সঙ্গে নিজেদের মানিয়ে নিতে বেশ আগেভাগেই নিউজিল্যান্ডে তাবু গেড়েছে টিম বাংলাদেশ। প্রস্তুতির জন্য পেয়েছে লম্বা সময়। আর বাংলাদেশের জয় না থাকলেও দলের বর্তমান কোচ রাসেল ডোমিঙ্গো ঠিকই জিতেছেন দক্ষিণ আফ্রিকা দলের কোচ থাকা অবস্থায়। সবকিছু মিলিয়ে তামিমবাহিনীর সামনে ভালো সুযোগ নিউজিল্যান্ড থেকে জয় নিয়ে ফেরার।
নেপাল পৌঁছেছে বাংলাদেশ ফুটবল দল
১৮,মার্চ,বৃহস্পতিবার,স্পোর্টস ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: ত্রিদেশীয় টুর্নামেন্টে অংশ নিতে বৃহস্পতিবার (১৮ মার্চ) নেপাল পৌঁছেছে বাংলাদেশ জাতীয় ফুটবল দল। শেষ দিনের করোনা পরীক্ষায় পজেটিভ হয়ে আপাতত আইসোলেশনে আছেন ডিফেন্ডার রহমত মিয়া। তবে নেগেটিভ হওয়ায় ছাড়পত্র পেয়েছেন রাকিব। করোনার উপসর্গ থাকায় বুধবার (১৭ মার্চ) কোভিড পরীক্ষা করা হয় ৪ ফুটবলারের। এরমধ্যে পজেটিভ আসে রহমতের। ২০ মার্চ আবারো করোনা পরীক্ষা করা হবে তার। এ দফায় নেগেটিভ আসলে ২২ তারিখ দলের সঙ্গে যোগ দেবেন এই ডিফেন্ডার। প্রথম দফায় তাই নেপাল গেল ২৩ ফুটবলার। অধিনায়ক জামাল ভূঁইয়া নেপাল যাবেন সোমবার (২২ মার্চ)। বৃহস্পতিবার পৌঁছে কোন অনুশীলন করেনি দল। শুক্রবার (১৯ মার্চ) থেকে সকাল-বিকেল দুই দফা নিজেদের ঝালিয়ে নেবেন ফুটবলাররা। ২৩ মার্চ টুর্নামেন্টের উদ্বোধনী ম্যাচে কিরগিস্তানের মুখোমুখি হবে বালাদেশ।
আখাউড়ার পাঁচ শতাধিক দৌঁড়বিদের অংশগ্রহণে হাফ ম্যারাথন
১৭,মার্চ,বুধবার,স্পোর্টস ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়া উপজেলায় পাঁচ শতাধিক দৌঁড়বিদের অংশগ্রহণে হাফ ম্যারাথন শুরু হয়েছে। বুধবার (১৭ মার্চ) ভোরের আলো ফোটার সঙ্গে সঙ্গে তরুণ থেকে শুরু করে বৃদ্ধরাও এ প্রতিযোগিতায় অংশ নিতে জড়ো হতে থাকেন উপজেলা পরিষদের মাঠে। সেখান থেকে তাদের যাত্রা শুরু হয়। মাঝে মধ্যে ম্যারাথনে অংশগ্রহণকারীদের আনন্দ চিৎকারে বহুদূর পর্যন্ত ছড়িয়ে পড়ে উৎসবের আমেজ। সকাল ছয়টায় ম্যারাথন উদ্বোধন করেন আখাউড়া পৌরসভার মেয়র মো. তাকজিল খলিফা কাজল। এ সময় আখাউড়া উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মো. আবুল কাসেম ভূঁইয়া, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মোহাম্মদ নূর-এ আলম, কুমিল্লার ভিক্টোরিয়া কলেজের সহকারী অধ্যাপক মো. মশিউর রহমান, উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম আহ্বায়ক মো. মনির হোসেন বাবুল, যুবলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক মো. আব্দুল মমিন বাবুলসহ অনেকে উপস্থিত ছিলেন। বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে কুমিল্লাস্থ আখাউড়া ছাত্রকল্যাণ পরিষদ এ প্রতিযোগিতার আয়োজন করে। এতে দুটি গ্রুপ ২১ ও ১০ কিলোমিটার ম্যারাথনে অংশ নেয়। দেশের বিভিন্ন জেলা থেকে ২০ বছর বয়সী থেকে শুরু করে ৬১ বছর বয়সীরাও অংশ নেন এ হাফ ম্যারাথনে। ম্যারাথনকে কেন্দ্র করে আখাউড়ায় উৎসবের আমেজ বিরাজ করছিল।
