মঙ্গলবার, জুন ২২, ২০২১
প্রকাশ : 2021-06-08

ঠাকুরগাঁও জেলা করোনা প্রতিরোধ কমিটির জরুরী সভা অনুষ্ঠিত

০৭,জুন,সোমবার,ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি,নিউজ একাত্তর ডট কম: জেলায় হঠাৎ করেই বেড়েছে করোনা রোগীর সংখ্যা। পহেলা জুন থেকে রবিবার পর্যন্ত ছয়দিনে ৭৩ জন করোনায় আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়েছে। বর্তমানে আধুনিক সদর হাসপাতালে ২০ জন করোনা রোগী চিকিৎসাধীন রয়েছেন। এছাড়া গত তিনদিনে করোনায় আক্রান্ত হয়ে তিনজনের মৃত্যু হয়েছে। জেলায় করোনা সংক্রমণ রোগী শনাক্তের হার বৃদ্ধি পাওয়ায় সোমবার জেলা করোনা প্রতিরোধ কমিটির এক জরুরী সভা জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত হয়। জেলা প্রশাসক ড. কেএম কামরুজ্জামান সেলিমের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় বক্তব্য দেন, পুলিশ সুপার মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর হোসেন, সিভিল সার্জন ডা: মাহফুজার রহমান সরকার, পৌর মেয়র আঞ্জুমান আরা বেগম বন্যা, ৫০ বিজিবির অতিরিক্ত পরিচালক মেজর মুজাহিদুর ইসলাম, জেলা আওয়ামীলীগের সহ সভাপতি মাহাবুবুবর রহমান খোকন, সাধারণ সম্পাদক দীপক কুমার রায়, জেলা পরিষদ সদস্য নজরুল ইসলাম স্বপন, সদর উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ও সদর উপজেলা চেয়ারম্যান এ্যাড. অরুনাংশু দত্ত টিটো, বালিয়াডাঙ্গী উপজেলা চেয়ারম্যান আলী আসলাম জুয়েল প্রমুখ। সভায় সিভিল সার্জন ডা. মাহফুজার রহমান সরকার জানান, জেলা শহরের চেয়ে বর্তমানে সীমান্তবর্তী উপজেলাগুলোতে প্রতিদিন করোনা রোগীর সংখ্যা বৃদ্ধি পাচ্ছে। এর মধ্যে বালিয়াডাঙ্গী উপজেলায় তিনদিনে মোট ১৫ জন করোনা আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়েছে। তিনি আরো জানান, ঠাকুরগাঁও আধুনিক সদর হাসপাতাল এবং উপজেলা হাসপাতালের এন্টিজেন টেস্ট, দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজে পিসিআর টেস্ট, সিডিসি -জিন এক্সপার্ট টেস্ট হতে প্রাপ্ত রিপোর্ট অনুযায়ী ঠাকুরগাঁও জেলায় নতুন করোনা সংক্রমিত রোগী শনাক্ত করা হচ্ছে। তিনি জানান, এছাড়া জেলার রোগীদের এখন দিনাজপুর, ঠাকুরগাঁও সদর হাসপাতাল, ঠাকুরগাঁও বক্ষব্যাধি ক্লিনিক, হরিপুর, রাণীশংকৈল, পীরগঞ্জ ও বালিয়াডাঙ্গী উপজেলা স্বাস্থ্যকেন্দ্রে করোনা টেস্ট হচ্ছে। টেস্টের সংখ্যা বেড়েছে তাই শনাক্তও বেড়েছে। তবে জেলা সদর হাসপাতালে এখনো আইসিইউ বেড স্থাপন করা যায়নি। তা স্থাপন করা হলে এ এলাকার মানুষ করোনা রোগ প্রতিরোধে উপকৃত হবে। তিনি আরো জানান, পরীক্ষা করে আনুপাতিক হারে গত জানুয়ারিতে ৭ ভাগ, ফেব্র“য়ারিতে ৪ দশমিক ৩৭ ভাগ, মার্চে ১৫দশমিক ০৭ ভাগ, এপ্রিলে ১৪ দশমিক ০৮ভাগ ও মে মাসে ১৩ভাগ রোগী শনাক্ত হয়েছে। পূর্বের রিপোর্টসহ ঠাকুরগাঁও জেলায় এপর্যন্ত সর্বমোট করোনা সংক্রমিত রোগীর সংখ্যা এক হাজার সাতশ ৬০ জন, যাদের মধ্যে এক হাজার পাঁচশ ৮০জন সুস্থ্য হয়ে ছাড়পত্র পেয়েছেন এবং জেলায় করোনায় গত তিনদিনে তিনজন এবং এক বছরে মোট ৪০ জনের মৃত্যূ হয়েছে। সভায় আলোচনা শেষে জেলায় করোনা সংক্রমণ রোধে রোগী শনাক্ত হার বৃদ্ধিপ্রাপ্ত সংক্রমিত এলাকায় বাধ্যতামূলক সকলের মাক্স পরিধান নিশ্চিত করতে নিয়মিত ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা, প্রতিষ্ঠানিক আইসোলেশন সেন্টার স্থাপন, সীমান্তে অবৈধভাবে পারাপার ও জনসমাগম প্রতিরোধসহ বিভিন্ন পদক্ষেপ কঠোরভাবে বাস্তবায়নের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়।

সারা দেশ পাতার আরো খবর