বৃহস্পতিবার, সেপ্টেম্বর ২৩, ২০২১
প্রকাশ : 2021-09-04

মশক নিধন : চসিকের কীটনাশকে ব্যয় বেশি

৪সেপ্টেম্বর ২০২১, নিজেস্ব সংবাদদাতা , চট্টগ্রাম, নিউজ একাত্তর : ঢাকা, নারায়ণগঞ্জসহ দেশের বিভিন্ন সিটি কর্পোরেশন মশক নিধনে যে কীটনাশক ব্যবহার করছে তা চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের (চসিক) ব্যবহার করা কীটনাশকের চেয়ে অনেক বেশি সাশ্রয়ী। চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় যে কীটনাশক ব্যবহারের সুপারিশ করেছে তার ব্যয় অনেকটা চসিকের নাগালের বাইরে। প্রতি লিটার কীটনাশকের মিশ্রণ তৈরিতে যেখানে অন্যান্য সিটি কর্পোরেশন ব্যয় করছে প্রায় আড়াই টাকা। সেখানে চবির গবেষক দলের সুপারিশকৃত কীটনাশকে প্রতি লিটার মিশ্রণের ব্যয় প্রায় ১০০ টাকা। চসিক মশক নিধনে এডাল্টিসাইড হিসেবে দীর্ঘদিন ধরে ব্যবহার করছে ল্যাম্বডা সাইহ্যালোথ্রিন এবং ডেল্টামেথ্রিন। যার প্রতি লিটারের দাম পড়ে ৪৯০ টাকা। ঢাকা এবং নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন ব্যবহার করছে এডিসকিল লিকুইড স্প্রে ম্যালথিরন ৫% আরএফইউ। যা প্রতি লিটারের দাম ২৮০ টাকা। অর্থাৎ এডাল্টিসাইড বা পূর্ণাঙ্গ মশা মারতে চসিক প্রতি লিটারে ২১০ টাকা বেশি খরচ করছে। অপরদিকে, লার্ভিসাইড হিসেবে চসিক ব্যবহার করছে ক্লোরপাইরিফস (এম ফস ২০ ইসি) প্রতি লিটারে লেবেল নির্দেশিত মাত্রা ০.১২৫ মি.লি। প্রতি লিটারের মূল্য ৯৯০ টাকা। পানি মিশিয়ে ছিটাতে হয়। প্রতি লিটার পানিতে কীটনাশক লাগে ১৩ পয়সার। ওয়াসার অনাবাসিক পানির মূল্য প্রতি লিটার ০৩ পয়সা। ১ লিটার মিশ্রনের জন্য খরচ হয় ১৬ পয়সা। আইইডিসিআর পরীক্ষিত শতভাগ কার্যকর ঢাকা উত্তরসহ কয়েকটি সিটি কর্পোরেশন ব্যবহৃত লার্ভিসাইড হল টেমিফস ৫০% ইসি (ম্যারেক্স ৫০ ইসি)। প্রতি লিটারে লেবেল নির্দেশিত মাত্র ১.৫ মি.লি.। এই কীটনাশকের প্রতি লিটার মূল্য ১৬৯৫ টাকা। ছিটানোর জন্য প্রতি লিটার মিশ্রনে ব্যয় হয় ২ টাকা ৫৫ পয়সা। তার সাথে পানির দাম যোগ করলে খরচ পড়বে ২ টাকা ৫৮ পয়সা। অপরদিকে, সম্প্রতি চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় দ্বারা পরীক্ষিত শতভাগ কার্যকর লার্ভিসাইড মসকুবার লেবেল নির্দেশিত ব্যবহার মাত্রা ১৯.৮ মি. লি.। যা চসিককে ব্যবহারের সুপারিশ করা হয়েছে। এই কীটনাশকের দাম প্রতি লিটার ১৮০০ টাকা। এটি ডিজেল মিশিয়ে ছিটাতে হয়। প্রতি লিটারে কীটনাশকের খরচ পড়বে ৩৫ টাকা ৬৪ পয়সা। এক লিটারের মিশ্রন তৈরিতে ডিজেল লাগবে ৯৮০.২ মি. লি.। প্রতি লিটার ডিজেলের দাম ৬৫ টাকা হলে যার দাম পড়বে ৬৩.৭১ টাকা। অর্থাৎ এক লিটার কীটনাশকের মিশ্রন তৈরিতে মোট খরচ হবে ৯৯.৩৫ টাকা। চসিকের বর্জ্য সংক্রান্ত স্থায়ী কমিটির চেয়ারম্যান কাউন্সিলর মোবারক আলী বলেন, তিনি সিটি মেয়রের নির্দেশে সম্প্রতি ঢাকায় গিয়ে ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের মশক নিধন কার্যক্রম, ওষুধের ব্যবহার, কার্যকারিতা, দাম ইত্যাদি তথ্য সংগ্রহ করে এনেছেন। ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশন এবং নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন মশক নিধনের জন্য যে ওষুধ ব্যবহার করছে তা আইইডিসিআর পরীক্ষিত। ওই কীটনাশকের চেয়ে চসিকের ব্যবহার করা কীটনাশকের দাম অনেক বেশি। সম্প্রতি চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় গবেষণা দল যে ওষুধ ব্যবহারের সুপারিশ করেছে তার দাম আরো বেশি। তুলনামূলক দাম এবং কোন ওষুধের কার্যকারিতা কি রকম তার কমিটি প্রতিবেদন আকারে মেয়রের কাছে জমা দেবেন। মেয়র ওই প্রতিবেদন পর্যালোচনা করে সিদ্ধান্ত দেবেন। নিউজ একাত্তর/ভুঁইয়া

নিউজ চট্টগ্রাম পাতার আরো খবর