রেকর্ড ছোঁয়ার ম্যাচে মেসির জোড়া গোল, বার্সার দাপুটে জয়
১৬,মার্চ,মঙ্গলবার,স্পোর্টস ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: চ্যাম্পিয়নস লিগের হতাশা ভুলে লিগ পুনরুদ্ধারের মিশনে ভালোভাবেই নেমেছেন মেসিরা। দুর্বল হুয়েস্কার বিপক্ষে বার্সার জয় নিয়ে সংশয় ছিল সামান্যই। নিজেদের মাঠে বার্সা কত গোলে জিতবে, তা নিয়েই বরং ছিল আলোচনা। সোমবার রাতে ন্যু ক্যাম্পে বার্সা জিতেছে ৪-১ গোলে। গোল করেছেন বার্সার তিন খেলোয়াড়। রেকর্ড ছোঁয়ার ম্যাচে মেসি জোড়া গোল করার মাঝে সতীর্থের গোলে রাখলেন অবদান। নজরকাড়া পারফরম্যান্সে আলো ছড়াল বার্সেলোনা। হুয়েস্কাকে উড়িয়ে লা লিগায় টানা ১৭ ম্যাচ অপরাজেয় থাকল রেনাল্ড কুমানের দল। গত ৫ ডিসেম্বরের পর আর হারেনি তারা। মেসি দলকে এগিয়ে নেওয়ার পর ব্যবধান দ্বিগুণ করেন অঁতোয়ান গ্রিজমান। রাফা মির একটি গোল শোধ করার পর দ্বিতীয়ার্ধে অস্কার মিনগেসার গোলে ম্যাচের নিয়ন্ত্রণ নেয় বার্সা। শেষে নিজের দ্বিতীয় গোলটি করেন রেকর্ড ছয়বারের বর্ষসেরা ফুটবলার। দারুণ এই জয়ে রিয়াল মাদ্রিদকে টপকে আবারও পয়েন্ট তালিকায় দুইয়ে ফিরেছে প্রতিযোগিতার দ্বিতীয় সফলতম দলটি। শীর্ষে থাকা অ্যাতলেটিকো মাদ্রিদের সঙ্গে তাদের ব্যবধান এখন মাত্র ৪ পয়েন্টের। এই ম্যাচ দিয়ে ক্লাবের ইতিহাসে জাভি হার্নান্দেসের সর্বোচ্চ ম্যাচের রেকর্ড স্পর্শ করলেন মেসি। সব প্রতিযোগিতা মিলিয়ে দুজনের ম্যাচ এখন ৭৬৭। রেকর্ড ছোঁয়ার উপলক্ষ রাঙাতে মোটেও দেরি করেননি মেসি। ত্রয়োদশ মিনিটে অসাধারণ নৈপুণ্যে দলকে এগিয়ে নেন তিনি। দারুণ ভঙ্গিমায় প্রতিপক্ষের বাধা এড়িয়ে বল নিয়ন্ত্রণে নিয়ে ডি-বক্সের বাইরে থেকে বাঁ পায়ের জোরালো শটে গোলটি করেন আর্জেন্টাইন তারকা। বল ক্রসবারের ভেতরের কানায় লেগে জালে জড়ায়। গ্রিজমানের ব্যবধান দ্বিগুণ করা গোলটিও দর্শনীয়। ৩৬তম মিনিটে পেদ্রির বাড়ানো বল ধরে একটু এগিয়ে সামনে ফাঁকা পেয়ে দূর থেকে জোরালো শট নেন ফরাসি ফরোয়ার্ড। ঝাঁপিয়েও বলের নাগাল পাননি হুয়েস্কা গোলরক্ষক। বিরতির ঠিক আগের শেষ শটে ব্যবধান কমায় হুয়েস্কা। দারুণ এক প্রতি-আক্রমণে রাফা মির ডি-বক্সে ঢুকে পড়লেও সতীর্থের ক্রসে পা লাগাতে ব্যর্থ হন। তবে টের স্টেগেন এগিয়ে এসে তাকে ফাউল করে বসেন। পেনাল্টি পেয়ে কাজে লাগাতে ভুল করেননি স্প্যানিশ ফরোয়ার্ড মির। চাপ ধরে রেখে দ্বিতীয়ার্ধের অষ্টম মিনিটে ব্যবধান বাড়ায় বার্সেলোনা। বাঁ দিক থেকে মেসির দারুণ ক্রসে লাফিয়ে হেডে গোলরক্ষককে পরাস্ত করেন অরক্ষিত মিনগেসা। বার্সেলোনা যুব দল থেকে উঠে আসা তরুণ ডিফেন্ডারের মূল দলের হয়ে এটি প্রথম গোল। চার মিনিট পর দারুণ প্রতি-আক্রমণে সুবর্ণ সুযোগ পায় ওয়েস্কা। তবে বাঁ দিক থেকে সতীর্থের হেডে গোলমুখে বল পেয়েও জালে জড়াতে পারেননি মির। বল তার বুকে লেগে ক্রসবারের ওপর দিয়ে যায়। অবিশ্বাস্য মিস! নির্ধারিত সময়ের শেষ মিনিটে স্কোরলাইন ৪-১ করেন মেসি। ত্রিনকাওয়ের পাস পেয়ে দূর থেকে বার্সেলোনা অধিনায়কের নেওয়া শটে বল প্রতিপক্ষের এক জনের পায়ে লেগে দিক পাল্টে জালে জড়ায়। আরেকটি পিচিচি ট্রফির পথে ছুটে চলা মেসির গোল হলো ২১টি। বার্সেলোনার জার্সিতে ৭৬৭ ম্যাচে তার মোট গোল এখন ৬৬১। লিগে ২৭ ম্যাচে ১৮ জয় ও পাঁচ ড্রয়ে দুইয়ে ফেরা বার্সেলোনার পয়েন্ট হলো ৫৯। ২ পয়েন্ট কম নিয়ে তিনে নেমে গেছে রিয়াল মাদ্রিদ। ৬৩ পয়েন্ট নিয়ে সবার ওপরে অ্যাতলেটিকো।
মাশরাফীর শহরে এ যেন আরেক মাশরাফী
১৫,মার্চ,সোমবার,স্পোর্টস ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: অভিষেক দাশ অরণ্য। টাইগারদের অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপ জয়ী দলের অন্যতম নায়ক। দুরন্ত পেসের সঙ্গে মিডল অর্ডারে দারুণ ব্যাটিংয়ে, যিনি নজর কেড়েছিলেন সবার। কিন্তু ইনজুরিতে দীর্ঘদিন মাঠের বাইরে এ যুবা। বর্তমানে বিসিবির চিকিৎসকদের অধীনে আছেন রিহ্যাব প্রক্রিয়ায়। কঠিন এই সময়ে নিজেকে ভিন্ন ভাবে প্রস্তুত করছেন অভিষেক। যেখানে অনুপ্রেরণা খুঁজেন মাশরাফীতে। মাশরাফীর শহরে এ যেন এক নতুন মাশরাফী। অভিষেক দাশের কথা মনে আছে তো? গেলো বছর যুব বিশ্বকাপে যার পেস তাণ্ডবে মাটিতে নেমেছিলো ভারতের অহম। ফাইনালে তিন উইকেট নিয়ে ধসিয়ে দিয়েছিলেন টিম ইন্ডিয়ার ব্যাটিং লাইনআপ। সেই সাফল্যের পর অভিষেক ছুটছিলেন বিদ্যুৎ গতিতে। কিন্তু হঠাৎই যেন ছন্দপতন। সখ্যতা ইনজুরির সঙ্গে। এরপর থেকে মাস ছয়েক পেরুলো রিহ্যাবেই আছেন এই টাইগার যুবা। সতীর্থরা যখন মাঠ মাতাচ্ছেন তখন অভিষেক লড়ছেন চেনা শত্রু ইনজুরির বিপক্ষে। অভিষেক দাশ অরণ্য বলেন, আমার ট্রিটম্যান্ট চলছে। খেলতা না পারাটা অনেক কঠিন। খারাপ লাগে। তবে অনেক কিছুই শিখেছি। তবে সেখানে আছে অনুপ্রেরণা। সেটা নড়াইলের আরেক সন্তান মাশরাফীর জন্য। ম্যাশের মতোই অভিষেকও পেসার, বাটিংটাও করেন জুঁতসই। ইনজুরির এই কঠিন সময়ে বাস্তবতাকে মেনে অনুপ্রেরণা খোঁজেন মাশরাফীতেই। অভিষেক দাশ অরণ্য আরো বলেন, মাশরাফী ভাই বলেছেন যেভাবে আগাচ্ছি সেভাবেই আগাতে। আমাকে সব সময় সাহস দেয়। সব ঠিক থাকলে আগামী জুলাই নাগাদ ইনজুরি কাটিয়ে পুরোপুরি মাঠে ফিরতে পারবেন অভিষেক।